নাঙ্গলকোটে দুর্ধর্ষ ডাকাতি

নিজের গুলিতে ডাকাত নিহত আহত ৫

প্রকাশ : ১৫ মে ২০১৮, ০০:০০

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে এক বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। ডাকাতি শেষে যাওয়ার সময় নিজের দলের সদস্যদের গুলিতে দেলোয়ার হোসেন ওরফে দেলু নামে এক ডাকাত নিহত হয়েছে। এছাড়া দুই যুবক গুলিবিদ্ধসহ ৫ জনকে আহত করেছে ডাকাতরা। গতকাল রোববার রাতে উপজেলার মৌকরা ইউনিয়নের গোমকোট গ্রামের ‘নিশি বাবুর’ বাড়ির প্রফুল্ল দেবনাথের ঘরে এ ডাকাতি হয়। গতকাল সোমবার সকালে জেলা পুলিশ সুপার মো. শাহ আবিদ হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আবদুল্লাহ আল মামুন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নিহত ডাকাত দেলু নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার আহম্মদপুর গ্রামের সেলিম মিয়ার ছেলে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ডাকাতদের ছোড়া গুলিতে গুলিবিদ্ধরা হলেনÑ মৃত প্রফুল্ল দেবনাথের ছেলে বিধান চন্দ্র দেবনাথ ও রিখান চন্দ্র দেবনাথ। এছাড়া অপর আহতরা হলেনÑ তাদের ভাই মলিন চন্দ্র দেবনাথ, আবদুর রহিম এবং মাহবুব আলম। এদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ দুই ভাইকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার রাত আড়াইটার দিকে ওই বাড়ির বিল্ডিং ঘরের কলাপসিবল গেট ভেঙে ১০-১২ জনের একদল সশস্ত্র ডাকাত ভেতরে প্রবেশ করে। ডাকাতরা ভেতরে প্রবেশ করে তিন ভাইকে হাত-পা ও মুখ বেঁধে মোবাইলফোন ছিনিয়ে নেয়। এরপর ঘরের নারী ও শিশুদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ১৯ ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ ৯০ হাজার টাকা, একটি ল্যাপটপ, ৭টি মোবাইলফোন সেট ও ৩টি টর্চ লাইটসহ বিভিন্ন মালামাল লুট করে। ডাকাতি শেষে বিধান চন্দ্র দেবনাথ ও রিখান চন্দ্র দেবনাথের ওপর গুলি চালায় তারা। এছাড়া ওই গ্রামের নূর মোহাম্মদের ছেলে আবদুর রহিম চিৎকারের শব্দ শুনে বের হলে সামনে পড়ায় ডাকাতরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে সেই গুলি লাগে ডাকাত দলের সদ্য দেলুর শরীরে।

নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আইয়ূব বলেন, নিহত ডাকাত সদস্যের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আর তার সঙ্গে থাকা একটি এলজি বন্দুক ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।

"