শেষ কার্যদিবসে উপচে পড়া ভিড় ব্যাংকে

প্রকাশ : ১৫ জুন ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা সাপেক্ষে কাল শনিবার অথবা পর দিন রোববার পবিত্র ঈদুল ফিতর। ঈদের আগে গতকাল বৃহস্পতিবার শেষ কার্যদিবস। তাই ঈদকে সামনে রেখে ব্যাংকগুলোতে আজ ছিল গ্রাহকদের উপচে পড়া ভিড়। তবে টাকা উত্তোলনের লাইনই ছিল দীর্ঘ। এদিন রাজধানীর মতিঝিল, দিলকুশা ও পল্টনসহ বিভিন্ন এলাকার ব্যাংকের শাখাগুলোতে এমন চিত্র দেখা গেছে। ব্যাংগুলো খোলা ছিল বিকেলে ৩টা পর্যন্ত।

সোনালী ব্যাংকের মতিঝিল লোকাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার বেগম মাসুমা আক্তার বলেন, ঈদের আগে শেষ কার্যদিবস। তাই ঈদ উপলক্ষে লেনদেন বেড়েছে। সকাল থেকে গ্রাহকের ভিড় ছিল। আমাদের কর্মকর্তারা গ্রাহকদের সেবায় ব্যস্ত সময় পার করেছে।

তিনি বলেন, সোনালী ব্যাংকের লোকাল অফিসে সরকারি-বেসরকারি জাকাতের টাকা নেওয়া হয়। শেষ কর্মদিবসে জাকাতের টাকা বেশি জমা হয়েছে। এ ছাড়া ঈদ উপলক্ষে ব্যবসায়িক ও নিজস্ব প্রয়োজনে টাকা উত্তোলন করে গ্রাহকরা। নগদ টাকার কোনো সমস্যা নেই। গ্রাহকের চাহিদামতো পরিশোধ করা হয়েছে। এ ছাড়াও ঈদে এ টি এম বুথে টাকা উত্তোলনে গ্রাহকদের যেন সমস্যা না হয় সে জন্য প্রর্যাপ্ত নগদ টাকা জমা রাখা হয়েছে। আশা করছি, গ্রাহকের সমস্যা হবে না’, বলেন মাসুমা।

সোনালী ব্যাংকে টাকা তুলতে আসা মাহবুব ইসলাম বলছিলেন, ‘আজকে শেষ কার্যদিবস। তাই ঈদের খরচের জন্য প্রয়োজনীয় টাকা তুলতে এসেছি। শেষদিন তো তাই একটু ভিড় বেশি।’

এদিকে, ব্যাংকের নতুন টাকার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকে লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন শিহাব আহমেদ। তিনি বলেন, ঈদ করতে আজকে গ্রামের বাড়ি যাব। ঈদে সালামি হিসেবে নতুন টাকার বিকল্প নেই। তাই নতুন টাকা তুলতে এসেছি। চাকরির কাজে এতদিন খুব ব্যস্ত ছিলাম, তাই টাকা তুলতে পারিনি। শেষদিন টাকা তুলতে এসেছি।

এনসিসি ব্যাংকের মতিঝিল শাখায় এক কর্মকর্তা জানান, সকাল থেকেই গ্রাহকের দীর্ঘলাইন ছিল। ঈদের আগে এটা শেষ কর্মদিবস, তাই অনেক গ্রাহক টাকা তুলতে ও জমা দিতে আসেন। সকাল থেকেই গ্রাহকের ভিড় ছিল। টাকা জমা দেওয়ার চেয়ে উত্তোলনের পরিমাণ বেশি ছিল।

"