বরিশাল-ঝালকাঠি রুটে বাস চলাচল শুরু

টানা ৯ দিন ভুক্তে হয়েছে যাত্রীদের

প্রকাশ : ১১ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

বরিশাল প্রতিনিধি

বরিশাল-ঝালকাঠি রুটে গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে ফের সরাসরি বাস চলাচল শুরু হয়েছে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১১টি রুটে ঝালকাঠি সমিতির বাস চলতে দেওয়ার শর্তে বরিশালের বাস পশ্চিমাঞ্চলীয় রুটে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঝালকাঠি বাস-মিনিবাস মালিক সমিতি কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়। আর তাই রায়াপুরের অস্থায়ী বাস টার্মিনাল থেকে ঝালকাঠি সমিতির বাস রাতেই বরিশাল নগরীর রূপাতলী বাস টার্মিনালে নিয়ে আসা হয়েছে। অবশ্য বাস চলাচলে পূর্বের ন্যায় বাধা সৃষ্টি হলে বরিশালের বাস পুনরায় ঝালকাঠিতে প্রবেশ বন্ধ করে দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন ঝালকাঠি সমিতির যুগ্ম সম্পাদক ও সড়কে হিস্যা দাবি আন্দোলনের আহ্বায়ক মো. নাসির উদ্দিন।

এর আগে বরিশাল-পটুয়াখালী রুটের ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলাধীন ৮ কিলোমিটার সড়কের ন্যায্য হিস্যার

দাবিতে আন্দোলনে নামে ঝালকাঠি মিনিবাস মালিক সমিতি। পাশাপাশি বরিশাল থেকে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন রুটে ঝালকাঠি সমিতির বাস চলাচলের দাবি জানান তারা। কিন্তু বরিশাল সমিতি তাদের সেই দাবি মেনে না নেওয়ায় বরিশালের বাস ঝালকাঠি জেলায় প্রবেশ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এমনকি ঝালকাঠি সমিতি নগরী থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে রায়াপুর নামক স্থানে জমি ক্রয় করে অস্থায়ী বাস টার্মিনাল নির্মাণ করে। সেখান থেকেই ঝালকাঠি সমিতির বাস খুলনা, পিরোজপুরসহ বিভিন্ন রুটে চলাচল করে আসছিল। তবে তাদের বাস বরিশাল নগরীতে প্রবেশ করত না। আবার বরিশালের বাস ঝালকাঠির উদ্দেশে ছেড়ে গেলে তাও রায়াপুর থেকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

এদিকে, দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসা ঝালকাঠি ও পটুয়াখালী সমিতির হিস্যা দ্বন্দ্ব নিরসনে জেলা ও বিভাগীয় প্রশাসনের মধ্যস্ততায় দফায় দফায় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে সমঝোতাও হয়। কিন্তু বরিশাল সমিতির অসহযোগিতায় তা বাস্তবায়ন হচ্ছিল না। সর্বশেষ ২৪ জুন বরিশাল ও ঝালকাঠি জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এবং বিভাগীয় প্রশাসনের মধ্যস্থতায় বরিশাল সার্কিট হাউসে বিভাগীয় কমিশনার ও ডিআইজির উপস্থিতিতে বরিশাল-ঝালকাঠি সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দের সমঝোতা বৈঠক হয়।

ওই বৈঠকে বরিশাল নগরীর রূপাতলী বাস টার্মিনাল থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১১টি রুটে ঝালকাঠি সমিতির বাস চলাচলের সিদ্ধান্ত হয়। যার মধ্যে বরিশাল থেকে কুয়াকাটা, পটুয়াখালী, বরগুনা, বাউফল, লেবুখালী ও নেয়ামতিসহ পশ্চিমাঞ্চলের আরো ৫টি রুটে ঝালকাঠির বাস চলাচলের সিদ্ধান্ত মেনে নেয় বরিশাল-পটুয়াখালী মিনিবাস মালিক সমিতি। আর তাই ২৫ জুন পুনরায় বরিশাল-ঝালকাঠি-খুলনাসহ অভ্যন্তরীণ ৭টি রুটে বরিশালের বাস সরাসরি চলাচল শুরু করে। কিন্তু এর দেড় মাসের মাথায় এসে গত ১ আগস্ট থেকে পুনরায় বরিশালের বাস ঝালকাঠি সড়কে প্রবেশ বন্ধ করে দেওয়া হয়। ঝালকাঠি সমিতি পূর্বের মতো করেই বরিশাল নগরী থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে অস্থায়ী বাস টার্মিনাল থেকে পশ্চিমঞ্চলীয় রুটে যাত্রীবাহী বাস পরিচালনা করে আসছিল। এর ফলে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত টানা ৯ দিন সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়তে হয় পশ্চিমাঞ্চলীয় রুটের বাস যাত্রীদের।

ঝালকাঠি সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সড়কের হিস্যা আন্দোলন বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক নাসির উদ্দিন জানান, বিভাগীয় কমিশনারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আমাদের ৭টি বাস দক্ষিণাঞ্চলে চলাচলের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বরিশাল জেলা বাস, মিনিবাস, কোচ, মাক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ বলেন, সন্ধ্যায় বরিশাল সিমিতির নেতৃবৃন্দ ঝালকাঠি সমিতিতে গিয়েছিল। সেখানে তারা দক্ষিণাঞ্চলের ৭টি রুটে ঝালকাঠি সমিতির বাস চলাচল করতে দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন। বরিশাল-পটুয়াখালী বাস মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি আজিজুর রহমান শাহীন বলেন, আমরা ঝালকাঠি সমিতিতে গিয়েছিলাম। সামনে ঈদুল আজহা। এর মধ্যে বহু মানুষ বরিশালে আসবে। তাদের নির্বিঘœ সেবা দেওয়ার জন্যই আমরা উদ্যোগ নিয়ে ঝালকাঠি গিয়েছি। সেখানে নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। তাদের বাস যাতে দক্ষিণাঞ্চলের ৭ রুটে নিয়মিত চলাচল করতে পারে সে জন্য আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি। পটুয়াখালী-বরগুনা সমিতির বাসের সঙ্গে আমরা সমঝোতা করেই শুক্রবার থেকে পুনরায় বাস চলাচল শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

 

"