অবশেষে সেই আজাহার পাচ্ছেন ইটের বাড়ি

প্রকাশ : ০৮ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

নওগাঁ প্রতিনিধি

নওগাঁর সেই স্বেচ্ছাসেবক ট্রাফিক আজাহার পেলেন পাকা বাড়ি। জেলা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে একটি বাড়ি তৈরি করে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া জেলা পুলিশের রেশন থেকে প্রতি মাসে তাকে সহযোগিতা করাও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। গত শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নওগাঁ পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন। সেই সঙ্গে তাকে জেলা কমান্ড্যান্ট আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর পক্ষ থেকে একটি বাইসাইকেল দেওয়া হবে বলেও জানা যায়। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় আজাহারকে নিয়ে খবর প্রকাশ করা হয়। এসব খবর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হলে প্রশাসনের উচ্চ মহলের নজরে আসে। আজাহার আলী বলেন, এসপি স্যার (পুলিশ সুপার) যে সহযোগিতা করার উদ্যোগ নিয়েছেন তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো না। আশা করছি পরিবার-পরিজন নিয়ে একটু মাথা গোজার ঠাঁই হবে। আর আমাকে নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে যেভাবে তুলে ধরা হয়েছে সাংবাদিককের প্রতি এজন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ইব্রাহিম আলী মন্ডল বাবু বলেন, ফেরি ঘাটে ট্রাফিক সেবা দিয়ে আজাহারের জীবন জীবিকা চলে। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে বাড়ি করে দেওয়া হবে বলে শুনছি। যা খুবই ভালো উদ্যোগ। মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মাহবুব আলম বলেন, এসপি স্যার নিজেই আজাহারকে বাড়ি তৈরি করে দেওয়ার জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন। আগামী দুই-একদিনের মধ্যেই দুই ঘর বিশিষ্ট বাড়ি নির্মাণকাজ শুরু করা সম্ভব হবে।

জেলা কমান্ড্যান্ট আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রধান অমøান জ্যোতি নাগ বলেন, আনসার ভিডিপি থেকে আজাহার আলী প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন। আমরা তাকে একটি বাইসাইকেল দেওয়ার জন্য মনস্থির করেছি। নওগাঁর পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন বলেন, স্বেচ্ছায় ট্রাফিকের সেবা দিয়ে মহৎ কাজ করেছেন আজাহার আলী। মহৎ কাজে পুলিশ সব সময় সহযোগিতা করবে। তার জন্য একটি ইটের বাড়ি তৈরি করে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে আরো সহযোগিতা করা হবে।

উল্লেখ্য, জেলার মহাদেবপুর উপজেলা প্রবেশ মুখে ব্রিজের ওপর আজাহারের চোখের সামনেই একটি দুর্ঘটনায় মা-মেয়ে মারা যায়। ঘটনাটি তার বিবেককে নাড়া দেয়। সেই থেকে আজাহার আলী ট্রাফিকের ভূমিকা পালন করছেন। নওগাঁর মান্দা ফেরিঘাটে, নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কে চৌরাস্তা ও মহাদেবপুর উপজেলায় স্বেচ্ছাসেবী ট্রাফিক আজাহার ২০ বছর ধরে স্বেচ্ছাশ্রমে ট্রাফিক সেবা দিয়ে আসছেন। ওই সময় ইউএনও অফিস ও থানা থেকে যে আর্থিক সহযোগিতা তাকে দেওয়া হতো তা ছিল যৎসামান্য। আজাহার আলী মন্ডলের বাড়ি নওগাঁর মান্দা উপজেলার ভালাইন ইউনিয়নের লক্ষ্মীরামপুর গ্রামে।

"