জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের জীবনে ফের অনিশ্চয়তা

প্রকাশ : ২৩ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করতে পারে ইকুয়েডর। বিবিসি গতকাল রোববার জানায়, সম্ভবত আগামী সপ্তাহেই লন্ডনের দূতাবাস থেকে যুক্তরাজ্যের কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হতে পারে অ্যাসাঞ্জকে। বিশ্লেষকরা বলেছেন, এতে তার জীবন নিরাপত্তাহীন হবে। তার জীবনে দেখা দেবে অনিশ্চয়তা।

৪৭ বছর বয়সী অ্যাসাঞ্জ যৌন হয়রানি ও ধর্ষণের অভিযোগে সুইডেন কর্তৃপক্ষের জিজ্ঞাসাবাদ এড়াতে ২০১২ সাল থেকে লন্ডনে অবস্থিত ইকুয়েডর দূতাবাসে আশ্রিত আছেন। সুইডেন তার বিরুদ্ধে আনা ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিলেও চেলসি ম্যানিংয়ের মাধ্যমে উইকিলিকসে ফাঁস করে দেওয়া গোপন নথির কারণে যুক্তরাষ্ট্র তাকে গ্রেফতার করতে পারেÑ এমন আশঙ্কায় অ্যাসাঞ্জ দূতাবাস ছাড়তে অস্বীকৃতি জানান। অ্যাসাঞ্জকে আশ্রয়ে রাখার ব্যাপারে ইকুয়েডর কয়েক মাস ধরে অনাগ্রহ দেখাচ্ছে। গত মার্চে অ্যাসাঞ্জকে দূতাবাস থেকে ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে ইকুয়েডর।

মে মাসে ইকুয়েডরের নির্বাচনের পর থেকে অ্যাসাঞ্জের ব্যাপারে দেশটি কঠোর অবস্থান অবলম্বন করে। ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট লেনিন মোরেনো তাকে একজন ‘হ্যাকার’ ও ‘উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া সমস্যা’ বলে উল্লেখ করেন। গত সপ্তাহে টাইমস অব লন্ডনের এক রিপোর্টে বলা হয়, কয়েকজন ব্রিটিশ মন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র দফতরের শীর্ষ কর্মকর্তা

অ্যাসাঞ্জের ভাগ্য নির্ধারণ বিষয়ক বৈঠক করছেন। একটি অসমর্থিত সূত্রের বরাত দিয়ে রাশিয়ান নিউজ আউটলেট আরটি জানায়, অ্যাসাঞ্জকে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দিতে ইকুয়েডর প্রস্তুত।

ইকুয়েডরের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও প্রেসিডেন্ট ভবনের বরাত দিয়ে একটি রিপোর্টে বলা হয়, অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাজ্যের হাতে তুলে দেওয়ার ব্যাপারে এ সপ্তাহেই দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা হয়ে যেতে পারে। ১৯৭১ সালের ৩ জুলাই অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে জন্ম নেওয়া জুলিয়ান পল অ্যাস্যাঞ্জ একজন প্রোগ্রামার, যিনি উকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে এবং গোপন নথি ফাঁস করে বহুল আলোচিত ও সমালোচিত।

"