কিউইদের কাছে টাইগারদের অসহায় আত্মসমর্পণ

প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:৩৫ | আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:৪৮

অনলাইন ডেস্ক
ama ami

নতুন বছরে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের শুরুটা হলো হার দিয়ে। বুধবার নেপিয়ারে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে নিউজিল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটে অসহায় আত্মসমর্পণ করেছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩৮.৫ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৩২ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। জবাবে ৩৩ বল হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় নিউজিল্যান্ড। রান তাড়া করতে নেমে ১০৩ রানের জুটি গড়েন ওপেনার মার্টিন গাপটিল-হেনরি নিকোলস। ৫৩ রান করে মেহেদী হাসান মিরাজের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে ফেরেন নিকোলস। দলীয় ১৩৭ রানে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে ফেরান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

এরপর তৃতীয় উইকেটে রস টেলরের সঙ্গে অবিচ্ছিন্ন ৯৬ রানের জুটিতে নিউজিল্যান্ডকে সহজ জয় এনে দেন গাপটিল। ক্যারিয়ারের ১৫তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি করা গাপটিল অপরাজিত থাকেন ১১৭ রানে। যাতে ছিল ৮টি চার ও ৪টি ছক্কার মার। তার সঙ্গী টেলর ৪৯ বলে করেন ৪৫ রান।

এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে স্বাগতিকদের পেস তোপে পড়ে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ওভারেই ফিরে যান ওপেনার তামিম ইকবাল (৫)। চতুর্থ ওভারে ম্যাট হেনরির বলে কাটা পড়েন লিটন কুমার দাস। অষ্টম ওভারে মুশফিককে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানান ট্রেন্ট বোল্ট। সৌম্য সরকার দারুণ খেলছিলেন। তবে দ্রুত রান তুলতে যাওয়া সৌম্য ইনিংস লম্বা করতে পারেননি। ৫ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় ৩০ রান করে সাজঘরে ফিরেন তিনি। ৪২ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের দুর্দশা আরো বাড়ে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও সাব্বির হোসেনের আউটে। ষষ্ঠ ব্যাটম্যান হিসেবে সাব্বির যখন ফিরেছেন দলের রান তখন ৯৪। চরম বিপর্যয়ের ‍মুখে হাল ধরেন মোহাম্মদ মিথুন। মিরাজকে নিয়ে বাংলাদেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন তিনি। কিন্তু ধৈর্যহারা হয়ে স্যান্টনারকে মারতে গিয়ে দলীয় ১৩১ ও ব্যক্তিগত ২৬ রানে আউট হন মিরাজ। আবারও বিপদে পড়ে যায় বাংলাদেশ।

সেখান থেকে টাইগাররা দুশোর কোটা পার করে মিথুন-সাইফউদ্দিনের রেকর্ড ৮৪ রানের জুটিতে। অষ্টম উইকেটে কেনো দলের বিপক্ষে ওয়ানডেতে এটিই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ জুটি। মিথুন তুলে নেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের তৃতীয় হাফসেঞ্চুরি। সাইফ পারেননি। দলীয় ২১৫ রানে সাজঘরে ফেরেন এই পেস অলরাউন্ডার। ৫৮ বলে ৪১ রান করেন তিনি।

সাইফের বিদায়ের পর স্বীকৃত ব্যাটসম্যান বলতে ছিলেন মিথুন। শেষ পর্যন্ত খেলতে পারলে সংগ্রহটা আরেকটু বড় হতো বাংলাদেশের। কিন্তু ব্যক্তিগত ৬২ ও দলীয় ২২৯ রানে মিথুন আউট হয়ে যান। দলীয় সংগ্রহটাও আর বড় হয়নি। ৪৮.৫ ওভারে সবগুলো উইকেট হারিয়ে ২৩২ রানে অলআউট হয় সফরকারীরা। নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৮ ওভার বোলিং করে ৪৫ রান দিয়ে তিনটি উইকেট নেন স্যান্টনার। ৯.৫ ওভারে ৪০ রানে দিয়ে সমান তিনটি নেন বোল্ট। দুটি করে নেন হেনরি এবং ফার্গুসন।

পিডিএসও/হেলাল