পাকিস্তানকে গুঁড়িয়ে ফাইনালে ভারত

প্রকাশ : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:২৩ | আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:২৬

অনলাইন ডেস্ক

শেষ পর্যন্ত রোহিত শর্মা অপরাজিত থাকলেন ১১১ রানে। এর আগে এশিয়া কাপের এবারের আসরে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন শিখর ধাওয়ান। রান আউট হওয়ার আগে ১০০ বলে করেছেন ১১৪ রান। দুইজনে মিলে কাল দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে সুপার ফোরের যুদ্ধে পাকিস্তানের বোলারদের তুলোধুনো করে ছেড়েছেন। মোহাম্মদ আমির, হাসান আলিদের পাড়ার মাঠের বোলার বানিয়ে নিরবচ্ছিন্ন ওপেনিং জুটিতে তুলেছেন ২১০ রান। ভারতও পাকিস্তানের দেয়া ২৩৮

রানের টার্গেট পার হয়েছে ৯ উইকেট হাতে রেখে। বলতে গেলে হেসে খেলেই এক ম্যাচ হাতে রেখে টানা দ্বিতীয়বার ফাইনালে উঠেছে ভারত।

ভারত এশিয়া কাপের শিরোপা জিতেছে সাতবার। গত আসরেও বাংলাদেশকে কাঁদিয়ে শিরোপা জিতেছে ভারত। তবে এবার আরব আমিরাতে ভেন্যু হওয়ায় ফেভারিট হিসেবে এগিয়ে ছিল পাকিস্তান। কিন্তু ভারতের সঙ্গে দুইবারের দেখাতে কোনো পাত্তায় পায়নি সরফরাজ আহমেদের দল। উল্টো ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের হাতে নাকানি-চুবানি খেতে হলো পাকিস্তানি বোলারদের।

ম্যাচটা একপেশে বানিয়ে দিয়েছেন মূলত শিখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মা। শুরু থেকেই পাকিস্তানি বোলারদের ওপর চড়াও হয়ে দুইজনে তুলে নিয়েছেন সেঞ্চুরি। সেঞ্চুরি করার পথে ধাওয়ান হাঁকিয়েছেন ২ ছয় ও ১৬ টি চার। অন্য পাশে রোহিত শর্মাও সমানতালে তুলোধুনো করেন পাকিস্তানি বোলারদের। ভারতীয় অধিনায়ক মেরেছেন ৭ চার ও ৪টি ছক্কা। রান আউটে সাজঘরে ফিরলেও কাজের কাজটা করে দিয়ে গেছেন ধাওয়ান। অম্বিত রাইডু নামলেও কেবল সঙ্গ দিয়ে গেছেন রোহিতকে।

এর আগে অবশ্য পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের বড় পরীক্ষা নিয়েছে ভারতীয় বোলাররা। টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তানের ওপেনিং জুটিতে ৮ ওভারে আসে মাত্র ২৪ রান। এরপরই যুজুবেন্দ্র চাহালের বলে ২০ বলে ১০ রান করে সাজঘরে ফিরেন ইমাম-উল-হক। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে স্কোর বোর্ডে ৫৮ রান উঠতেই পাকিস্তান হারিয়ে ফেলে ৩ উইকেট। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে দলকে টেনে তুলেন অধিনায়ক সরফরাজ ও শোয়েব মালিক। এই দুইজনের জুটি থেকে এসেছে মহামূল্যবান ১০৭ রান। কুলদীপ যাদবের বলে আউট হওয়ার আগে সরফরাজ করছেন ৪৪ রান। অধিনায়কের বিদায়ের পর আসিফ আলিকে নিয়ে জুটি গড়েন শোয়েব মালিক। পেয়েছেন ব্যাক টু ব্যাক হাফ সেঞ্চুরি।

দলীয় ২০৩ রানের মাথায় তিনি ফেরেন বুমরাহর বলে। ২ ছয় ও ৪ চারে মালিক করেছেন ৭৮ রান। শেষদিকে আর কেউ তেমন বড় কোনো স্কোর করতে পারেননি। আসিফ আলির ৩০ রানের ঝড়ো ইনিংসের পরপরই একের পর এক উইকেট বিলিয়ে এসেছে পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানরা। ২টি করে উইকেট ভাগাভাগি করে নিয়েছেন বুমরাহ, চাহাল ও যাদব। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন শিখর ধাওয়ান।

পিডিএসও/তাজ