ঐক্যফ্রন্টের টার্গেট তরুণ ভোটার, সুশাসন ও ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ

প্রকাশ : ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৫৬

বদরুল আলম মজুমদার
ama ami

ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী ইশতেহারে তরুণ ভোটাদের টানতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ইশতেহারে গুম খুন বন্ধ বেকারত্ব দূরীকরণসহ, মত প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর সবিশেষ জোর দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সুশাসন ও ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণসহ বেশকিছু বিষয়ে ভোটার আকৃষ্ট করার চমকপ্রদ আশাবাদ থাকছে ইশতেহারে। নতুন নতুন উদ্যোগের স্বপ্ন ও বিদ্যমান নানা ব্যবস্থার সংস্কারকে প্রাধান্য দিয়ে তৈরি করা হয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী ইশতেহার। দলের ইশতেহার প্রণয়ন কমিটির সফঙ্গ যুক্ত নেতাদের সঙ্গে কথা বলে এমন ধারণা পাওয়া যায়। ইশতেহার প্রণয়ন কাজ শেষ করে আনলেও তা ঘোষণা জন্য এখনো তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি। তবে ঐক্যফ্রন্টের একটি সূত্র জানায়, আগামী ১৭ তারিখ ইশতেহার প্রকাশ করতে পারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করতে পারলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গণতন্ত্র ও মানবাধিকারকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেবে। মানসম্মত কর্মমুখী শিক্ষাকে প্রধান্য দেয়ার মাধ্যমে তৈরি করা হবে দক্ষ ও কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী। দ্রুততম সময়ে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক শিক্ষিত বেকারের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা হবে। পুলিশ ও সামরিক বাহিনী ছাড়া কোনো সরকারি চাকরিতে থাকবে না বয়সসীমা। ক্ষমতার ভারসাম্য ও প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে দেয়া হবে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ।

কৃষক, শ্রমিক ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের মাধ্যমে দ্রুত কমিয়ে আনা হবে দারিদ্র্য। বৃহৎ প্রকল্প, সরকারি সেবা সংস্থা ও আর্থিক খাতে দুর্নীতি দমনের মাধ্যমে নিশ্চিত করা হবে সুশাসন। দুর্নীতির বিচার হবে বিশেষ ট্রাইব্যুনালে। ন্যায়পাল নিয়োগ, সিটি গভর্মেন্ট চালু ও সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের সংশোধন করা হবে। শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি, কৃষকদের উৎপাদিত পণ্যের নায্যমূল্য ও ভোক্তাদের ন্যায্য ক্রয়মূল্য নিশ্চিত করা হবে। চিকিৎসাসেবার বিকেন্দ্রীকরণসহ স্বাস্থ্য খাতের সংস্কার ও উন্নয়নে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হবে। প্রবাসীদের ভোটাধিকার নিশ্চিত ও নারীর ক্ষমতায়নে জোর দেয়া হবে। সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় স্থাপন ও সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিচার হবে বিশেষ ট্রাইব্যুনালে। বিচার ব্যবস্থাকে প্রভাবমুক্ত রাখার পাশাপাশি সংস্কার সাধন ও মামলাজট কমানোর বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হবে।

বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড এবং গুমের সংস্কৃতি বন্ধ করা, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল, পিএসসি-জেএসসি পরীক্ষা বাতিল, জেন্ডার বৈষম্য দূরীকরণ, পরিবেশবান্ধব সবুজ বাংলা ধারণা, ক্রিয়েটিভ শিল্পায়ন, আয় বৈষম্য দূরীকরণ, জনগণের করের টাকার সদ্ব্যবহার, পাচারকৃত দুর্নীতির টাকা ফেরত আনা, উন্নয়ন ব্যয় জনগণের উপকারে লাগানো, বিনিয়োগের ওপর রিটার্ন ফল পুরোপুরি সদ্ব্যবহার বিষয়গুলো নির্বাচনী ইশতেহারে থাকবে। নির্বাচিত হতে পারলে তাদের পাঁচ বছর মেয়াদি ক্ষমতায় যেসব প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে পারবেন সেসব বিষয়ে জোর দেয়া হয়েছে। বিএনপির নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী ইশতেহার প্রণয়ন কমিটি সূত্র এসব তথ্য জানিয়েছেন।

তারা জানিয়েছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দেশবাসীর প্রতি যে ভিশন ২০৩০ উত্থাপন করেছিলেন সেটার সমন্বয়ে ঐক্যফ্রন্টের প্রতিটি দলের প্রস্তাব ও পরামর্শ বিশ্লেষণ করে তৈরি করা হয়েছে এই ইশতেহার। ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটি তৈরিকৃত ইশতেহার চূড়ান্ত করে এর টুকিটাকি সংশোধন, সংযোজন ও বিয়োজন করে চূড়ান্ত করা হচ্ছে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ফ্রন্ট সরকার গঠন করতে পারলে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট বাতিল করা হবে। সরকারি পদক্ষেপ ও সরকারের পদধারীদের বিরুদ্ধে সমালোচনা, এমনকি ব্যঙ্গ-বিদ্রুপেরও অধিকার থাকবে। সামাজিক গণমাধ্যমসহ সব গণমাধ্যমের ওপর কোনো রকম প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সরকারি নিয়ন্ত্রণ থাকবে না। সূত্র জানায়, নিরাপদ জীবনের অধিকার নিশ্চিত করার বিষয়টি পাবে সর্বাধিক গুরুত্ব। ঐক্যফ্রন্ট ক্ষমতায় গেলে দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকা- এবং গুম পুরোপুরি বন্ধ হবে। রিমান্ডের নামে পুলিশি হেফাজতে যেকোনো ধরনের শারীরিক নির্যাতন বন্ধ করা হবে। সাদা পোশাকে কাউকে গ্রেফতার করা হবে না। বিপথগামী রাজনৈতিককর্মীদের হাত থেকেও নাগরিকরা সুরক্ষিত থাকবে। মামলাজট কমানোর জন্য নানা পদক্ষেপ নেয়া হবে। সেই সঙ্গে উচ্চ আদালতের বার্ষিক ছুটি ছয় সপ্তাহে সীমিত করা হবে।

ইশতেহারে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নিম্ন আদালতকে পুরোপুরি সুপ্রিম কোর্টের অধীনস্থ করা হবে। সবার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে শুধু অনাস্থা ভোট ও অর্থ বিল ছাড়া অন্য যেকোনো ক্ষেত্রে দলীয় এমপি দলের বিরুদ্ধে ভোট দিলেও তাদের সদস্য পদ শূন্য হবে না এমন সংশোধনী ৭০ অনুচ্ছেদে আনা হবে। সংসদের উচ্চকক্ষ সৃষ্টি করে বিভিন্ন দলের প্রাপ্য সদস্য সংখ্যা নির্ধারণে সংসদ নির্বাচনে প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যানুপাতিক প্রতিনিধিত্ব বিবেচনায় নেয়া হতে পারে। পরপর দুই মেয়াদের বেশি প্রধানমন্ত্রী থাকা যাবে না। ক্ষমতার ভারসাম্য আনতে বিবেচনায় রাখা হবে সব সংসদীয় কমিটিতে বিরোধী দলের অর্ধেক সদস্য রাখার বিষয়টি। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার ভারসাম্য আনা হবে। জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার বিরোধী দল থেকে হবে। প্রতিটি সাংবিধানিক কমিটিতে বিরোধী দল ও নারী সদস্যদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হবে। জনকল্যাণে প্রশাসনিক কাঠামো বিভাগীয় পর্যায়ে বিন্যস্ত করার লক্ষ্যে কমিশন গঠন করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শিক্ষাব্যবস্থায় কিছু যুগোপযোগী পরিবর্তন আনা হবে। কর্মসংস্থানকে প্রাধান্য দিয়ে শিক্ষাব্যবস্থায় আমূল সংস্কারের জন্য কমিশন গঠন করা হবে। পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষা বাতিল করা হবে। সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। প্রথম বছর থেকেই ডাকসুসহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়মিত ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠান নিশ্চিত করা হবে। পুরোপুরি ভ্যাটমুক্ত থাকবে বেসরকারি শিক্ষা। মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের কারিগরি শিক্ষা দিয়ে বিদেশে কর্মসংস্থান করা হবে।

সূত্র জানায়, দায়িত্ব পেলে দুই বছরের মধ্যেই গার্মেন্ট শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ১২ হাজার টাকা করা হবে। সব খাতের শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করা হবে। গার্মেন্টসহ অন্য সব শিল্প এলাকায় শ্রমিকদের জন্য বহুতল ভবন নির্মাণের মাধ্যমে আবাসনের ব্যবস্থা করা হবে।

সূত্র জানায়, অতি দরিদ্র ও দুস্থদের জন্য বিনামূল্যে খাদ্য বিতরণ করা হবে। বয়স্ক ভাতা, দুস্থ মহিলা ভাতাসহ বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তদের ভাতার পরিমাণ ও আওতা বাড়ানো হবে। শ্রমিক ও ক্ষেতমজুরসহ গ্রাম ও শহরের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য সুলভ মূল্যে রেশনিং চালু করা হবে। পুনর্বাসন ছাড়া শহরের বস্তিবাসী ও হকারদের উচ্ছেদ করা হবে না। হতদরিদ্র মানুষের জন্য বিনামূল্যে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে দুর্নীতির তদন্ত করে তার সঙ্গে জড়িতদের বিচারের আওতায় আনা হবে। ন্যায়পাল নিয়োগ করা হবে। সংবিধান নির্দেশিত সব দায়িত্ব পালনে ন্যায়পালকে পূর্ণ স্বাধীনতা দেয়া হবে। দুর্নীতি দমন কমিশনকে সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেয়া হবে। দুর্নীতিবাজ সরকারি কর্মকর্তা গ্রেফতারে সরকারের অনুমতির বিধান (সরকারি চাকরি আইন-২০১৮) বাতিল করা হবে। ব্যাংকিং সেক্টরে লুটপাটে জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ব্যাংকগুলোকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকে সর্বময় ক্ষমতা দেয়া হবে। সরকারি মদদে শেয়ারবাজারে লুটপাটে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সূত্র জানায়, নারীর জন্য সংরক্ষিত আসনের প্রথার পরিবর্তে সরাসরি নির্বাচনের ক্ষেত্রে নারীর জন্য বাধ্যতামূলক ২০% মনোনয়নের বিধান করা হবে। এই বিধানের সঙ্গে আগামী পরের দুটি নির্বাচনের ক্ষেত্রে ৩০০ আসনের অতিরিক্ত ১০% সংরক্ষিত নারী সদস্যের বিধান থাকবে। সরকারি পর্যায়ে কর্মজীবী নারীদের সুবিধার জন্য পর্যাপ্ত ডে কেয়ার সেন্টার স্থাপন করা হবে। বেসরকারি ডে কেয়ার সেন্টার স্থাপন করার ক্ষেত্রে খুব সহজ শর্তে ঋণ দেয়া হবে। সূত্র জানায়, প্রবাসীদের ভোটাধিকার নিশ্চিত করা হবে। ইউরোপ, জাপানসহ এশিয়ার বিভিন্ন দেশের শ্রমশক্তি রফতানির জন্য নতুন নতুন বাজার খুঁজে বের করা হবে।

সূত্র জানায়, নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের সময় শিক্ষার্থীদের ওপরে নৃশংস হামলাকারীদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনা হবে। বড় শহরগুলোতে ট্রাফিক জ্যাম নিরসনকল্পে জরুরি পদক্ষেপ নেয়া হবে। শহরে গণপরিবহনকে প্রাধান্য দিয়ে পরিবহন নীতি প্রণয়ন করা হবে। মানুষের জন্য আরামদায়ক গণপরিবহনের ব্যবস্থা করা হবে। রেলখাতকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে সম্প্রসারণ করা হবে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহার প্রণয়ন সংশ্লিষ্ট নেতারা জানান, নির্বাচনকালীন সরকারের বিধান তৈরিসহ অন্যান্য পদক্ষেপ নেয়ার মাধ্যমে মানুষের মুক্তভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগের অধিকার নিশ্চিত করা হবে। দায়িত্বপ্রাপ্তির এক বছরের মধ্যে মানুষকে ভেজাল ও রাসায়নিকমুক্ত নিরাপদ খাদ্য পাওয়ার নিশ্চয়তা দেয়া হবে। মোবাইল ইন্টারনেটের খরচ অর্ধেকে নামিয়ে আনা হবে। দেশের বিভিন্ন গণজমায়েতের স্থানে ফ্রি ওয়াইফাইয়ের ব্যবস্থা করা হবে। সূত্র জানায়, সংখ্যালঘুদের মানবিক মর্যাদা, অধিকার, নিরাপত্তা ও সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে প্রতিষ্ঠা করা হবে সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয়। সংখ্যালঘুদের ওপর যেকোনো রকম হামলার বিচার হবে বিশেষ ট্রাইব্যুনালে।

পিডিএসও/হেলাল