বিপিএল থেকেই বিশ্বকাপ সফরের প্রস্তুতি

প্রকাশ : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:২৮

ক্রীড়া প্রতিবেদক
ama ami

ওআগামী ৩০ মে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলসে পর্দা উঠছে আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসর। তবে বাংলাদেশের জন্য টুর্নামেন্ট শুরু হচ্ছে দুই দিন পর। দেড় মাসব্যাপী এই টুর্নামেন্টের জন্য শারীরিক, মানসিক এবং মাঠের প্রস্তুতি— কোনো কিছুতেই ঘাটতে রাখতে চায় না টাইগাররা।

ক’দিন বাদেই নিউজিল্যান্ড সফর দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ প্রস্তুতি। এরপর আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ। সব মিলিয়ে সামনে ব্যস্তসূচি অপেক্ষা করছে মাশরাফি, সাকিব, মুশফিকদের জন্য। প্রতিকূল কন্ডিশনে সামনের কঠিন দিনের জন্য প্রস্তুত টাইগাররা। বিপিএল তাদের সেই প্রস্তুতিকালীন বড় নিয়ামক হয়ে কাজ করছে।

এ যাত্রায় বোলারদের আত্মবিশ্বাস তুঙ্গে। চলমান বিপিএলে নিয়মিত আলো ছড়িয়েছেন বোলাররা। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের প্রস্তুতিটা ঠিক প্রত্যাশিত হয়নি। ব্যতিক্রম মুশফিকুর রহিম। এবারের আসরে ব্যক্তিগত ৪০০ ছাড়িয়েছেন চিটাগং ভাইকিংস অধিনায়ক। কাল এলিমিনিটর ম্যাচে ঢাকার বিপক্ষে হেরে টুর্নামেন্ট শেষ হয়ে গেছে মুশফিকদের। তবে তার দল ভাইকিংস ছিটকে গেলেও নিজের পারফরম্যান্সে খুশি মুশফিক। যা আসন্ন নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছে তাকে।

চলতি আসরে ১৩ ম্যাচে ৪২৬ রান তোলা উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান মুশফিক জানিয়েছেন, নিউজিল্যান্ড সফরের আগে যে ক’দিন সময় আছে একটু বিশ্রাম নিতে হবে। যাতে করে নিউজিল্যান্ড সফরে সবটুকু নিংড়ে দেওয়া যায়। তবে মুশফিক মনে করেন নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য তাদের আর আলাদাভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে না।

এ বছরের শুরুতে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ৪-১ ব্যবধানে জয় তুলে নিয়েছে ভারত। তবু কিউইদের বোলিং লাইনকে শক্ত এবং তাদের মাটিতে উইলিয়ামসন বাহিনীকে এগিয়ে রাখছেন মুশফিক। কাল বিপিএল থেকে ছিটকে যাওয়ার পর তিনি বলেছেন, ‘নিউজিল্যান্ড চ্যালেঞ্জ অনেক কঠিন। বিশেষ করে ওয়ানডে ফরম্যাটে তার বেশ শক্তিশালী। সম্প্রতি তাদের হারিয়েছে ভারত। কিন্তু তারপরও তারা ভালো লড়াই করেছে। আমার বিশ্বাস, আমাদের যে দল যাবে ভালো করবে।’

নিউজিল্যান্ড শক্তিশালী। পরিসংখ্যানও তাই বলে। এ নিয়ে ৩১ বারের সম্মুখীন লড়াইয়ে ২১ বারই জয় পেয়েছে নিউজিল্যান্ড। আর ১০ বার বাংলাদেশ। তবে বর্তমান প্রেক্ষাপট ভিন্ন। হারের দূরত্ব অনেকটাই কমিয়ে এনেছে টাইগাররা। শুধু তাই নয়, কিউইদের বিপক্ষে লড়াকু একটা মনোভাবও চলে এসেছে। যেটার প্রতিফলন সবশেষ দুই ম্যাচে।

বাংলাদেশের আত্মবিশ্বাসের উৎস সেটাই, ‘আপনি নিশ্চয়ই খেয়াল করলে দেখবেন, আমরা সর্বশেষ যখন সেখানে গিয়েছিলাম তখন আমরা দুইটা ওয়ানডেতে খুব কাছে গিয়ে হেরেছিলাম, যা আমাদের জেতা উচিত ছিল। কারণ নেলসনে যে ওয়ানডে বা ক্রাইস্টচার্চের ম্যাচে আরেকটু ভালো খেললে আমরা জিততে পারতাম। আমার মনে হয় এটা বিশ্বকাপের আগে আমাদের জন্য খুব ভালো একটা প্রস্তুতি হবে। এখানে কিছু হাই স্কোরিং ম্যাচ হতে পারে। সেদিক থেকে এটা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ হবে।’

আসলে মুশফিক এসেছিলেন বিপিএল ম্যাচ নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে। যার অধিকাংশ প্রশ্নই ছিল আসন্ন নিউজিল্যান্ড সফর ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিয়ে। যাওয়ার সময় মুশফিক তাই রসিকতার ছলে বলে গেলেন, ‘বিপিএলের ম্যাচের নয়, মনে হচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সংবাদ সম্মেলনে এসেছি!’ মুশফিকের যেখান থেকে শেষ হলো সেখানেই শুরু হলো ঢাকা ডায়নামাইটসের পেসার রুবেল হোসেনের।

যিনি মুশফিকের কথাগুলো শুনেছেন। জাতীয় দলের সতীর্থের কণ্ঠে সুর মেলালেন তিনি। রুবেল বলেছেন, ‘মুশফিক ভাই ঠিকই বলেছেন। নিউজিল্যান্ডে আমরা অনেক সফর করেছি। ওখানে দেখেছি কেমন উইকেট হয়। মাঝে মাঝে ব্যাটিং সহায়ক উইকেটও হয়। তো আমার কাছে মনে হয় খুব ভালোই হবে। ওখানে আমাদের সবাই ভালোভাবে অনুশীলন করবে। ওই কন্ডিশন আর আমাদের কন্ডিশন এক নয়। আমাদের জন্য সুবিধা যে আমরা প্রত্যেকে খেলার মধ্যে আছি। এটা খুব কাজে দেবে।’

বিপিএলের কারণে এক সঙ্গে নিউজিল্যান্ড সফরে যেতে পারছে না বাংলাদেশ দল। স্কোয়াডে থাকা খেলোয়াড়দের মধ্যে যারা ফাইনালে উঠবে তারা ঢাকা ছাড়বেন ৯ ফেব্রুয়ারি। তবে ৭ ফেব্রুয়ারি নিউজিল্যান্ড সফরে যাবে বাংলাদেশ দলের প্রথম বহর। আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। এরপর তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে টাইগাররা। তবে মূল লড়াইয়ের আগে নিউজিল্যান্ডে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

পিডিএসও/তাজ