ডিসেম্বরেই ই-পাসপোর্ট

প্রকাশ : ১৩ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই ই-পাসপোর্ট হাতে পাবেন গ্রাহকরা। এর ফলে পাসপোর্টে তথ্য জালিয়াতি শূন্যে নেমে আসার সম্ভাবনা দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। এ ছাড়াও ই-পাসপোর্টে সহজ হবে ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়াও। প্রাথমিকভাবে জার্মানির একটি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করতে যাচ্ছে সরকার। মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট বা এমআরপির পর আসছে ই-পাসপোর্ট। সর্বাধুনিক এই পাসপোর্ট ব্যবহারকারী বিশ্বের ১১৯তম দেশ হিসেবে শিগগিরই নাম লেখাতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ই-পাসপোর্টে একটি চিপ থাকবে যেখানে ১০ আঙুলের ছাপসহ গ্রাহকের সব তথ্য থাকবে। এই তথ্য কখনোই বদলানো যাবে না। আবেদন প্রক্রিয়া হবে এমআরপির মতোই। ই-পাসপোর্টের মেয়াদ হবে ১০ বছর।

ই-পাসপোর্ট তৈরির জন্য ১৯ জুলাই জার্মানির একটি কোম্পানির সঙ্গে প্রায় ৩ হাজার ৪০০ কোটি টাকার চুক্তি করছে সরকার। এর আওতায় প্রাথমিকভাবে ই-পাসপোর্ট তৈরির সরঞ্জামসহ ৫০টি ই-গেট পাওয়া যাবে। এ ছাড়া ৩ কোটি পাসপোর্টের বইসহ আরো বেশ কিছু সুবিধা দেবে জার্মানির কোম্পানি। শুরুতে দেশের ৩টি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এবং বেনাপোল ও বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে ই-পাসপোর্টের গেট থাকবে। অন্যান্য স্থলবন্দরে থাকবে ম্যানুয়াল ই-পাসপোর্ট রিডার।

"