মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল ঠিক হবে না : এরশাদ

প্রকাশ : ১৭ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০

নীলফামারী প্রতিনিধি

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, কোটা ব্যবস্থা নিয়ে ছাত্রদের মনে দীর্ঘ দিনের ক্ষোভ ছিল, তাদের মনে কষ্ট ও দুঃখ ছিল। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে তার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। তবে একেবারেই মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করা ঠিক হবে না। গতকাল সোমবার দুপুরে নীলফামারীর জলঢাকা ডাকবাংলো মাঠে উপজেলা জাতীয় পার্টি আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এসব কথা বলেন। জাপা চেয়ারম্যান বলেন, সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন ইস্যুতে আওয়ামী লীগ সরকারের সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে। বর্তমানে তাদের অবস্থা নাজুক। জনগণের আস্থা হারিয়ে সরকার এখন দিশেহারা। আর বিএনপির অবস্থা ছিন্নভিন্ন। তাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় কারাভোগ করছেন।

বিএনপি নির্বাচনে আসুক না আসুক জাতীয় পার্টি নির্বাচনে অংশ নেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিএনপি এখন নেতাশূন্য দল। দলটির অবস্থা ভালো না। রংপুরসহ সারা দেশে জাতীয় পার্টির গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় আসবে। জনগণ এখন পরিবর্তন চায় দাবি করে তিনি বলেন, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পাটি এককভাবে নির্বাচন করবে। জাপাতে কোনো বিরোধ নেই দাবি করে তিনি বলেন, আমরা সব আসনে প্রার্থী দেব। যাকেই মনোনয়ন দেই তাকেই ভোট দেওয়ার জন্য তিনি দলের সব নেতাকর্মীসহ জনগণকে প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানান।

সাবেক এ রাষ্ট্রপতি বলেন, রংপুরের ২২টি আসন আমাকে উপহার দেন, আমি আপনাদের ক্ষমতা উপহার দেব। খালেদা জিয়ার উদ্দেশে তিনি বলেন, খালেদা জিয়া আমাকে অন্যায়ভাবে ছয় বছর কারাগারে আটক করে রেখেছিলেন। আল্লাহর বিচার দেখেন, তিনি এখন কারাগারে। আমি যখন কারাগারে ছিলাম আমাকে কারো সঙ্গে কথা বলার সুযোগ দেওয়া হতো না। অসুস্থ হওয়ার পরেও আমাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়নি। এখন তিনি সুস্থ হয়েও হাসপাতালে যাচ্ছেন।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে জনবিছিন্ন উল্লেখ্য করে এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টি এখন জনগণের একমাত্র আস্থার দল। জাতীয় পার্টিকে দেশের সব রাজনৈতিক দল সমীহ করে। বিগত দিনে আমাদের ছাড়া কেউই এককভাবে ক্ষমতায় যেতে পারেনি, আগামীতেও পারবে না। নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জনগণ ভোট দিয়ে জাতীয় পার্টিকেই দেশ পরিচালনার দায়িত্বভার অর্পণ করবে বলে আমার বিশ্বাস। সমাবেশে জলঢাকা উপজেলার কৈমারী ইউনিয়নের চিকিৎসক বাদশা আলমগীরের নেতৃত্বে শতাধিক নেতাকর্মী ফুলের তোড়া উপহার দিয়ে জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন।

জলঢাকা উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শাহ আবদুর কাদের বুলু চৌধুরীর সভাপতিত্বে জনসভায় জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা, রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শামীম হায়দায় পাটোয়ারী, জাতীয় পাটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মেজর খালেদ আক্তার (অব), নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য বিরোধীদলীয় হুইপ শওকত চৌধুরী, নীলফামারী-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য জাফর ইকবাল সিদ্দিকী, জেলা জাপার সদস্যসচিব সাজ্জাদ পারভেজ প্রমুখ বক্তব্য দেন।

 

"