অপ্রতিরোধ্য ব্রাজিল

প্রকাশ : ০৪ জুলাই ২০১৮, ১৬:২০ | আপডেট : ০৪ জুলাই ২০১৮, ১৬:২৯

ক্রীড়া ডেস্ক

রাশিয়া বিশ্বকাপে একটু একটু করে যেন নিজেদের খোলস খুলছে ব্রাজিল। গ্রুপ পর্বে নিজেদের ঝলকটা তেমন দেখাতে না পারলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ঠিকই ছন্দটা খুঁজে নেয় সেলেকাওরা। পরশু আরেকবার নিজেদের সেই পুরনো ঐতিহ্যবাহী ফুটবলের কথাটা স্মরণ করিয়ে দিল পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। সামারা অ্যারেনায় তারা কেবল সুবাসই ছড়াননি, মেক্সিকোর বিপক্ষে জয় নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালও নিশ্চিত করেছে টিটের শিষ্যরা।

বিশ্বকাপে আসার আগেই ‘হেক্সা’ জয়ের অভিপ্রায়টা বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দিয়েছিল ব্রাজিল। কিন্তু পথটা যে কণ্টকাকীর্ণ তা আগেই বুঝেছিল ল্যাটিন পরাশক্তিরা। তবে দলটা ব্রাজিল। যাদের ছাড়া কল্পনা করায় যায় না বিশ্বকাপের ইতিহাস। পরশু তারই প্রমাণ দিল সেলেকাওরা। আন্ডারডগদের বিশ্বকাপে একে একে ফেভারিট জার্মানি, আর্জেন্টিনা, পর্তুগাল, স্পেন বাড়ি ফিরে গেলেও দুর্দম্য মানসিকতা নিয়ে টিকে আছে ব্রাজিল। শেষ আটে ব্রাজিল প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে বিশ্বকাপের কালো ঘোড়া বেলজিয়ামকে। ৬ জুলাই এই দুই দলের লড়াইটা হবে কাজান অ্যারেনায়।

গত আসরে সেমিফাইনালে ঘরের মাঠ মারাকানায় জার্মানির বিপক্ষে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর ব্রাজিলকে শিরোপা জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছে কোচ টিটে। মূলত তার অধীনেই অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে নেইমার-কুতিনহোরা। গত ২৫ ম্যাচে ১৯ জয় পাওয়া দলটি কেবল হেরেছে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে। মেক্সিকোর বিপক্ষে ম্যাচ জিতে দলের এই অপারেজয় থাকার খবরটা কিঞ্চিৎ জানিয়েও দিলেন টিটে, ‘ভারসাম্যের জন্য দলে আমি শক্তিশালী চরিত্রের অধিকারী খেলোয়াড়দেরই প্রাধান্য দিয়ে থাকি। আমি সব সময় দল নির্বাচনেও তাই করে থাকি।’

ব্রাজিল পরশু ম্যাচই জিতেনি, নিজেদের করে নিয়েছে একটি রেকর্ডও। জার্মানি ২২৬ গোলকে টপকে বিশ্বকাপে ২২৮ গোলের মালিক এখন সেলেকাওরা। অন্যদিকে প্রতিপক্ষ মেক্সিকো ১৯৯৪ বিশ্বকাপ থেকে দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে বাদ পড়ার ইতিহাসটা অব্যাহত রাখল। এই নিয়ে টানা ৭ বার শেষ ষোলো থেকে ঘরে ফিরতে হয়েছে মেক্সিকানদের। সেই ১৯৮৬ সালে ঘরের বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছিল দলটি।

মাঠে ফুল হয়ে ফুটতে ব্রাজিলকে তার কাক্সিক্ষত জয়টি এনে দিয়েছেন নেইমার। গোল করেছেন, গোল করিয়েছেন। ম্যান অব দ্য ম্যাচটিও ভাগিয়ে নিয়েছেন বিশ্বের এই দামি ফুটবলার। গত ম্যাচগুলোতে অনেকটা নিজের ছায়া হয়ে ছিলেন নেইমার। তবে তার দুর্দান্ত পারফরম্যান্স গোল দিয়ে মুখ বন্ধ করে দিলেন সমালোচকদের। জবাবটা যে মাঠে দিতে পছন্দ করেন, তা মুখে আঙুল রেখে বুঝিয়ে দিলেন এই ব্রাজিলিয়ান সেনসেশন।

কিন্তু এক সমালোচনার জবাব দেওয়ার পর আরেকটি সমালোচনার তীর সামলাতে হচ্ছে এই পিএসজি ফরওয়ার্ডকে। মাঠে খেলার চেয়ে ‘অভিনয়’ বেশি করেন বলে অনেকে সমালোচিত হতে হচ্ছে নেইমারকে। ম্যাচ শেষে তো মেক্সিকোর কোচ হুয়ান কার্লোস ওসারিও নেইমারের এমন আচরণকে ‘লজ্জাজনক’ হিসেবেও অভিহিত করলেন। তবে দল হারলেও ভালো খেলার জন্য শিষ্যদের প্রশংসাও করলেন তিনি। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আমরা শক্তিশালী ব্রাজিলের বিপক্ষে পায়ের সঙ্গে পা পাল্লা দিয়ে লড়াই করেছি। সুযোগ সৃষ্টি করার পরও আমরা গোল পায়নি। ম্যাচে মেক্সিকানরা মানসিকভাবে অনেক শক্তিশালী ছিল।’

পিডিএসও/তাজ