নগরে শরৎ উৎসব বাঙালির ঐতিহ্য ধরে রাখার শপথ

প্রকাশ : ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঋতু বৈচিত্র্যের বাংলাদেশে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে প্রজন্মান্তরে বয়ে নিয়ে যাওয়ার শপথ ধ্বনিত হলো নাগরিক শরৎ উৎসবে। গতকাল শনিবার ভোরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের বকুলতলায় সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠীর আয়োজন করে শরৎ উৎসব।

এ উৎসবে এসে অতিথিরা বলেন, শুধু আনন্দ-উৎসবে নয়, শরতসহ সব ঋতু বৈচিত্র্যের ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতে উদ্যোগী হতে হবে। বাঙালির মানস কাঠামোতে অসাম্প্রদায়িক চেতনার বিকাশ ঘটাতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান উৎসবের উদ্বোধন করতে এসে বলেন, ‘বর্ষা শেষে অপেক্ষা, কখন আসবে একটি সুন্দর সময়! এখন আকাশে ভেসে বেড়ায় সাদা কালো মেঘ, কখনো আবার আবছায়া। প্রকৃতির এমন খেলায় শরতের আনন্দোৎসব এসে জানিয়ে গেল, আমাদের সামনের দিনগুলো আলোকময়।’

বাংলার ঋতু বৈচিত্র্য বাঙালির মনে ‘অসাম্প্রদায়িক চেতনার জন্ম দিয়েছে’ বলে মন্তব্য করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য।

এ সময় শরৎ উৎসবের তাৎপর্য নিয়ে কথা বলেন সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠীর নিগার চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মানজার চৌধুরী ?সুইট। এর আগে শিল্পী নুরুল হকের সন্তুরে রাগ পরিবেশনায় শুরু হয় সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠীর শরৎ উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।

পরে একক সংগীত পর্বে মহাদেব ঘোষ গেয়ে শোনান রবীন্দ্র সংগীত ‘অমল ধবল পালে’। পরে শিল্পী অনিমা রায় শোনান রবীন্দ্র সংগীত ‘আমার রাত পোহালো ও দেখো দেখো সুখতারা’, সুমনা মজুমদার শোনান নজরুল সংগীত ‘ভোরের ঝিলের জলে শালুক পদ্ম তোলে’, সঞ্জয় কবিরাজ শোনান নজরুল সংগীত ‘শিউলি ফুল দোলে’, বিমান চন্দ্র বিশ্বাস শোনান ‘ও আকাশ বল আমারে’। একক আবৃত্তি পর্বে নায়লা তারান্নুম চৌধুরী কাকলী শোনান কাজী নজরুল ইসলামের ‘বাংলাদেশ নম নম নম’।

দলীয় নৃত্য পর্বে সালমা মুন্নির পরিচালনায় দলীয় নৃত্য পরিবেশন করে নৃত্যাক্ষ, অনিক বসুর পরিচালনায় নৃত্য পরিবেশন করে স্পন্দন, নাঈম হাসান সুজার পরিচালনায় নৃত্যজন, ফারহানা চৌধুরী বেবীর পরিচালনায় বাফা দলীয় নৃত্য পরিবেশনা করে।

দলীয় সঙ্গীত পর্বে রবীন্দ্র সংগীত ‘মেঘের কোলে রোদ হেসেছে’, সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠী শোনায় নজরুল সংগীত ‘আজি শারদ প্রাতে’, ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠী শোনায় ‘আজও আছে একতারা আর নকশি কাঁথার মাঠ’, বহ্নিশিখা শোনায় ‘বিশ্ব সাথে জেগে যেথায় বিহারো’। পশ্চিমবঙ্গের হালিশহর থেকে আগত ‘ছন্দে ছন্দে’ নৃত্য দলের বিশেষ পরিবেশনাও ছিল এই শরৎ উৎসবে

এদিন বিকালের পর্বে সংগীত পরিবেশন করবেন স্বভূমি লেখক শিল্পী কেন্দ্র, গীত শতদল, সমন্বয়, পঞ্চভাস্বর, উজান। দলীয় আবৃত্তি পরিবেশন করবে কণ্ঠশীলন, ঢাকা স্বরকল্পন ও কল্পরেখা। এ ছাড়াও দলীয় নৃত্য পরিবেশন করে আঙ্গীকাম, নটরাজ, স্বপ্ন বিকাশ কলা কেন্দ্র, ঘাসফুল নদী শিল্পী গোষ্ঠী। একক সংগীত ও একক আবৃত্তিও সেখানে পরিবেশন করা হয়।

 

"