দিল্লির স্বপ্নভঙ্গ, ফাইনালে চেন্নাই

প্রকাশ : ১১ মে ২০১৯, ০০:৫৭ | আপডেট : ১১ মে ২০১৯, ০১:০২

অনলাইন ডেস্ক

আইপিএলে দিল্লি সবশেষ প্লে-অফে খেলে ২০১২ সালে। এরপর সেই অর্থে তেমন সাফল্য নেই দলটির। রিকি পন্টিং ও সৌরভ গাঙ্গুলির হাত ধরে নতুন করে স্বপ্ন দেখছিল দিল্লি ক্যাপিটালস। তবে সেই স্বপ্ন ভেঙে ফাইনালে উঠে গেল চেন্নাই সুপার কিংস।

দ্বাদশ আসরের দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে শুক্রবার বিশাখাপত্তনমে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট হারিয়েছে দিল্লি। কোনো ব্যাটসম্যানই ক্রিজে ঠিকমতো দাঁড়াতে পারেননি। যা একটু চেষ্টা করেছেন দলের সেরা তারকা রিশভ প্যান্ট। তিনি করেন ২৫ বলে সর্বোচ্চ ৩৮ রান।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৭ রান করেন কলিন মুনরো। তবে সেটা মোটেই টি-টোয়েন্টি সুলভ ছিল না। ২৪ বলে ৪ চারে এ রান করেন তিনি। বাকিদের কেউই উল্লেখযোগ্য কোনো অবদান রাখতে পারেননি।

অধিনায়ক শ্রেয়াস আয়ার ১৩, শিখর ধাওয়ান ১৮, শেরফান রাদারফোর্ড ১০ ও পৃথ্বী শ করেন ৫ রান। শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেটে ১৪৭ রান তুলতে সক্ষম হয় ক্যাপিটালস। চেন্নাইয়ের হয়ে দীপক চাহার, হরভজন সিং, রবীন্দ্র জাদেজা ও ড্যারেন ব্রাভো-প্রত্যেকে নিয়েছেন ২টি করে উইকেট।

অল্প পুঁজি নিয়ে চেন্নাইকে থামাতে হলে শুরু থেকেই উইকেট তুলতে হতো দিল্লিকে। তবে সেটি পারেননি দলটির বোলাররা। মূলত ফ্যাফ ডু প্লেসি ও শেন ওয়াটসনের অভিজ্ঞতার কাছে হেরে যান তারা। সূচনাটা আক্রমণাত্মক মেজাজে শুরু করেন এ দুই ব্যাটসম্যান। ডু প্লেসি ৩৯ বলে এবং ওয়াটসন ৩২ বলে হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়ে ফেরেন।

এতে চেন্নাইয়ের জয়ের পথ পরিষ্কার হয়ে যায়। তবে চেষ্টা করেও আরো আগেভাগে জয় তুলে নিতে পারেননি সুরেশ রায়না (১১) ও ধোনি (৯)। বাকি কাজটা সারেন আম্বাতি রায়ডু। ২০ রানে অপরাজিত থেকে বিজয়ী সেনার বেশে মাঠ ছাড়েন তিনি। শেষ পর্যন্ত ১ ওভার বাকি থাকতে ৬ উইকেটে জিতে যায় চেন্নাই। এতে ফাইনালে ওঠার আনন্দে মেতে ওঠে ধোনি বাহিনী।

এর সঙ্গে চেন্নাইয়ের প্রতিশোধ নেয়ারও রাস্তা তৈরি হলো। প্রথম কোয়ালিফায়ারে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের কাছে বাজেভাবে হারে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। রোববার ফাইনালে সেই মুম্বাইয়ের মুখোমুখি হবে তারা। আগের হারের প্রতিশোধ কি নিতে পারবেন ধোনিরা?

পিডিএসও/রি.মা