৪ উইকেট নিয়ে তাসকিনের বাজিমাত

প্রকাশ : ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ১৪:৪৮

অনলাইন ডেস্ক

ইনজুরির কাছে হেরে তাসকিন আহমেদ হারিয়েছেন বিশ্বকাপ দলে জায়গা। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন তার ফিটনেস নিয়ে ছিলেন না সন্তুষ্ট। ফিজিও রিপোর্ট ছিল না আপ টু মার্ক। সেই তাসকিনই তিনদিন পর বাজিমাত করলেন।

ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের সুপার লিগের তৃতীয় রাউন্ডে ফিরে তাসকিন ফিরে পেলেন নিজেকে। বোলিং করেছেন পূর্ণ গতি নিয়ে।  রানিং, ফলো থ্রু, ডেলিভারি কোনো কিছুতেই ছিল না জড়তা। ৯ ওভার বোলিংয়ে ৫৪ রানে নিয়েছেন ৪ উইকেট। মিরপুর শের-ই-বাংলায় তার আগুনে বোলিংয়ে পুড়েছে প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব।

১৮তম ওভারে তাকে বোলিংয়ে আনেন রূপগঞ্জের অধিনায়ক নাঈম ইসলাম। প্রথম ওভারে এক ছক্কা, দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে এক চার হজম করেন ঢাকা এক্সপ্রেস। সাফল্য পেতে বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি তাকে। দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে সাইফ হাসান ক্যাচ দেন নাঈম হাসানের হাতে।  পরের ওভারের দ্বিতীয় বলে তার শিকার মার্শাল আইয়ুব। প্রথম স্পেলে ৫ ওভার বোলিংয়ে ৩০ রানে ডানহাতি পেসার পেয়েছেন ২ উইকেট। 

৩৮তম ওভারে দ্বিতীয় স্পেলে ফিরে এসে তাসকিন প্রথম বলে পেয়ে যান উইকেটের স্বাদ।  রূপগঞ্জ সবথেকে বড় সাফল্য দেন ওই ওভারেই। সর্বোচ্চ ৭২ রান করা সৈকত আলী তাসকিনের বলে ফেরেন সাজঘরে। নিজের সপ্তম ওভারে তাসকিন দারুণ বোলিংয়ে ফেরান তাইবুর রহমানকে। পরের দুই ওভার অবশ্য ভালো যায়নি।   দুই ওভারে দুই ছক্কা হজম করেছেন, রান দিয়েছেন ৯ করে।

সতীর্থদের ভালো বোলিংয়ে নিজের বোলিং কোটা শেষ করতে পারেননি তাসকিন। ৯ ওভারে ৫৪ রান দিয়ে ৪ উইকেট পেয়েছেন ইনজুরি থেকে ফেরা তাসকিনের। ৫৪ বলের ৩০টি ছিল ডট বল। চার-ছক্কা হজম করেছেন ৩টি করে।  আরেক পেসার শহীদ পেয়েছেন ৩ উইকেট। রূপগঞ্জের দারুণ বোলিংয়ে ২০৫ রানে শেষ হয় দোলেশ্বরের ইনিংস।

পিডিএসও/হেলাল