খাদ্যের সন্ধানে লোকালয়ে বাঘ পিটিয়ে হত্যা করল গ্রামবাসী

প্রকাশ : ২৪ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০

বাগেরহাট প্রতিনিধি

খাদ্যের সন্ধ্যানে লোকালয়ে ঢুকে পড়া সুন্দরবনের একটি ক্ষুধার্ত বাঘকে পিটিয়ে হত্যা করেছে গ্রামবাসী। এর আগে ওই বাঘের আক্রমণে ছয়জন আহত হয়েছে। আহতদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের সুন্দরবন সংলগ্ন মোরেলগঞ্জ উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের গুলিশাখালী গ্রামে বাঘটিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। একই দিন বিকেলে বাগেরহাটের মোংলা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে নিহত বাঘটির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। বয়স দুই বছর চার মাস বয়সের এই বাঘটি পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় বন বিভাগ সদর সার্কেলের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মেহেদী জামানকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বাঘের আক্রমণে আহতরা হলেন, মাসুম দলাল, মুজিবর সরদার, সগির সরদার, হাউম হাওলাদার, ইয়াছিন হাওলাদার ও আল আমিন। তাদের বাড়ি মোরেলগঞ্জ উপজেলার গুলিশাখালী গ্রামে। সবার শরীরের বিভিন্ন স্থানে বাঘের থাবার আঘাত রয়েছে।

নিশানবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাচ্চু বলেন, গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে গুলিশাখালী গ্রামের টুকু দলাল, তার ছেলে মাসুম দলালকে নিয়ে আমন ধান কাটতে জমিতে যান। এ সময় ধানের ক্ষেতে লুকিয়ে থাকা একটি রয়েল বেঙ্গল টাইগার হঠাৎ করে টুকু দলালের ছেলে মাসুমের ওপর আক্রমণ করে। টুকু দালাল বাঘ বাঘ বলে চিৎকার শুরু করলে স্থানীয় গ্রামবাসী ছুটে এসে বাঘের মুখ থেকে মাসুমকে উদ্ধার করতে গেলে, অন্তত আরো পাঁচজন বাঘের আক্রমণের শিকার হন। খবর পেয়ে সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের গুলিশাখালী ফরেস্ট ক্যাম্পের বনরক্ষীরাও গ্রামবাসীর সঙ্গে জড়ো হয়ে বাঘটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলে।

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মাহমুদুল হাসান বলেন, মঙ্গলবার বিকেলে মৃত বাঘটির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। এই ঘটনায় পাঁচ সদস্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই তদন্ত কমিটিকে আগামী তিন কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। এই ঘটনায় বন-আইনে একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান ওই বন কর্মকর্তা।

"