ব্লিচিং পাউডারের নামে চকের গুঁড়া বিক্রি

৩ প্রতারক আটক ও কারাদন্ড

প্রকাশ : ১৫ মে ২০১৮, ০০:০০

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

তারা তিনজন ব্লিচিং পাউডারের কথা বলে বিক্রি করে আসছিল চকের গুঁড়া। প্রতারিত করছিল ক্রেতা ও দোকানদারদের।

জানা গেছে, উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের নাম ‘নিউ বিদ্যুৎ ব্লিচিং পাউডার’। পলিথিনের মোড়কে অনুমোদনবিহীন এক কেজির প্যাকেট। চট্টগ্রাম থেকে এ পাউডার আসে। মোড়কে চটকদার কার্যকরী ক্ষমতার কথা লেখাÑ ‘ঘরের মাঝে, পানির ট্যাঙ্ক, নালা-নর্দমা, টয়লেট পরিষ্কার ও দুর্গন্ধ দূর করা যায় এই পাওডার ব্যবহার করে। পানি পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত হয়। মুরগি ও মাছের খামারে ব্যবহারের উপযোগী। কিন্তু এই পাউডারের মোড়কে বিএসটিআইর কোনো অনুমোদন সিল নেই। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে এ কোম্পানি ব্লিচিং পাউডারের নামে নিম্নমানের চকপাউডার বাজারজাত করে আসছে।

গত রোববার রাতে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের পিতলগঞ্জ ভক্তবাড়ি এলাকায় স্থানীয় বাজারে ব্লিচিং পাউডার বিক্রির কথা বলে, চক পাউডার বিক্রি করতে আসা তিন প্রতারককে আটক করেন স্থানীয় লোকজন। আটককৃতরা হলেন, কুমিল্লা জেলার মুরাদ নগর থানার দারোয়ারা এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে মনির হোসেন, চট্টগ্রাম জেলার কোতোয়ালী থানার আল করম রোড এলাকার এনথিও রোজারিও ছেলে হেনরী কামাল ও মুন্সীগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুরমা থানার হাসান বাগ এলাকার মোছাদ্দর আলীর ছেলে মোকাতদুছ হোসেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলার পিতলগঞ্জ বক্তবাড়ি বাজারে নিরব স্যানিটারি অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স দোকানে মনির হোসেন, হেনরী কামাল, মোকাতদুছ হোসেন নামের তিন ব্যাক্তি ব্লিচিং পাউডার বিক্রি করতে আসেন পিক-আপ নিয়ে। দোকানের মালিক শাহ আলম জানান, পাউডারের প্যাকেটের গায়ের মূল্য ও বিএসটিআইর অনুমোদন সিল না থাকায় তাদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। পরে স্থানীরা একটি প্যাকেট খুলে দেখতে চান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পড়েন তারা। পরে পুলিশে খবর দেন স্থানীরা।

রূপগঞ্জ থানার এসআই শফিক জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারি, ব্লিচিং পাউডারের নামে প্যাকেট করে চক পাউডার বিক্রির উদ্দেশ্যে পিক-আপ ভ্যানে করে ১৫০ কেজি পাউডার এনেছে তারা। তারাব পৌরসভার বরপা আড়িঢাব এলাকার মুদি দোকানদার রহিম জানান, ৯ দিন আগে আমার দোকানে ১৫০ কেজি ব্লিচিং পাউডার দিয়ে ২০ হাজার টাকা নেয় তারা। স্থানীয় একাদিক লোক এ ব্লিচিং পাউডার নকল বলে ফেরত দিয়ে যায়। পরে অন্যান্য প্যাকেট খুলে দেখি সবগুলো চক পাউডার।

রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু ফাতেহ মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম জানান, সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে প্রতারকচক্রের তিন সদস্যকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে, তাদের প্রাথকি জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। ঘটনার সত্যতা জেনে কুমিল্লা জেলার মুরাদ নগর থানার দারোয়ারা এলাকার মনির হোসেন, চট্টগ্রাম জেলার কোতোয়ালী থানার আল করম রোড এলাকার হেনরী কামাল, মুন্সীগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুরমা থানার হাসান বাগ এলাকার মোকাতদুছ হোসেনকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদ- দেওয়া হয়। রূপগঞ্জ থানার ওসি মনিরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন বলেন, আটককৃতরা তিনজনই প্রতারক। তারা দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্নস্থানে ব্লিচিং পাউডার বলে চক পাউডার প্যাকেটজাত করে বিক্রি করে আসছে। সাজাপ্রাপ্তদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

"