বিতর্ক নিয়ে ভাবছেন না সৌম্য সরকার

প্রকাশ : ৩০ আগস্ট ২০১৮, ১৫:৫৭

ক্রীড়া প্রতিবেদক

মাঠে দুর্দান্ত সময় কাটছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। কিন্তু মাঠের বাইরে বেশ অস্থিরতায় ভুগছে টাইগাররা। কদিন আগেই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সঙ্গে পৃষ্ঠপোষণার চুক্তি বাতিল করেছে মুঠোফোন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠার রবি। এ নিয়ে বেশ সরগরম দেশের ক্রিকেট অঙ্গন। এর মধ্যে আবার ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত সংকট।

আগামী মাসের মাঝামাঝিতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে শুরু হবে এশিয়া কাপের ১৪তম আসর। আসন্ন টুর্নামেন্টের জন্য ৩০ সদস্যের প্রাথমিক দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ। প্রাথমিক দলে থাকা এসব ক্রিকেটারকে নিয়ে শুরু হয়েছে টাইগারদের কন্ডিশনিং ক্যাম্প। এই ক্যাম্পে আছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। যার বিরুদ্ধে আপাতত চলছে স্ত্রীর করা নারী নির্যাতন মামলা। বিষয়টা নিয়ে বেশ বিব্রত বিসিবি।

সৈকতের কাণ্ড, রবির চুক্তি বাতিল সবমিলিয়ে ক্রিকেট থেকে বেরুচ্ছে একের পর এক নেতিবাচক সংবাদ। বুধবার সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে আসা সৌম্য সরকারকে প্রশ্নই করা হলো সৈকতের ইস্যু নিয়ে। উত্তরে সৌম্য বলেছেন, ‘এটা যার যার ব্যক্তিগত বিষয়। এখন যেহেতু ক্যাম্প শুরু হয়ে গিয়েছে আমরা চেষ্টা করছি, ব্যক্তিগত নেতিবাচক বিষয় সামনে না এনে ইতিবাচক বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে। যেহেতু এশিয়া কাপ সামনেই, ১৫-১৬ দিন পরে। সবার চোখ সেখানেই। বড় টুর্নামেন্ট কীভাবে ভালো করা যায়, সেভাবে অনুশীলন করছে সবাই।’

একই প্রসঙ্গে ফের প্রশ্ন উঠায় বিরক্ত হয়ে সৌম্য বলেছেন, ‘ভাই, ১৫ দিন পরই খেলা। সবার চিন্তা এশিয়া কাপ নিয়ে। কীভাবে ভালো খেলা যায়, সেটা নিয়ে আমরা ভাবছি। এ নিয়ে চিন্তা করার কোনো সময় নাই কারও। দল কীভাবে ভালো করবে, সেটা নিয়ে সবাই চিন্তা করতে চাই।’

অবশ্য নেতিবাচক ঘটনা নিয়ে কেই-বা চিন্তা করতে চায়? কিন্তু উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো ঘটনাই তো ঘটাচ্ছেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। এর বিতর্কিত ঘটনা বেশি ঘটাচ্ছেন তরুণ খেলোয়াড়েরা।

মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম কিংবা মাহমুদউল্লাহ- জাতীয় দলকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন একযুগের বেশি সময় ধরে। কারও বিরুদ্ধে শোনা যায়নি নারীঘটিত কিংবা গৃহকর্মী নির্যাতনের মতো অভিযোগ। তরুণ ক্রিকেটাররা একটু প্রচারের পাদপ্রদীপে এলেই তাদের বিরুদ্ধে উঠছে নানা অভিযোগ। আর যাদের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ উঠছে, সেটির প্রভাব পড়ছে তাদের পারফরম্যান্সেও।

পিডিএসও/তাজ