কবে খুলবে পাবনা বিশ্ববিদ্যালয় : ক্ষতির আশঙ্কায় শিক্ষার্থীরা

প্রকাশ : ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

পাবনা প্রতিনিধি

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এক মাস ধরে বন্ধ রয়েছে। এ কারণে অপূরণীয় ক্ষতির শিকার হচ্ছেন ছাত্রছাত্রীরা। বিশ্ববিদ্যালয় অতি দ্রুত খুলে দিয়ে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনাসহ সব কাজকর্ম স্বাভাবিক করার বিষয়ে মতামত দিচ্ছেন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ অভিভাবক মহল। কবে খুলবে বিশ্ববিদ্যালয় এমনই এক অনিশ্চয়তায় দিন কাটছে শিক্ষার্থীদের।

গত ৫ নভেম্বর সাত দফা দাবিতে আন্দোলন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। দাবিগুলোর মধ্যে ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষসহ পরবর্তী সব ব্যাচ সমূহের অর্ডিন্যান্সের আওতাভুক্ত করা, হলের ডাইনিংয়ের খাবার উন্নয়নের জন্য ভর্তুকি প্রদান, ক্লাস রুম ও চেয়ার সংকট দূর করা, পরিবহন সংকট সমাধান, ক্যাম্পাসে ওয়াইফাই চালু এবং শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন করা। ওই দিন ভাইস চ্যান্সেলর শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলার সময় ধাক্কাধাক্কির মতো একটি অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটে। শিক্ষার্থীরা জানায়, তিনি (ভিসি) তাদের সঙ্গে কোনো ধরনের আলাপ আলোচনা ছাড়াই রিজেন্ট বোর্ডের সভা করে ১০ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার ও ক্যম্পাস অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেন। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা সেশনজটসহ নানাবিধ সমস্যায় পড়বে বলে ধারণা করছেন শিক্ষক ও অভিভাবক মহল। এ নিয়ে বেশ কয়েক দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে ও পাবনা শহরে মানববন্ধন এবং বিক্ষোভ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আবদুল আলিম তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় ছাত্রছাত্রীদের অপূরণীয় ক্ষতি হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় অতি দ্রুত খুলে দিয়ে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনাসহ সব কাজকর্ম স্বাভাবিক করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কিসলু নোমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অচলাবস্থা নিরসনের জন্য দ্রুত কর্তৃপক্ষের উচিত সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে নিরসন করা দরকার। এতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আমাদেরও অনেক ক্ষতি হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. প্রীতম কুমার দাস এ বিষয়ে জানান, বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়ার ব্যাপারে ভিসি স্যার খুবই আন্তরিক। খুব শিগগিরই বিশ^বিদ্যালয় খুলে দেওয়া হবে।

"