বিএনপি মনোনয়ন বাণিজ্য করেছে : কাদের

প্রকাশ : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৪:১১ | আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৪:২৯

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপি এবারের নির্বাচনে রেকর্ড পরিমাণ মনোনয়ন বাণিজ্য করেছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

নির্বাচন কমিশনে বিএনপির প্রার্থীদের মনোনয়ন বাতিল করা নিয়ে বিএনপি নেতাদের অভিযোগের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগের কতজন আছে? ২৭৮ জন আছে। বিএনপির কত আছে? ৫৫৫ জন এখনো তাদের আছে? ইলেকশন করবে কয়জন? তিনশ আসনের মধ্যে ঐক্যফ্রন্ট আছে, শরিকরা আছে। সবাই কি বিএনপির? তাহলে ধরুন তিনশ জন প্রার্থী হবে, ৫৫৫ জন কোথা থেকে এলো। আমরা তো বিশ্বস্ত সূত্রে খবর পেয়ছি এবং গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে, ডালপালা বিস্তার করছে, বিএনপি এবার মনোনয়ন বাণিজ্যে রেকর্ড করেছে।

এই যে বাদ যাওয়া প্রার্থী, ঋণখেলাপী, দণ্ডিত, তাদেরকেও মনোননয়ন দিতে গেছে। তারপরও এখনো ১৪১ জন বাদ পড়ার পরও ৫৫৫ জনেরর নাম রয়ে গেছে। ৫৫৫ জনই বৈধ রয়েছে। এটা কি মনোনয়ন বাণিজ্য নয়? তাদের কোন কোন নেতা ঢাকা থেকে পালিয়ে গেছে। যারা য়ারা তাদের টাকা দিয়েছে এখন তারা তাদের বাড়িতে গিয়ে ধর্ণা দিচ্ছে। তাদের অনেক শীর্ষ নেতারাই এলাকায় গিয়ে ১০ তারিখের আগে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে গিয়ে আচরণবিধি ভঙ্গ করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

তাদের অনেকে মনোনয়ন বাণিজ্যের টাকা নিয়ে পালিয়ে গেছে বলেও দাবি করেন তিনি। সরকার বিএনপির প্রার্থীদেদের মনোনয়ন বাতিল করে পুতুল নাচের খেলা শুরু করছে, বিএনপি নেতার এমন বক্তব্যের বিষয়ে কাদের বলেন, তাদের মনোনয়ন প্রক্রিয়াই একটা পুতুল নাচের খেলা। সরকার কেন করবে? নির্বাচন কমিশন কি সরকারের? নির্বাচন কমিশন স্বাধীন কর্তৃত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ বিঘ্নিত করতে নানা ষড়যন্ত্র করছে বিএনপি। এজন্য তাবলিগ জামাতসহ অনেকের ওপর ভর করার চেষ্টা করছে। বিএনপি নেতা রিজভীর প্রতি ইঙ্গিত করে ওবায়দুল বলেন, নয়াপল্টন হচ্ছে মিথ্যাচারের ফ্যাক্টরি। সেখানে একজন আবাসিক নেতা রয়েছেন। তিনি সব সময়ই মিথ্যাচার করে বেড়াচ্ছেন।

জিয়া পরিবারকে নিশ্চিত করা বিষয়ক বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ইতিহাস বলে—জিয়া পরিবারই বঙ্গবন্ধু পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য সব ধরনের ষড়যন্ত্র করেছে। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের নিরাপদে কারা বিদেশ পাঠিয়েছিল, ইমডেননিটি অধ্যাদেশ জারি করে কারা খুনিদের বিচার বন্ধ করেছিল, কারা পঞ্চম সংশোধনী করেছিল, বিএনপি করেছিল।

১৫ আগস্টের নেপথ্যে তারাই ছিল, খুঁজলে তাই বেরিয়ে আসবে। তারাই আবার সেই খুনিদের পুরস্কৃত করেছে, পুনবার্সিত করেছে। আমাদের নেত্রীকে লক্ষ্য করে ২১ আগস্ট বোমা হামলা ঘটিয়েছিল। এর বিচার হয়েছে। আদালত রায় দিয়েছেন। আমরা জিয়া পরিবারকে নিশ্চিত করবো কিভাবে, তারাই তো বঙ্গবন্ধু পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিল, যা ইতিহাস প্রমাণ করছে। যোগ করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী কাদের।

বিএনপি নেতাদের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, খালেদা জিয়াসহ বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে আদালত আদেশ দিয়েছেন। এখানে রাজনৈতিকভাবে আমরা তাদের হয়রানি করিনি।

পিডিএসও/হেলাল