জমি ক্রয়-বিক্রয়

বান্দরবানে রাজার সনদ প্রথা বাতিলের দাবি

‘ভর্তি, চাকরি ও জমি ক্রয়ে বোমাং রাজার সনদপত্র সংগ্রহ করতে বাঙালিদের অতিরিক্ত টাকা দিতে হয়’

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

বান্দরবান প্রতিনিধি

বান্দরবানে জমি ক্রয়-বিক্রয়ে বোমাং সার্কেল চিফ মার্মা সম্প্রদায়ের রাজার দেওয়া সনদপত্র প্রথা বাতিল এবং ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মানুষের আদিবাসী স্বীকৃতি আদায়ের চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি হয়েছে।

গতকাল রোববার সকালে বান্দরবান প্রেস ক্লাবের সামনে পার্বত্য নাগরিক পরিষদ ও বাঙালি ছাত্র পরিষদের আয়োজনে এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি হয়। এ সময় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সভাপতি মো. মিজানুর রহমান, নাগরিক পরিষদের আহবায়ক মো. আতিকুর রহমান, বাঙালি ছাত্র পরিষদের সাবেক সভাপতি কামরান ফারুক ও এইচ এম সম্রাট।

বক্তারা বলেন, বোমাং রাজা বিভিন্নভাবে বাঙালিদের হয়রানি করছেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি, চাকরি, জমি ক্রয়ের ক্ষেত্রে বোমাং রাজার সনদপত্র বাধ্যতামুলক করা হলেও সনদপত্র সংগ্রহ করতে বাঙালিদের অতিরিক্ত টাকা দিতে হচ্ছে এবং নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছে সাধারণ জনগণ। এ সময় বক্তারা আরো বলেন, বান্দরবানে বর্তমানে বোমাং রাজার কারণে হেডম্যানরা জমির প্রতিবেদন প্রদানের নামে জমি বিক্রয় থেকে ৫ শতাংশ টাকা আদায় করছে এবং টাকা না দিলে হেডম্যান প্রতিবেদন দেন না। তারা আরো বলেন, একই দেশে দুটি আইন হতে পারে না।

বাংলাদেশের কোথাও স্থায়ী বাসিন্দার জন্য রাজার সনদ নিতে হয় না শুধুমাত্র পার্বত্য এলাকায় এ আইন বৈষম্যমূলক। তাই সংবিধান পরিপন্থি এ প্রথা বাতিলের দাবি জানান তারা। মানববন্ধন শেষে একটি প্রতিবাদ মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়, পরে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নেওয়া সকলে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে একটি স্মারকলিপি দেন।

"