গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের শুনানি আজ

প্রকাশ : ১১ জুন ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর গণশুনানির তারিখে কিছুটা পরিবর্তন করা হয়েছে। আজ সোমবার শুরু হওয়া গণশুনানিতে গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে কোম্পানিগুলো। সার উৎপাদনে সর্বোচ্চ ৩৭২ শতাংশ ও বিদ্যুতে ২০৬ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে বিতরণ কোম্পানিগুলো। আমদানি করা উচ্চমূল্যের এলএনজির কারণে বেড়ে যাচ্ছে গ্যাসের দাম। তার প্রভাবেই এই দরপ্রস্তাব বলে জানা গেছে।

গ্যাসের দাম বেড়ে গেলে বাড়বে বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ। সে কারণে গ্যাসের দামের সঙ্গে বিদ্যুতের দাম বাড়ার সম্ভাবনা তৈরি হবে। শুনানির প্রথম দিন সোমবার বাংলাদেশের একমাত্র রাষ্ট্রীয় গ্যাস সঞ্চালনকারী প্রতিষ্ঠান গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের (জিটিসিএল) সঞ্চালন চার্জ বাড়ানোর ওপর গণশুনানি হবে।

সকাল ১০টায় কারওয়ানবাজারের ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) অডিটরিয়ামে এই গণশুনানি নেওয়া হবে।

গত বছরের মার্চে জিটিসিএলের সঞ্চালন চার্জ বাড়ায় বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। ঘনমিটার প্রতি দশমিক ১৫৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে দশমিক ২৬৫৪ টাকা করা হয়।

আগামীকাল মঙ্গলবার হবে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির গ্রাহক পর্যায়ে দাম বাড়ানোর বিষয়ে গণশুনানি। বৃহৎ এ বিতরণ কোম্পানিটি সার উৎপাদনে সর্বোচ্চ ৩৭২ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। বর্তমানে সার উৎপাদনে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম রয়েছে ২ দশমিক ৭১ টাকা। তিতাস গ্যাস ১২ দশমিক ৮০ টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে।

এরপরই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দর বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে বিদ্যুতে। প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের বর্তমান দর ৩ দশমিক ১৬ টাকা বাড়িয়ে ১০ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ক্যাপটিভ পাওয়ারে ৯ দশমিক ৬২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৬ টাকা, শিল্পে ৭ দশমিক ৭৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৫ টাকা এবং সিএনজির দর ৩২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪০ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

আবাসিকে গ্যাসের দাম বাড়ানোর কোনো প্রস্তাব দেয়নি তিতাস গ্যাস। তিতাস গ্যাসের মতো একই হারে দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে অপর ৪টি বিতরণ কোম্পানিও।

১৯ জুন (বৃহস্পতিবার) কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, ২০ জুন (শুক্রবার) পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানি লিমিটেড, সর্বশেষ ২১ জুন (২১ জুন) জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেড ও সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানি লিমিটেডের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি গ্রহণ করবে বিইআরসি।

গ্যাসের সঞ্চালন ও বিতরণ চার্জ এবং ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের দাম নির্ধারণের ক্ষমতা বিইআরসির ওপর ন্যস্ত। কোম্পানি প্রস্তাব দিলে প্রথমে কমিশনের সভায় যাচাই-বাছাই করে আমলযোগ্য হলে গণশুনানি গ্রহণ করে। সেখানে কোম্পানি ভোক্তাদের যুক্তিতর্ক পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত দেয়। এখানে অংশ নিয়ে যে কারো বক্তব্য দেওয়ার ?সুযোগ রয়েছে।

"