আশুলিয়ায় দেয়ালধসে মা-ছেলের মৃত্যু ২ শ্রমিক আহত

প্রকাশ : ১২ জুন ২০১৮, ০০:০০

আশুলিয়া (ঢাকা) প্রতিনিধি

শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ায় ইট-বালু দিয়ে তৈরি একটি পানির ট্যাংকির দেয়ালধসের ঘটনায় চাপা পড়ে এক শ্রমিক পরিবারের মা ও ছেলের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো দুই শ্রমিক। গত রোববার শেষ রাতে আশুলিয়ার বাংলাবাজার (গুমাইল) এলাকার বাছির উদ্দিন পলানের ছেলে নুরুল হক পলানের শ্রমিক কলোনিতে এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলেন- গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থানাধীন কামালেরপাড়া এলাকার সেলিনা বেগম (৪০) তার প্রথম শ্রেণিতে পড়ুয়া শিশুপুত্র সিয়াম (৯)। সেলিনা তার দুই ছেলে ও ভাইকে নিয়ে আশুলিয়ার বাংলাবাজার এলাকার নুরুল হক পলানের বাড়িতে ভাড়া থেকে হা-মীম গ্রুপের তৈরি পোশাক কারখানায় হেলপারের চাকরি করতেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। আহতরা হলেনÑ পোশাক শ্রমিক সেলিনার বড় ছেলে সেলিম ও তার মামা টুটুল। এদিকে শ্রমিক মারা যাওয়ার খবর শুনে হা-মীম গ্রুপের বাংলাবাজার কারখানার জিএম মাসুদ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ সময় তিনি মৃতদেহের দাফন-কাফন ও গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার সব ব্যয়ভার কারখানার পক্ষ হতে বহনের প্রতিশ্রুতি দেন। এ ছাড়া এ মৃত্যুর খবর শুনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ইয়ারপুর ইউপি সদস্য বকুল হোসেন সরকার এবং মহিলা সংরক্ষিত সদস্য আসমা আক্তার।

প্রত্যক্ষদর্শী আহত সেলিম জানান, রোববার রাতে তার মা সেলিনা, ছোট ভাই সিয়াম, মামা টুটুলকে নিয়ে এক ঘরে শুয়ে ছিল তারা। ভোররাতে বিকট শব্দে তার ঘুম ভেঙে গেলে দেখেন তার মা ও ভাই দেয়ালের চাপায় নিচে পড়ে রয়েছেন এবং মামা টুটুলও চাপা পড়ে চিৎকার করছেন। এ সময় সে প্রতিবেশীদের ডেকে আনলে তারা মা ও ছোট ভাইয়ের মরদেহ উদ্ধার করে এবং মামা টুটুলকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়। অটো চালিয়ে সংসার চালানো সেলিম আরো জানান, তাদের ঘরের দেয়ালঘেঁষে শ্রমিক কলোনির টয়লেট এবং তার ওপর ইট-বালু দিয়ে তৈরি করা বিশাল পানির ট্যাংকি রয়েছে। প্রতিদিন ভোররাতে মোটর দিয়ে ওই ট্যাংকিতে পাঁচ হাজার লিটার পানি ওঠানো হয়। সেই পানি শ্রমিক কলোনির লোকজন ছাড়াও পাশের একটি বাজারে সরবরাহ করা হয়। রোববার রাতে ট্যাংকিতে পানি তোলা হলে ট্যাংকিটি ভেঙে তাদের কক্ষের ওপর পড়লে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বাড়ির মালিকের অবহেলা ও শুধুমাত্র ইট-বালু-সিমেন্ট দিয়ে নির্মাণ করা দুর্বল ট্যাংকিটি পানির লোড নিতে না পারায় এর একপাশের দেয়ালধসে এই হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ ঘটনায় মামলা করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

"