পেনাল্টি লড়াইয়ে বাজিমাত ক্রোয়েশিয়ার

ক্রোয়েশিয়া ১ (৩) - ১ (২) ডেনমার্ক

প্রকাশ : ০২ জুলাই ২০১৮, ০৯:১৬ | আপডেট : ০২ জুলাই ২০১৮, ০৯:২৮

অনলাইন ডেস্ক

‘যতটা গর্জে ততটা বর্ষে না’—প্রবাদটা ক্রোয়েশিয়া-ডেনমার্ক মহারণের জন্য হতে পারে উপযুক্ত প্রবাদ। ৪ মিনিটে ২ গোল হওয়া ম্যাচটা পরের প্রায় দেড়ঘণ্টা কাটল গোলখরায়! ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে। ঠিক যেন আগের ম্যাচের সাজানো চিত্রনাট্য! কাকতালীয়ভাবে নির্ধারিত সময় শেষে ফলটাও একই। স্পেন-রাশিয়া ম্যাচের মতো দুই অর্ধের পর ১-১ গোলে সমতা! শেষ পর্যন্ত পেনাল্টিতে জয়লাভ করে ক্রোয়েশিয়া।

নকআউট পর্বের প্রথম দিনের দুইটি ম্যাচই শেষ হয়েছে নির্ধারিত সময়ে। কিন্তু দ্বিতীয় দিনে এসেই বিশ্বকাপ ফিরিয়ে আনল বাড়তি সময়। একই সঙ্গে কাল টাইব্রেকার রোমাঞ্চও উপহার দিলো এবারের বিশ্বকাপ। রাশিয়া-স্পেন ম্যাচের পর ডেনমার্ক-ক্রোয়েশিয়া ম্যাচেরও সমাপ্তি টানতে হলো পেনাল্টি শুট আউটে। যেখানে কোন দল বাজিমাত করেছেন সেটা এতক্ষণে জেনে যাওয়ার কথা ফুটবলপ্রেমীদের।

বল পজিশন, আক্রমণ ম্যাচের প্রতিটি খণ্ডেই ইউরোপের দুই পরাশক্তির লড়াইটা হলো সেয়ানে সেয়ানে। যেটার শুরুটা হয়েছিল ঝড়োভাবে। প্রথম ৪ মিনিটেই নিঝনি নোভগোরাদ স্টেডিয়াম দেখল ২ গোল! ডেনমার্ক এগিয়ে যাওয়ার পরপরই ক্রোয়েশিয়ার দুর্দান্ত জবাব, বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ফিরে আসা তাদের। এমন শুরুর পর দারুণ একটা রোমাঞ্চ পেয়ে বসেছিল রাতজাগা ফুটবলপ্রেমীদের।

ম্যাচটার বাকি সময় কীভাবে কাটবে এনিয়ে কৌতূহলের কমতি ছিল না। কিন্তু সমর্থকদের এই রোমাঞ্চে জল ঢেলে দেয় ম্যাচটা। নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ ফলটা অপরিবর্তিত থাকল। অতিরিক্ত ৩০ মিনিটজুড়ে দেওয়া হলেও ফলটা আর বদলালো না। একদলের বিদায় নিশ্চিত করতে শেষ আশ্রয় হিসেবে নেওয়া হলো নির্মম আর ভাগ্যনির্ধারণীর খেলা টাইব্রেকারকে।

স্টেডিয়ামের দর্শকরা ঠিকঠাক ঢুকতে পারেননি। যারা ঢুকেছেন তারাও ঠিকঠাক গ্যালারির আসনে আরাম করে বসে উঠতে পারেননি। এরই মধ্যে রেফারির গোলের বাঁশি।

১১৫ মিনিটে বল পায়ে চিতার গতিতে ডেনমার্কের ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন অ্যান্তে রেবিচ। গোলরক্ষককেও পেছনে ফেলেছিলেন ক্রোট উইঙ্গার। ফাঁকা পোস্টে শট নিলেই গোল। কিন্তু রেবিচকে সেই সুযোগটা দিলেন না ডেনিশ ডিফেন্ডার ম্যাথিয়াস জার্গেনসেন। পেছন থেকে ট্যাকল করে রেবিচকে ফেলে দেন জার্গেনসেন। অবধারিতভাবেই পেনাল্টি উপহার হয় ক্রোয়েশিয়া। পেনাল্টি নিতে এগিয়ে আসেন লুকা মডরিচ। জালের ঠিকানা খুঁজে নিলেই প্রায় নিশ্চিত কোয়ার্টার ফাইনাল। কিন্তু ক্রোট অধিনায়কের স্পট কিক থেকে নেওয়া শটটা ঠেকিয়ে দেন ডেনিশ গোলরক্ষক ক্যাস্পার স্মিচেল! ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারে।

পিডিএসও/হেলাল