জামিন বা প্যারোল নিয়ে পাল্টাপাল্টি

প্রকাশ | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৯:০৫

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি আবার রাজনৈতিক আলোচনায় উঠে এলেও এটি নিয়ে নতুন কিছু ভাবছে না সরকার। বিষয়টি নতুন করে রাজনৈতিক আলোচনায় উঠে এলেও সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে নতুন কোনো আলোচনা নেই। বিষয়টিকে আইন-আদালতের ওপরই ছেড়ে দিতে চাচ্ছে সরকার।

তবে খালেদা জিয়া যদি প্যারোলে মুক্তির জন্য আবেদন করেন তাহলে বিষয়টি ভেবে দেখবে সরকার। যদিও বিএনপি বলছে প্যারোলে নয়, খালেদা জিয়া আইনগতভাবেই জামিন পাওয়ার যোগ্য। এ অবস্থায় বিষয়টি নিয়ে দুই পক্ষ পাল্টাপাল্টি অবস্থানের দিকেই যাচ্ছে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। গত শুক্রবার ওবায়দুল কাদের এটি গণমাধ্যমে জানানোর পর বিষয়টি আলোচনায় উঠে আসে। তবে ওবায়দুল কাদেরকে মির্জা ফখরুল ফোন করলেও খালেদার মুক্তির ব্যাপারে সরকারের আগের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন আসেনি বলে ওই সূত্রগুলো জানায়।

আলোচিত এ বিষয়টি সম্পর্কে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দুই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, এ ব্যাপারে খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে বা তার দল বিএনপির দিক থেকে কোনো আবেদন করা হয়নি। দুই মন্ত্রীর কাছে কোনো তথ্য নেই বলেও তারা জানান।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেন, প্যারোল রাজপথে চাইলে হয় না। এর জন্য দরখাস্ত করতে হয়। আমার জানা মতে তারা সেটা করেনি। তাই এ ব্যাপারে আমার মতামত দেওয়ারও তো কিছু নেই। প্যারোলের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করতে হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যদি মনে করে আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত প্রয়োজন, তবে ওই মন্ত্রণালয় আমাদের জানালে আমরা মতামত দিতে পারি।

বিষয়টি সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, এ বিষয়ে আমার কাছে কোনো তথ্য নেই। আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানি না। খালেদা জিয়ার প্যারোলের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে কোনো আবেদন আসেনি। তাই আমি কিছু বলতে পারব না। আবেদন আসলে বিবেচনা করা যেতে পারে।

গত ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে খালেদা জিয়ার সাজা এবং কারাঅন্তরীণ হওয়ার পর থেকেই বিএনপির পক্ষ থেকে মুক্তির দাবি জানানো হচ্ছে। খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তি হচ্ছে বা সরকার খালেদা জিয়া প্যারোলে মুক্তি দিতে পারে বলে বেশ কয়েকবার বিষয়টি রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনা উঠে এসেছে। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে বার বারই বলা হচ্ছে, খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি সরকারের হাতে নেই। এটি কোনো রাজনৈতিক মামলা নয়। দুর্নীতির মামলায় তার সাজা হয়েছে। তার মুক্তি হলে আইনি প্রক্রিয়াতেই হতে হবে।

এই প্রেক্ষাপটে গত শুক্রবার ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব আমার সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন, আলাপ হয়েছে। তাদের দলের পক্ষ থেকে তিনি খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়েছেন। তিনি আমাকে অনুরোধ করেছেন, আমি যেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে খালেদা জিয়ার প্যারোলের বিষয়টি বলি। আমি বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেছি।

তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়া যে মামলায় কারাগারে রয়েছেন, তা হচ্ছে দুর্নীতির মামলা। এটা কোনো রাজনৈতিক মামলা নয়। রাজনৈতিক মামলা হলে সরকার বিবেচনা করতে পারত। বিষয়টি এখন সম্পূর্ণ আদালতের এখতিয়ার। তবে প্যারোলের আবেদন করা হলে সরকার তা বিবেচনা করে দেখতে পারে।

এদিকে সরকারের এই অবস্থানকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা বলে আখ্যায়িত করছে বিএনপি। খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে মানবিক কারণে তাকে জামিন দেওয়া উচিত বলে দলের নেতারা বলছেন। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সরকার যদি কঠোর অবস্থানে থাকে তাহলে বিএনপি আদালতের মাধ্যমে সুরাহা করবে। পাশাপাশি আন্দোলনের মাধ্যমে তাকে মুক্ত করার বিষয় নিয়েও দলের নেতাকর্মীরা মত দিচ্ছেন।

পিডিএসও/হেলাল