প্রথম কলাম

নৌ-চালনায় নারীদের চেয়ে পুরুষরা...

প্রকাশ : ১২ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

নৌ-পরিচালনা ও সাগরে দিকনির্দেশনার ক্ষেত্রে নারীদের চেয়ে পুরুষরা অনেক বেশি দক্ষ বলে জানিয়েছে সাম্প্রতিক এক গবেষণা। কিন্তু নারীদের তুলনায় পুরুষরা কেন বেশি পারদর্শী? এ প্রশ্নের জবাব খুঁজতে এক গবেষণা চালানোর পর ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের বিজ্ঞানীরা বলছেন, পুরুষের এই পারঙ্গমতার পেছনে তাদের কোনো সহজাত গুণের ব্যাপার নেই। বরং বহুযুগ ধরে নারী-পুরুষের মধ্যে সমাজে যে বৈষম্য চলছে-এটিকে তারই ফল বলে ব্যাখ্যা করছেন বিজ্ঞানীরা। বিবিসি গতকাল এ কথা জানায়।

ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিভ্রষ্ট হয়ে যাওয়া রোগ নিয়ে গবেষণা করছিল একদল বিজ্ঞানী। গবেষণার অংশ হিসেবে বানানো হয়েছিল ‘সি হিরো কোয়েস্ট’ নামে একটি কম্পিউটার গেম।

এটি ছিল একজন বুড়ো নাবিক, যে তার স্মৃতি ভুলে গেছে, তাকে বাঁচানোর খেলা। সেই নাবিককে বাঁচাতে হলে স্মার্টফোনের স্ক্রিনে স্পর্শ করে-করে শূন্য দ্বীপ আর বরফে ছাওয়া সমুদ্রের একটা চার্ট তৈরি করতে হতো খেলোয়াড়দের। এ খেলায় অংশগ্রহণকারীদের দিক-চেনার ক্ষমতা আর নৌ-চালনার কলাকৌশলবিষয়ক তথ্যগুলো গোপনে রেকর্ড করা হচ্ছিল। রেকর্ড করা তথ্যগুলো বিশ্লেষণ করে প্রথমেই জানা গেল, নারীদের চেয়ে পুরুষরা নৌ-চালনায় অনেক বেশি দক্ষ।

কিন্তু পুরুষরা কেন বেশি দক্ষ? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গবেষকরা তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করতে গিয়ে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম্স জেন্ডার গ্যাপ ইন্ডেক্স বা বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের লিঙ্গবৈষম্যবিষয়ক সূচকের তথ্যগুলোকেও পর্যালোচনা করেন। সব তথ্য পর্যালোচনা শেষে গবেষকরা সিদ্ধান্তে উপনীত হন, পুরুষদের পারঙ্গমতার পেছনে সামাজিক বৈষম্যই মূল কারণ। গবেষকরা দেখান, যেসব দেশে নারী-পুরুষের মধ্যে বৈষম্য কমÑসেসব দেশে নেভিগেশনের ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের দক্ষতার পার্থক্যও কম ধরা পড়েছে। কিন্তু যেসব দেশে নারী ও পুরুষের ফারাক যত বেশি, সেসব দেশে নেভিগেশনে পুরুষদের তুলনায় নারীরা অনেক পিছিয়ে।

"