যৌন হয়রানি

তদন্তসাপেক্ষে শাস্তি চায় আওয়ামী লীগ

প্রকাশ : ০৯ মার্চ ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত জনসভাকে কেন্দ্র করে রাজধানীর শাহবাগসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় নারীদের ওপর যৌন হয়রানির অভিযোগের বিচার চায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। তবে ঘটনার সত্যতা ও রহস্য উদ্ঘাটনও চান দলটির নেতারা। অনাকাক্সিক্ষত এই ঘটনাগুলো তাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হতে পারে বলেও মনে করছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা।

দলটির নেতারা বলছেন, ৭ মার্চের সমাবেশকে কেন্দ্র করে ষড়যন্ত্রকারীরা ঐতিহাসিক দিনটির ‘স্পিরিট’ নষ্ট করতে নারীদের বেছে নিয়েছে। তবে যাই হোক, তদন্তসাপেক্ষে এসব ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায় আওয়ামী লীগ। তারা বলছেন, এই সমাবেশের ভাবগাম্ভীর্য নষ্ট করতে অনুপ্রবেশকারীদের চক্রান্তেও এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।

আওয়ামী লীগের নেতারা আরো বলেন, আওয়ামী লীগ নারীর ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করে। ফলে এই দলের নেতাকর্মীরা নারী লাঞ্ছনার ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে না। তবে যারাই এর সঙ্গে জড়িত থাকুক, খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্টরা কাজ করবেন। ক্ষমতাসীন দলের দৃষ্টিতে এটা নিন্দনীয়।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ফারুক খান বলেন, নারীদের লাঞ্ছনার শিকার হওয়ার ঘটনাগুলো সমাবেশের ভাবগাম্ভীর্য নষ্ট করতে কোনো মহলের ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত হতে পারে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা নারীর ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করে। ফলে এই দলের নেতাকর্মীরা এর সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে না। তবে এ নিন্দনীয় ঘটনার সঙ্গে যে দলের নেতাকর্মীরাই জড়িত থাকুক না কেনÑ তাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা হবে বলে আশা করছি।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি বলেন, এ ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত থাকুক না কেন, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা নারীর প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাদের অসম্মানিত করার মানসিকতা এ দলের কারো থাকতে পারে বলে বিশ্বাস করি না। সমাবেশের পরিবেশ নষ্ট করতে এ ধরনের ঘটনা অনুপ্রবেশকারীরাও ঘটাতে পারে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, জনসভার দিন কোথাও কোনো ঘটনা ঘটে থাকলে এর সঙ্গে জনসভার সংশ্লিষ্টতা আছে বলে মনে করি না। জনসভার মূল স্পিরিট নষ্ট করতে কেউ ষড়যন্ত্র করতে পারে। তবে যে বা যারাই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকুক না কেন, এ ব্যাপারে আমাদের জিরো টলারেন্স অবস্থান রয়েছে। এ ঘটনা নিয়ে কেউ রাজনীতি করার চেষ্টা করবে না বলে আশাবাদ জানান তিনি।

৭ মার্চের জনসভাকে কেন্দ্র করে নারীদের যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালও। কয়েকটি ঘটনার ফুটেজ হাতে এসেছে জানিয়ে তিনি বলেন, ৭ মার্চের সমাবেশকে কেন্দ্র করে নারীদের শ্লীলতাহানির ভিডিও ফুটেজ হাতে এসেছে। ফুটেজ দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অপরাধী যে দলেরই হোক, ছাড় দেওয়া হবে না।

"