‘এখন দুর্নীতিবাজও বার্নার্ড রাসেলের মতো বক্তব্য দেন’

প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘এম এন লারমা ছিলেন অত্যন্ত সজ্জন, সৎ ও অকপট মানুষ। তিনি যা বিশ্বাস করতেন, সেইভাবেই কাজ করতেন। বর্তমানে এই সমাজে বিশ্বাসের সঙ্গে কর্মের সম্পর্ক নেই। একজন প্রচন্ড ঘুষখোর, অত্যন্ত দুর্নীতিবাজও বক্তব্য দিচ্ছেন মানবতাবাদী বার্নার্ড রাসেলের মতো, রবীন্দ্রনাথের মতো।’ কথাগুলো বলছিলেন গবেষক ও লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদ। পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সাংসদ মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার (এম এন লারমা) জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি। এম এন লারমার ৭৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল শনিবার রাজধানীর বাংলামোটরে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

সভায় বক্তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বর্তমানে সংকটময় সময় অতিক্রম করছে। শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন না করে পার্বত্য অঞ্চলকে বিপন্ন হওয়ার পথে ঠেলা দেওয়া হচ্ছে। সেখানে এখনো রক্ত ঝরছে। শুধু পাহাড় নয়, সমতলের ক্ষুদ্র জাতিসত্তার মানুষরাও এখন চরম অস্তিত্বের সংকটে।

ঐক্য ন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম একটি সংকটময় সময় অতিক্রম করছে। খুনখারাবি, ধর্ষণ এবং বিচারহীনতার চূড়ান্ত অবস্থায় মনে হয় পার্বত্য চট্টগ্রামে একটা দায়মুক্তির সমাজ তৈরি করা হচ্ছে।

শুধু পার্বত্য চট্টগ্রাম নয়, সমতলের ক্ষুদ্র জাতিসত্তার মানুষও অস্তিত্বের চরম সংকটময় অবস্থায় উপনীত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহসভাপতি সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার। তিনি বলেন, বাংলাদেশে যদি সত্যিকারভাবে গণতান্ত্রিক ও প্রগতিশীল আন্দোলন সুসংগঠিত হতে পারত, তাহলে আজকে পাহাড়ের বা সমতলের ক্ষুদ্র জাতিসত্তার মানুষদের চরম সংকটে উপনীত হতে হতো না। সেখানে বাইরে মনে হয় কিছুই না, কিন্তু ভেতরে- ভেতরে আতঙ্ক, নিরাপত্তাহীনতা, অসহায়ত্ব চরমভাবে বিরাজ করছে।

সভায় ‘তরুণ প্রজন্মের ভাবনায় এম এন লারমা’ শীর্ষক প্রবন্ধ পড়েন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সতেজ চাকমা। আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রংয়ের সভাপতিত্বে আলোচনায় আরো বক্তব্য দেন প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক খায়রুল চৌধুরী, এএলআরডির নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা প্রমুখ।

"