বিএনপির নেতৃত্বে কি পরিবর্তন আসছে?

প্রকাশ : ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:৪১ | আপডেট : ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:৫১

বদরুল আলম মজুমদার

দুর্নীতির দুইটি মামলায় সাজা মাথায় নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জেলখানায়। তাকে ছাড়া নির্বাচনে যাবে না বিএনপি এমন অবস্থান থাকলেও শেষ পর্যন্ত নির্বাচনের মাঠে নেমেছে দলটি। দল থেকে দাবি থাকলেও খালেদার মুক্তির বিষয়টিতে কোনো সুরাহা হবে কিনা তা এখনো অজানা। এদিকে জিয়া পরিবারের শূন্যতা ঘুচাতে বিএনপির হাইকমান্ড তারেক রহমানের স্ত্রী জোবাইদা রহমানকে দলে প্রাথমিক সদস্য পদসহ ভাইস চেয়ারম্যান পদে পদায়ন করবে বলে শোনা যাচ্ছে। বিএনপির নেতৃত্বে আসছেন জোবাইদা এমন আগ্রহের মূলে রয়েছে দলে জিয়ার পরিবারের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করা। খালেদা ও তারেকের অবর্তমানে জোবাইদাকে দিয়েই বেগম জিয়ার প্রতিনিধিত্ব তৈরি করা হচ্ছে বলে অনেকের মত।

গতকাল মনোনয়ন বিক্রির প্রথম দিনে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্য তিনটি মনোনয়ন ফরম কিনেন কেন্দ্রীয় নেতারা। কোনো কারণে খালেদা জিয়া নির্বাচনে আসতে না পারলে জোবাইদাকে নিয়ে সামনে এগোতে চায় বিএনপি। দলের মধ্যে এমন আলোচনা নেতাকর্মীদের মাঝে বেশ আশাও সঞ্চার করেছে। তারা মনে করছেন, জিয়া পরিবারকে বাদ দিয়ে বিএনপিকে অন্য কারো কর্তৃত্বে দিতে রাজি নয় তৃণমূল। তাদের আশঙ্কা, দলটি জিয়া পরিবার থেকে বের করার জন্য দেশি-বিদেশি নানা চক্র বেশ সক্রিয়। কেননা বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বিএনপিকে কোনোভাবে জিয়া পরিবারমুক্ত করতে পারলে বিএনপির রাজনীতির সঠিক পথ হারাতে পারে। আবার দলে বিভক্তি তৈরি করে অনেকে সুবিধা হাসিল করার জন্য কাজ করতে পারে। জোবাইদার দেশে আসার সেই প্রেক্ষাপটে কি না জানতে বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা হয় প্রতিবেদকের। কিন্তু কেউ এখন এ নিয়ে মুখ খুলতে চান না।

তবে পরিচয় গোপন করে বিএনপির তারেক ঘনিষ্ঠ এক নেতা প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, বিএনপিকে জিয়া পরিবার মুক্ত করতে দলে একটি সুযোগ সন্ধানী গ্রুপ সক্রিয় আছে। যারা দেশে ও বিদেশে নানা মহলের সঙ্গে উঠা বসা করে। তাদের গতিবিধিও দলের পক্ষ থেকে প্রতিনিয়ত পর্যবেক্ষণ করা হয়ে থাকে। বিএনপির শীর্ষ দুই নেতার জায়গায় অবশ্যই কেউ এগিয়ে আসবে এতে কোনো সন্দেহ নেই। এমন অবস্থায় খালেদার দুই পুত্রবধূকে মাঠে নামানো ছাড়া আর কোনো পথও খোলা নেই।

জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, দল কীভাবে চলবে তা নির্ধারণ করবেন আমাদের নেতাকর্মীরা। চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান আমাদের নেতা আছেন এবং থাকবেন। যখন সমস্যা হবে তখন সমাধানও হবে। এ নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই।

দলে জোবাইদাকে প্রাথিমক সদস্য পদ দেওয়ার বিষয়টি চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছে। লন্ডনের একটি সূত্র জানিয়েছে, তারেক রহমানের নির্দেশনা পেলেই দেওয়া হবে প্রাথমিক সদস্য পদ।

দলের সংশোধিত গঠনতন্ত্র গ্রহণ না করতে হাইকোর্ট নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) নির্দেশ দেওয়ার পর সাজাপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বিএনপির নেতৃত্ব হারাচ্ছেন? এরপরও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা জিয়া পরিবারের কাউকে দলের নেতৃত্ব রাখতে চাচ্ছেন। এজন্য সজ্জন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত জোবায়দা রহমানকে প্রাথমিক সদস্য পদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। জোবায়দা রহমানকে দলের নেতৃত্বে আনা হলেও দল চালাবেন তারেক রহমানই।

জানা গেছে, সম্প্রতি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায় জোবাইদা রহমানকে দলের দায়িত্বে আনতে তারেক রহমানের কাছে বার্তা পাঠিয়েছেন। সূত্র মতে, তারেক রহমানের সঙ্গে তার স্ত্রী জোবাইদা রহমান ও মেয়ে জাইমা রহমান লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়েছেন। এজন্য জোবাইদা রহমান দেশে আসতে পারবেন কিনা তা নিশ্চিত নয়।

পিডিএসও/হেলাল