এগিয়ে আছে ফ্রান্স, ব্রাজিল-বেলজিয়াম সমানে সমান

প্রকাশ : ০৬ জুলাই ২০১৮, ১১:৫৫

মামুনুল

কোয়ার্টার ফাইনালের আজকের দুটি ম্যাচেই লড়াই হবে। উরুগুয়ের বিপক্ষে ফ্রান্স এগিয়ে। তাদের বেঞ্চও বেশ শক্তিশালী। অন্যদিকে ব্রাজিল-বেলজিয়ামের ম্যাচটি ফিফটি-ফিফটি। কারণ এখানে কাউকেই আপনি পিছিয়ে রাখতে পারবেন না। দুটো দলই প্রায় সমশক্তির। যে কেউ জিততে পারে। তবে এসব ম্যাচে যারা মানসিকভাবে শক্ত তারা এগিয়ে থাকবে। দ্বিতীয় রাউন্ডের পারফরম্যান্সের ওপরও তাদের মানসিকতা নির্ভর করবে।

ব্রাজিল দলের প্রধান অস্ত্র হলো নেইমার। সে ধীরে ধীরে ফর্মে ফিরে এসেছে। নেইমার ভালো খেললে তাদের পুরো দলটাই একটা ভালো ছন্দে ফিরে আসে। নেইমার ম্যাচ বাই ম্যাচ উন্নতি করছে। এটাই ব্রাজিলের জন্য ইতিবাচক দিক। কাসেমিরো নিষেধাজ্ঞার কারণে খেলতে পারবেন না। তার অভাব পূরণের জন্য ফার্নানদিনহো আছেন। ম্যানচেস্টার সিটিতে খেলেন তিনি। ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডে তিনি অনেক শক্তিশালী। আসলে ব্রাজিল-বেলজিয়াম দুই দলেরই একাদশ ও বেঞ্চে থাকা খেলোয়াড়রা খুবই ভালো মানের। তবে কাউন্টার অ্যাটাকে বেলজিয়াম কিছুটা দুর্বল। সেই সুযোগটা ব্রাজিলের কাজে লাগাতে হবে। সেটা করতে পারলে ব্রাজিল এগিয়ে যাবে। বেলজিয়াম ফাঁকফোকর রেখে খেলে। আমি মনে করি, ব্রাজিল সেগুলো কাজে লাগাতে পারবে। তবে বেলজিয়াম এই ম্যাচে হয়তো আগের ম্যাচের মতো খেলবে না। ব্রাজিলের শক্তিমত্তার দিকগুলো বিবেচনা করেই তারা ফরমেশন সাজাবে। জাপানের বিপক্ষে তারা যে ম্যাচ খেলেছে ব্রাজিলের বিপক্ষে তেমন খেললে আমার মনে হয় না তারা জিততে পারবে।

লুকাকু বেলজিয়ামের বড় তারকা। তবে আগের ম্যাচে তার পারফরম্যান্স দেখে মনে হয়নি তিনি ছন্দে আছেন। লুকাকুর চেয়ে বেশি ভয়ংকর ইডেন হ্যাজার্ড। হ্যাজার্ড, ডি ব্রুইনি ও লুকাকু ব্রাজিলকে ভোগাতে পারে। ব্রাজিলের ওপরের তিনজন স্ট্রাইকার ও ফিলিপে কুতিনহো বেলজিয়ামকে ভোগানোর জন্য যথেষ্ট। তার ওপর উইলিয়ানও ফর্মে আছেন। আগের ম্যাচে অনেক ভালো খেলেছেন।

উরুগুয়ের সঙ্গে বিবেচনা করলে দল হিসেবে ফ্রান্স খুবই শক্তিশালী। উরুগুয়ের দুইজন স্ট্রাইকার ও দুজন স্টপার খুব ভালো। তার মধ্যে কাভানি ইনজুরিতে। তিনি যদি খেলতে না পারেন, তাহলে উরুগুয়ে পিছিয়ে থাকবে। কাভানি খেলতে পারলে ফ্রান্সের বিপক্ষে তারা ফাইট দিতে পারবে। তবে এমবাপ্পে অনেক ফাস্ট ফুটবল খেলেন। তরুণ খেলোয়াড়। ওসমানে দেম্বেলে, অ্যান্তনিও গ্রিজমান ও পল পগবা আছেন। দল হিসেবে তারা খুবই শক্তিশালী। ব্যালান্সড দল। তার ওপর দিনের পর দিন তারা ভালো খেলতেছেন। সব মিলিয়ে ফ্রান্সকে এগিয়ে রাখব।

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ফ্রান্স অসাধারণ একটি ম্যাচ খেলেছে। আর্জেন্টিনার চেয়ে তারা এগিয়ে ছিল। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে তারা যে পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নেমেছিল সেটা পুরোপুরি ব্যবহার করেছে। আর্জেন্টিনা ফ্রান্সকে সমীহ করে খেলেনি। সেটার খেসারত দিয়েছে। যদিও তারা ৩টি গোল হজম করেছে, তবে তাদের রক্ষণভাগকে আমার দুর্বল মনে হয়নি। তাদের ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডও অনেক শক্ত।

গোল্ডেন বুট পাওয়ার দৌড়ে হ্যারি কেনকে এগিয়ে রাখতে হবে। তার ৬ গোল হয়ে গেছে। তাকে কেউ পেছনে ফেলতে পারবেন না। সুইডেনের বিপক্ষে ম্যাচ আছে। আর ২টা গোল করতে পারলে তার গোল্ডেন বুট কনফার্ম হয়ে যাবে। বেলজিয়ামের লুকাকুর চারটা গোল। কিন্তু তাদের সামনে অনেক বাধা। ব্রাজিলের সঙ্গে জিতলে এরপর তাদের ফ্রান্স কিংবা উরুগুয়ের বিপক্ষে খেলতে হবে। সেটা পেরিয়ে আসতে হবে। সব মিলিয়ে কেনকে ধরতে পারবেন না লুকাকু।

পিডিএসও/হেলাল