দারুণ জয়ে ঘুরে দাঁড়াল সিটি

প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৬ এপ্রিল ২০১৮, ০০:১১

ক্রীড়া ডেস্ক

টানা তিন ম্যাচে হারের পর অবশেষে ঘুরে দাঁড়ালো ম্যানচেস্টার সিটি। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ওয়েম্বেলি স্টেডিয়ামে কাল টটেনহামের বিপক্ষে সিটিজেনরা জয় পেয়েছে ৩-১ গোলে। এই জয়ে লিগ শিরোপা থেকে নিঃশ্বাস দূরত্বে অবস্থান করছে পেপ গার্দিওলার দল।

লিভারপুলের কাছে দুই লেগে হেরে ইতি টানাতে হয়েছে চ্যাম্পিয়নস লিগ কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে। ‘ম্যানচেস্টার ডার্বি’ হারতে হয়েছে চিরশত্রু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাছে। তিন তিনটি বিগ ম্যাচের হারে সমালোচনাটা মাথা পেতে নিতে হয়েছিল গার্দিওলাকে। তবে ঘুরে দাঁড়ানোর আভাসটা আগেই দিয়েছিলেন তিনি। কালকেও সংবাদ সম্মেলনে এসে সেই কথাটায় জানালেন আরেকবার, ‘টটেনহামের বিপক্ষে আমরা জয় পেয়েছি। এবার সামনে তাকানোর পালা।’

শিরোপার অপেক্ষাটা আজকেই ঘুচে যেতে পারে গার্দিওলার শিষ্যদের। তবে তার জন্য তাদের তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বনাম ওয়েস্ট ব্রোমিচের ম্যাচটির দিকে। ইউনাইটেড যদি জয় পায় তবে শিরোপা ঘরে তোলার সময়টা বাড়বে ম্যানসিটির। আর হারলে পরের ম্যাচেই লিগ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে মাঠে নামবে সিটিজেনরা। লিগে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইউনাইটেডের চেয়ে এখন পর্যন্ত তারা এগিয়ে আছে ১৬ পয়েন্টে।

গার্দিওলার শিষ্যদের পরের ম্যাচ সোয়ানসির বিপক্ষে। ২২ এপ্রিল ঘরের মাঠ ইতিহাদ স্টেডিয়ামে সোয়ানসির বিপক্ষে মাঠে নামবে সিটিজেনরা। সেই ম্যাচটিতে জয় পেলে তৃতীয় বারের মতো শিরোপা জয়ের উৎসবে মেতে উঠতে পারবে সিটি সমর্থকরা। সিটি শেষ শিরোপা ঘরে তুলেছিল ২০১৩-১৪ মৌসুমে।

পরশু ম্যাচের শুরু থেকেই চেনারূপে দেখা যায় ম্যানসিটিকে। দুই দল সমানতালে আক্রমণ করলেও গোলের দেখাটা প্রথম পায় সিটিজেনরা। ২২ মিনিটে স্বাগতিকদের প্রথম ধাক্কাটা দেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। এরপরে পেনাল্টি থেকে ব্যবধানটা দ্বিগুণ করেন জার্মান মিডফিল্ডার ইলকায় গুন্ডোগান। বিরতিতে যাওয়ার আগে ৪২ মিনিটে একটি গোল শোধ করে দেন ক্রিশ্চিয়ান এরিকসন।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে আরো বেশি আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতে থাকে গার্দিওলার শিষ্যরা। ৭২ মিনিটে সিটির হয়ে তৃতীয় গোলটি করেন রহীম স্টার্লিং। ম্যাচের বাকি সময়টুকু মাউরিচিও পচেত্তিনোর শিষ্যদেরকে গোল শোধের কোন সুযোগ দেয়নি ম্যানসিটির খেলোয়াড়েরা।

কালকের জয়ে গার্দিওলার বুক থেকে একটা বিরাট পাথরই যেন নেমে গেল। এই জয়কে স্বস্তির জয় বলেছেন তিনি নিজে। সেই সঙ্গে প্রশংসা করতে ভুললেন না প্রিয় শিষ্যদের, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে আমরা জিতেছি। ঘরের মাঠে পরের ম্যাচটিতেও জিতবো। আমি আনন্দিত। আমাদের খেলোয়াড়েরা খুব ছন্দে ছিল আজ।’

টটেনহাম হারলেও লিগের পয়েন্ট টেবিলটা আগের মতোই থাকছে। ৩৩ ম্যাচে খেলে ৮৭ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরেই থাকছে ম্যানসিটি। আর সমান ম্যাচ খেলে ৬৭ পয়েন্ট নিয়ে পচেত্তিনোর দল আছে চতুর্থ স্থানে।

"