দিন শেষে স্বস্তিতে বাংলাদেশ

প্রকাশ : ২২ নভেম্বর ২০১৮, ১৭:০৮ | আপডেট : ২২ নভেম্বর ২০১৮, ২০:৪১

অনলাইন ডেস্ক

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে মুমিনুল হকের সেঞ্চুরিতে স্বস্তিতে ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু মিডল অর্ডারের ধস শেষ বিকেলে জাগায় আশঙ্কা। মেহেদী হাসান মিরাজ ও তাইজুল ইসলামকে ক্রিজে উপযুক্ত সঙ্গ দিয়ে সেখান থেকে দলকে টেনে তুলেছেন স্পিনার হিসেবে অভিষেক হওয়া নাঈম হাসান। ৮ উইকেটে ৩১৫ রানে প্রথম দিনের খেলা শেষ করেছে বাংলাদেশ।

শুরুতে হোঁচট খেয়েছিল বাংলাদেশ। মাত্র তিন বল মোকাবিলা করে তারা হারায় প্রথম উইকেট। এক বছরেরও বেশি সময় পর টেস্টে ফেরা সৌম্য সরকার ২ বলে কোনও রান না করে কেমার রোচের বলে শেন ডাউরিচের শিকার হন।

আশঙ্কাজনক শুরুর ধকল বাংলাদেশ কাটিয়ে ওঠে ইমরুল কায়েসের সঙ্গে মুমিনুলের দারুণ জুটিতে। একপ্রান্তে বেশ সতর্ক ব্যাট করতে থাকেন ইমরুল, অন্যদিকে রানের গতি বাড়াতে থাকেন মুমিনুল। তাদের প্রথম সেশনে একশ ছাড়ানো জুটি গড়েন দুজনে। যদিও ইমরুলের বিদায়ে শেষ হয়েছে সকালটা। জোমেল ওয়ারিকানের ওভারস্টেপিং নো বলে ১৬ রানে জীবন পাওয়া এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ৪৪ রান করে তারই শিকার হন। ৮৭ বলের ইনিংস খেলে শর্ট লেগে সুনীল আমব্রিসের সহজ ক্যাচ হন ইমরুল।

তার আগে ৬৯ বলে হাফসেঞ্চুরি করেন মুমিনুল। ৫৫ রানে অপরাজিত থেকে প্রথম সেশন শেষ করা এই ব্যাটসম্যান ১৩৫ বলে ৯ চার ও ১ ছয়ে সেঞ্চুরিও পেয়ে যান। ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরিতে দ্বিতীয় সেশনেও দাপট ধরে রাখেন মুমিনুল। লাঞ্চ থেকে চা বিরতিতে যাওয়ার আগে কেবল আর একটি উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। মুমিনুলের সঙ্গে ৪৮ রানের জুটি গড়ে মাঠ ছাড়েন মোহাম্মদ মিঠুন। ২০ রানে দেবেন্দ্র বিশুর বলে ডাউরিচের হাতে ক্যাচ দেন তিনি।

৩ উইকেটে ২১৬ রানে চা বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। ১১৬ রানে অপরাজিত ছিলেন মুমিনুল। কিন্তু শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের বলে হঠাৎ করে ভেঙে পড়ে তাদের ব্যাটিং লাইনআপ। মাত্র ১৩ রানের ব্যবধানে ৪ উইকেট হারায় তারা।

শেষ সেশনের দ্বিতীয় ওভারে জোড়া আঘাত হানেন গ্যাব্রিয়েল। ১৬৭ বলে ১০ চার ও ১ ছয়ে ১২০ রান করে মুমিনুল তার শিকার হন। ওই ওভারেই মুশফিকুর রহিম ৪ রানে এলবিডাব্লিউ হন। গ্যাব্রিয়েল তার পরের দুই ওভারে মাহমুদউল্লাহ (৩) ও সাকিবকে (৩৪) বোল্ড করেন।

শুরুতেই হোঁচট খায় বাংলাদেশ২৩৫ রানে ৭ উইকেট হারানোর পর বাংলাদেশ প্রতিরোধ গড়ে মেহেদী হাসান মিরাজ ও নাঈম হাসানের ব্যাটে। তাদের ৪৪ রানের জুটি ভাঙেন ওয়ারিকান। ২২ রানে বোল্ড হন মিরাজ।

তাইজুল ইসলাম জীবন পান রিভিউ নিয়ে। বিশুর বল তার ব্যাট ছুঁয়ে প্যাডে লাগলেও সফরকারীদের জোরালো আবেদনে আউট দেন আম্পায়ার আলীম দার। সেই সিদ্ধান্ত পাল্টে যায় রিভিউয়ে। আরেকবার পাকিস্তানি আম্পায়ারের আউটের সিদ্ধান্ত বাতিল হয় তাইজুল রিভিউ নিলে। ১৩ রানে দ্বিতীয়বার জীবন পাওয়া এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান ৩২ রানে দিন শেষ করেন।

নাঈমের সঙ্গে ৫৬ রানের অপরাজিত জুটিতে দিন শেষ করেন তাইজুল। ৬০ বলে ২৪ রানে অপরাজিত ছিলেন নাঈম।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে গ্যাব্রিয়েল ৪ উইকেট নেন। দুটি পান ওয়ারিকান।

পিডিএসও/রিহাব