প্রধানমন্ত্রী ফিরলেই উদ্বোধন

ই-পাসপোর্টের যুগে বাংলাদেশ

প্রকাশ : ০৬ আগস্ট ২০১৯, ১২:৪৭

নিজস্ব প্রতিবেদক

অবশেষে ইলেকট্রনিক (ই-পাসপোর্ট) পাসপোর্টের যুগে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ। কোনো ভ্যাট ছাড়াই নতুন এই পাসপোর্টের সর্বোচ্চ ফি ধরা হয়েছে ১২ হাজার টাকা আর সর্বনিম্ন সাড়ে ৩ হাজার টাকা। লাগবে না কোনো সত্যায়নও। এছাড়া ডাউনলোড করেই ফরম পূরণ করা যাবে। আবার রি-ইস্যুর ক্ষেত্রে কোনো অতিরিক্ত তথ্য সংযোজন বা ছবি পরিবর্তনের প্রয়োজন না হলে ব্যক্তিগতভাবেও উপস্থিতির দরকার নেই। এমন সব সুবিধা রেখেই করা হচ্ছে নতুন এই পাসপোর্ট। আগামী ৮ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরলে ঈদের পর নতুন এই পাসপোর্ট কার্যক্রমের উদ্বোধন হবে। গতকাল সোমবার পাসপোর্ট অধিদফতর থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, বর্তমানে সাধারণ পাসপোর্ট করাতে ফি লাগে ভ্যাটসহ ৩ হাজার ৪৫০ টাকা ও অতি জরুরির জন্য ভ্যাটসহ ৬ হাজার ৯০০ টাকা। তবে এবার ভ্যাট ছাড়াই ইলেকট্রনিক পাসপোর্টের (ই-পাসপোর্ট) সর্বোচ্চ ফি ১২ হাজার টাকা এবং সর্বনিম্ন ফি সাড়ে ৩ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে সাধারণ আবেদনকারীদের জন্য সর্বোচ্চ ফি ২২৫ ডলার এবং সর্বনিম্ন ফি ১০০ ডলার ধরা হয়েছে। বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে শ্রমিক ও শিক্ষার্থীদের জন্য সর্বোচ্চ ফি ২২৫ ডলার এবং সর্বনিম্ন ফি ৩০ ডলার ধরা হয়েছে।

সবক্ষেত্রে ই-পাসপোর্ট ৪৮ ও ৬৪ পৃষ্ঠার হবে। পৃষ্ঠা অনুযায়ী আলাদা ফি নির্ধারণ করে গত ১ আগস্ট একটি পরিপত্র জারি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ। পরিপত্রে সাধারণ, জরুরি ও অতি জরুরি এ তিনভাবে ই-পাসপোর্টের ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। পাশাপাশি কাগজপত্র সত্যায়নের ঘর উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। পরিপত্র অনুযায়ী বাংলাদেশে আবেদনকারীদের জন্য ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৩৫০০ টাকা, জরুরি ফি ৫৫০০ টাকা ও অতীব জরুরি ফি ৭৫০০ টাকা এবং ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৫০০০ টাকা, জরুরি ফি ৭০০০ টাকা ও অতীব জরুরি ফি ৯০০০ টাকা। এছাড়া বাংলাদেশে আবেদনকারীদের জন্য ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৫৫০০ টাকা, জরুরি ফি ৭৫০০ টাকা ও অতীব জরুরি ফি ১০৫০০ টাকা এবং ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৭০০০ টাকা, জরুরি ফি ৯০০০ টাকা ও অতীব জরুরি ফি ১২০০০ টাকা।

বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে সাধারণ আবেদনকারী, শ্রমিক ও শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা আলাদা ই-পাসপোর্ট ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে সাধারণ আবেদনকারীদের জন্য ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১০০ ডলার ও জরুরি ফি ১৫০ ডলার এবং ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১২৫ ডলার ও জরুরি ফি ১৭৫ ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে সাধারণ আবেদনকারীদের জন্য ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১৫০ ডলার ও জরুরি ফি ২০০ ডলার এবং ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১৭৫ ডলার ও জরুরি ফি ২২৫ ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে।

এদিকে বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে শ্রমিক ও শিক্ষার্থীদের জন্য ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৩০ ডলার ও জরুরি ফি ৪৫ ডলার এবং ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৫০ ডলার ও জরুরি ফি ৭৫ ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে শ্রমিক ও শিক্ষার্থীদের জন্য ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১৫০ ডলার ও জরুরি ফি ২০০ ডলার এবং ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ১৭৫ ডলার ও জরুরি ফি ২২৫ ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। পরিপত্রে ই-পাসপোর্টের ফরম পূরণের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ই-পাসপোর্টের আবেদনপত্র অনলাইনেই পূরণ করা যাবে।

এছাড়া পিডিএফ ফরম্যাট ডাউনলোড করে যেকোনো কম্পিউটারে ফরমটি পূরণ করা যাবে। ই-পাসপোর্টের আবেদনের ক্ষেত্রে কোনো কাগজপত্র সত্যায়ন করার প্রয়োজন হবে না। এছাড়া কোনো ছবি সংযোজন করা এবং তা সত্যায়ন করার দরকার হবে না। ই-পাসপোর্টের আবেদনপত্র জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বা জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি) অনুযায়ী পূরণ করতে হবে। তবে অপ্রাপ্ত বয়স্ক (১৮ বছরের কম) আবেদনকারী যার জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) নেই তার পিতা এবং মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) নম্বর অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, ই-পাসপোর্টে কারো আবেদন ১৮ বছরের নিচে হলে জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি), ১৮ বছর হলে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বা জন্মনিবন্ধন সনদ (বিআরসি) এবং ১৮ বছরের বেশি হলে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) অবশ্যই লাগবে। তবে ১৮ বছরের নিচে সব আবেদনকারীর ই-পাসপোর্টের মেয়াদ হবে পাঁচ বছর। এতে বলা হয়েছে, টেকনিক্যাল সনদগুলো (যেমন—ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার ও ড্রাইভার) সংযুক্ত করতে হবে। এছাড়া এনওসি, জিও, প্রত্যয়নপত্র, পেনশন বই অবশ্যই সংযুক্ত করতে হবে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, নির্ধারিত মেয়াদ শেষ হলে পাসপোর্ট রি-ইস্যুর ক্ষেত্রে কোনো অতিরিক্ত তথ্য সংযোজন বা ছবি পরিবর্তনের প্রয়োজন না হলে ব্যক্তিগতভাবে উপস্থিতির দরকার নেই। রি-ইস্যুর ক্ষেত্রে যদি সংশোধনের প্রয়োজন হয় সেক্ষেত্রে ব্যক্তিগতভাবে সংশ্লিষ্ট পাসপোর্ট ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষের কাছে হাজির হওয়ার দরকার হতে পারে। কোনো ব্যক্তি মারা গেলে তার পাসপোর্ট বাতিলের জন্য কাছের পাসপোর্ট অফিস বা বাংলাদেশ মিশনে জমা দিতে হবে। বাতিল করা পাসপোর্ট আবেদনের ভিত্তিতে মৃত ব্যক্তির বৈধ উত্তরাধিকারদের কাছে ফেরত দেওয়া যাবে।

পিডিএসও/হেলাল