প্রধানমন্ত্রীর বইয়ের দাম বাড়িয়ে অর্থ আত্মসাতের চেষ্টা!

প্রকাশ : ২০ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

খুলনা ব্যুরো

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘নির্বাচিত ১০০ ভাষণ’ নামের ‘বই’ কেনার জন্য খুলনা সিটি করপোরেশনের (কেসিসি) প্রধান সহকারীর বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগ মিলেছে। তিনি এই বইয়ের দাম বেশি দেখিয়ে টাকা আত্মসাৎ করতে চেয়েছিলেন। এ কারণে মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনি ওই প্রধান সহকারী মীর রেফাকতকে পদ থেকে বদলি করে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।

কেসিসির সূত্র জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘নির্বাচিত ১০০ ভাষণ’ সংকলনের বই কেসিসিতে সংগ্রহের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মুহাম্মদ ইকবাল হুসাইন লিখিতভাবে কেসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। সে মোতাবেক ৫টি বই সংগ্রহের জন্য কেসিসির প্রধান সহকারী মীর রেফাকত আলী ৫টি বইয়ের মূল্য বাবদ ২০ হাজার এবং ভ্যাট বাবদ ৩ হাজার টাকাসহ মোট ২৩ হাজার টাকা প্রশাসনিক শাখার সহকারী মো. নাঈমুজ্জামানকে অগ্রিম প্রদান করার জন্য একাউন্টস অফিসারকে নথি ইস্যু করেন। কিন্তু ৫টি বইয়ের দাম অস্বাভাবিক মনে হওয়ায় প্রকৃত বাজার মূল্য যাচাই-বাছাই করতে বলা হয়। বাজারে প্রতিটি বইয়ের দাম ৭৫০ টাকা এবং শতকরা ৫ ভাগ কমিশন হারে প্রত্যেক বইয়ের মূল্য আসে ৭১২টাকা। ৫টি বইয়ের প্রকৃত মূল্য আসে ৩ হাজার ৫৬২ টাকা। কিন্তু কেসিসির প্রধান সহকারী মীর রেফাকত আলী এই ৫টি বই কেনার জন্য অতিরিক্ত ১৯ হাজার ৪৩৮ টাকা আত্মসাৎ করার জন্য অস্বাভাবিক মূল্য প্রস্তাব করেছেন।

মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বিষয়টি আমলে নিয়ে কেসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকতা পলাশ কান্তি বালাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলেন। কিন্তু তিনি বিদেশে থাকার কারণে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। গত বুধবার পলাশ কান্তি বালা এই অর্থ আত্মসাতের চেষ্টার বিরুদ্ধে দরকারি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ভারপ্রাপ্ত সচিব আবদুর রহমানকে নির্দেশ দিয়েছেন। এ দিকে, বিষয়টি জানাজানি হলে গত বুধবার বিকেলে ওই ফাইল দখলে নেওয়ার জন্য অভিযুক্ত প্রধান সহকারী মীর রেফাকাত আলী দৌড় ঝাপ শুরু করেন। সাধারণ শাখায় কর্মরতদের অফিসিয়াল কাজে ব্যবহার না করে ওই নথি খোঁজার কাজে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে তাকে।

"