সমাবেশে বাধা দিতেই নাটক : বিএনপি

রাজশাহীতে আকস্মিক পরিবহন ধর্মঘটে জনদুর্ভোগ চরমে

প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

বিশেষ প্রতিনিধি, রাজশাহী

পূর্ব ঘোষণা ছাড়ায় আকস্মিকভাবে রাজশাহী থেকে সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন পরিবহন শ্রমিকরা। যে কারণে গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার পর রাজশাহী থেকে নাটোর মহাসড়কে কোনো বাস ছেড়ে যায়নি এবং শহরেও প্রবেশ করেনি। তবে বিষয়টি ধর্মঘটের ইস্যু নয়, বরং রাজশাহীতে শুক্রবার ঐক্যফ্রন্টের বিভাগীয় সমাবেশে যেন দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকরা না আসতে পারে সে কারণেই পূর্ব পরিকল্পিতভাবে এমন ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপি নেতৃবৃন্দ। গতকাল দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেছেন ঐক্যফ্রন্টের রাজশাহী বিভাগের সমন্বয়ক ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু। আকস্মিক এই ধর্মঘটের কারণে সাধারণ যাত্রীরা চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন।

এ বিষয়ে রাজশাহী সড়ক পরিবহন গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মনজুর রহমান পিটার বলেন, ‘নাটোরে শ্রমিকদের সঙ্গে ঝামেলার কারণে এই রুটে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে নাটোরের পরিবহন নেতাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চলছে। সমস্যার সমাধান হলে আবারও বাস চলাচল শুরু হবে।’

আকস্মিকভাবে এ রুটের বাস চলাচল বন্ধের বিষয়ে রাজশাহী মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের আহ্বায়ক কামাল হোসেন রবি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, ‘রাজশাহী ও নাটোরের বাস মালিক সমিতির মধ্যে চেইন নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে এ ধর্মঘট শুরু হয়েছে। তবে রাজশাহীর নয়, ধর্মঘট ডেকেছে নাটোরের মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ। এর ফলে রাজশাহীর বাস মালিকরাও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। যে কারণে বিষয়টি নিয়ে শুক্রবার (আজ) দুপুরে বৈঠক ডাকা হয়েছে। আশা করি, উভয় পক্ষের আলোচনা শেষে ফলপ্রসূ সিদ্ধান্ত আসবে এবং ধর্মঘট প্রত্যাহার হবে।’

এ ব্যাপারে বিএনপির আনীত অভিযোগ সঠিক নয় উল্লেখ করে রবি বলেন, ‘তাদের কথা সত্যি হলে রাজশাহী থেকে নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ জেলার অভ্যন্তরীণ রুটের বাস চলাচলও বন্ধ থাকত।’

তবে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু বলেন, ‘শুক্রবার রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা ময়দানে ঐক্যফ্রন্টের বিভাগীয় সমাবেশকে কেন্দ্র করেই আকস্মিকভাবে বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এর আগে ঐক্যফ্রন্টের জনসভাকে কেন্দ্র করে ঢাকা এবং সিলেটে একইভাবে পরিবহন চলাচল বন্ধ করা হয়েছিল। রাজশাহীতেও এমন ঘটনা ঘটানো হবে তা আগে থেকেই অনুমান করেছি। তবে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সরকারের সকল বাধা উপেক্ষা করেই দেশবাসী কঠোর জবাবের মাধ্যমে এই অবৈধ সরকারকে বিতাড়িত করবে।’

"