অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে আমার সম্পর্ক রোমান্টিক সংগ্রামের : পামেলা

প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

সাড়া জাগানো বিকল্প সংবাদমাধ্যম উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে নিজের সম্পর্কের বিষয়ে কথা বলেছেন প্রাপ্তবয়স্কদের ম্যাগাজিন প্লেবয়-এর সাবেক মডেল পামেলা অ্যান্ডারসন। গত রোববার রাতে ফক্স নিউজে প্রচারিত ‘অবজেকটিফাইড’ অনুষ্ঠানের উপস্থাপক হার্ভে লেভিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এসব বিষয়ে বলেছেন জনপ্রিয় টিভি সিরিজ ‘বেওয়াচ’ তারকা পামেলা। লাখ লাখ গোপন নথি ফাঁস করে যুক্তরাষ্ট্রের তোপের মুখে থাকা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ বর্তমানে লন্ডনে ইকুয়েডর দূতাবাসে অবস্থান করছেন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে কিছুদিন ধরে তার সঙ্গে পামেলার প্রেমের গুঞ্জনের খবর মিলেছে। চলতি বছরের মার্চে ইকুয়েডর দর্শনার্থীদের সঙ্গে অ্যাসাঞ্জের সাক্ষাৎ বন্ধ করে দেওয়ার আগে বেশ কয়েকবারই তার সঙ্গে দেখা করেছেন পামেলা। ‘অবজেকটিফাইড’ অনুষ্ঠানে অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে দীর্ঘ গভীর আলাপ আর তাদের সম্মিলিত ভবিষ্যতের স্বপ্নের কথা জানিয়েছেন পামেলা। তিনি বলেছেন, অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে তার সম্পর্কটি আসলে রোমান্টিক সংগ্রামের।

ফক্স নিউজকে অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে পামেলা বলেন, অবশ্যই তিনি একজন চমৎকার মানুষ আর তার সঙ্গে নিশ্চিতভাবেই আমার রোমান্টিক ধারার সম্পর্ক রয়েছে। কারণ ‘এটা একটা রোমান্টিক সংগ্রাম’। পামেলা বলেন, ‘আমাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। তিনি আমার ক্ষেত্রে যতটা কাছের মানুষ, অন্য মানুষের ক্ষেত্রে তেমন না।’ অ্যাসাঞ্জকে অপূর্ণ আর নিজের একজন প্রিয় ব্যক্তি উল্লেখ করে পামেলা বলেন, ‘আমার আসলেই তার সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক রয়েছে।’ পামেলা বলেন, ‘কীভাবে আরো কার্যকর একজন অ্যাকটিভিস্ট হয়ে ওঠা যায়’ তা জানতে আসলেই তিনি তার সঙ্গে দেখা করেছিলেন।

একসঙ্গে তারা এই পৃথিবীকে আরো সুন্দর করে গড়ে তুলতে চান বলেও জানান পামেলা। ফক্স নিউজকে তিনি বলেন, ‘আমরা সম্মিলিত প্রচেষ্টা নিয়েছি, যেন অ্যাকটিভিস্ট হিসেবে মানুষ নিজেদের ক্যারিয়ার গড়তে সক্ষম হয়। আমরা প্রতি বছর পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তের ১০ জন অ্যাকটিভিস্টকে নির্বাচন করার পরিকল্পনা নিয়েছি, যাদেরকে ১০ বছর তাদের কাজের বেতন দেব বলে ঠিক করেছি। বিষয়টি খুব বৈচিত্র্যপূর্ণ হবে।’

এর আগে ফক্স নিউজের খবরে জানানো হয়েছিল, ২০১২ সাল থেকে লন্ডনে ইকুয়েডর দূতাবাসে অবস্থান করা অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে পামেলা বেশ কয়েকবারই দেখা করেছেন। ওই বিষয়ে তিনি ফক্স নিউজকে বলেন, ‘আমি তার জন্য কিছু নিরামিষ খাবার দিয়েছিলাম। আর আমি পরে যতবারই গিয়েছি ততবারই তাকে নিরামিষ খাবার দিয়ে এসেছি। এটা যেন ঐতিহ্য হয়ে দাঁড়িয়েছিল। তার সঙ্গে অনেকবারই সাক্ষাৎ করেছি।’

যা কিছু জীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত, তার সব কিছু নিয়েই অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পামেলা। বাইবেল থেকে শুরু করে প্রাণী অধিকার সবই এর আওতায়। শেষবার সাক্ষাতের সময়ে অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে ‘ঈর্ষা’ নিয়ে কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। চলতি বছরের মার্চে ইকুয়েডর অ্যাসাঞ্জকে দর্শনার্থীদের সঙ্গে সাক্ষাতের সুবিধা দিতে অস্বীকার করে আর বন্ধ করে দেওয়া হয় তার ইন্টারনেট সংযোগ। সেই সময়ে পামেলা দ্য নিউইয়র্ক পোস্টকে বলেছিলেন, অ্যাসাঞ্জের স্বাস্থ্য ও কুশল নিয়ে তিনি গভীর উদ্বিগ্ন। বলেছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের হাতে ধীর ও যন্ত্রণাদায়ক মৃত্যুর দিকে ধাবিত হচ্ছেন অ্যাসাঞ্জ। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এখন নিশ্চিত বলে দাবি করছে, ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময়ে রাশিয়ান গোয়েন্দা সংস্থার সমন্বয়ে উইকিলিকস ডেমোক্র্যাটিক ন্যাশনাল কমিটির হ্যাক করা ই-মেইল প্রকাশ করে দেয়। ২০১৭ সালের এপ্রিলে অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনস সাংবাদিকদের বলেছিলেন, বিচার বিভাগের কাছে অ্যাসাঞ্জ অগ্রাধিকার পাওয়া ব্যক্তি।

২০১২ সাল থেকে লন্ডনে ইকুয়েডর দূতাবাসে অবস্থান করছেন। ইকুয়েডর অচিরেই জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে দেওয়া রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করতে পারে বলে গত মাসেই আভাস দেয় কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম। যুক্তরাজ্যের লন্ডনে অবস্থিত সে দেশের দূতাবাসে অবস্থানরত উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাসাঞ্জকে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দিতে ইকুয়েডর ও যুক্তরাজ্যের সমঝোতার খবর দেয় মার্কিন সংবাদমাধ্যম ইন্টারসেপ্ট। তবে এখনো সেই প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন হয়নি।

"