বিবিসির প্রতিবেদন

ঢাকায় কেন রবীন্দ্রনাথের নামে উর্দু চেয়ার?

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উর্দু ভাষার জন্য রবীন্দ্রনাথের নামাঙ্কিত একটি চেয়ার বা বিশেষ অধ্যাপকের পদ চালুর ঘোষণা করে তীব্র সমালোচনার মুখে ভারত সরকার সেটির নাম পাল্টানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। উর্দু ভাষার চেয়ার কেন রবীন্দ্রনাথের নাম হবে এবং তাও আবার বাংলাদেশের মতো দেশে, ভারতে অনেকেই ইতোমধ্যে সে প্রশ্ন তুলেছেন। ভারত সরকারের যে সংস্থাটি এই চেয়ার স্পনসর করছে, সেই আইসিসিআরের প্রধান অবশ্য বিবিসিকে জানিয়েছেন, শুরুতে ‘অন্য কোনো নাম পাওয়া যায়নি বলেই’ রবীন্দ্রনাথের কথা বলা হয়েছিল - কিন্তু এখন তারা ওই চেয়ারের জন্য বিকল্প নামের কথা ভাবছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যও জানান, তারা ওই পদটি তৈরির অনুরোধ করে থাকলেও নামকরণ নিয়ে তাদের কোনো প্রস্তাব ছিল না।

মাস চারেক আগে ভারতের বর্তমান পররাষ্ট্র সচিব বিজয় কেশব গোখলে যখন তার প্রথম ঢাকা সফরে যান, সে সময়ই ভারত সরকারের সংস্থা আইসিসিআর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে স্বাক্ষরিত হয়েছিল একটি সমঝোতাপত্র। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তখনই বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছিল, ওই সমঝোতা অনুসারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উর্দু ভাষার জন্য চালু হবে একটি ‘আইসিসিআর রবীন্দ্র চেয়ার’। কিন্তু যে রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে উর্দুর দূরতম সম্পর্কও নেই, ভারত সরকার কেন তার নামে উর্দু চেয়ার চালু করবে, কিছুদিন বাদেই এই প্রশ্ন তোলেন হিন্দু সংহতি নামে ভারতে একটি হিন্দু গোষ্ঠীর নেতা তপন ঘোষ। দিল্লির একটি সর্বভারতীয় দৈনিকেও কলাম লিখে এই সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানান প্রাবন্ধিক ও গবেষক প্রিয়দর্শী দত্ত।

তিনি বিবিসিকে বলেছিলেন, ‘রবীন্দ্রনাথ তো উর্দু নিয়ে কোনো দিন কিছু লেখেননি। তা ছাড়া সাবেক পূর্বপাকিস্তানে তো রবীন্দ্রনাথের ওপর উর্দু শাসকদের একরকম নিষেধাজ্ঞাই ছিল, বিশেষ করে আইয়ুব খানের আমলে। তা সত্ত্বেও সে দেশের মানুষ কিন্তু রাওয়ালপিন্ডির রক্তচক্ষু উপেক্ষা করেই ১৯৬১-তে রবীন্দ্রনাথের জন্মশতবর্ষ পালন করেছিলেন।’

"