সংলাপ সফল না হলে আন্দোলনে যাবে ঐক্যফ্রন্ট

নির্বাচন কমিশন অভিমুখে পদযাত্রার ঘোষণা

প্রকাশ : ০৬ নভেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৩ | আপডেট : ০৬ নভেম্বর ২০১৮, ২০:২০

অনলাইন ডেস্ক

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ও গণফোরাম সভাপতি  ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জনগণ জেগেছে, জনগণকে রুখার উপায় কারও নেই। জনগণকে শক্তভাবে দাঁড়াতে হবে। জেলায় জেলায়, থানায় থানায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন করতে হবে। রাস্তা, নৌপথ, রেলপথ বন্ধ করে জনগণকে নিষ্ক্রিয় রাখা যাবে না।

৭ দফা দাবি আদায়ে মঙ্গলবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এছাড়া আগামীকালের সংলাপে দাবি মানা না হলে ৮ নভেম্বর রাজশাহী অভিমুখে লংমার্চ ও তফসিল না পেছালে নির্বাচন কমিশন কার্যালয় অভিমুখে পদযাত্রা কর্মসূচি পালন করা হবে বলে সমাবেশ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়।

সমাবেশের বক্তব্যে বিএনপি মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়া জেলে যাবার সময় বলেছিলেন, কারাগার আমি ভয় পাই না। দেশের সব মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে আন্দোলনের নির্দেশনা তিনি (খালেদা) দিয়ে গেছেন। আজ আমরা জাতীয় নেতৃবৃন্দ ঐক্যবদ্ধ। ঐক্যবদ্ধ প্রক্রিয়াতেই দুঃশাসন থেকে মুক্তি, জনগণের শাসন নিশ্চিত করা হবে।

এ সময় সমাবেশে আসা নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ড. কামাল বলেন, দেশের মালিক হিসেবে আপনারা আজ এখানে দাঁড়িয়েছেন। আপনাদেরকে দেশের মালিক ভাবতে হবে। এটা কোনো ব্যক্তির রাষ্ট্র নয়। এদেশে কোনো রাজতন্ত্র নেই, রাজা নেই, মহারাণী নেই। দেশের মালিক ১৬ কোটি জনগণ। সরকারের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে আপোষহীনভাবে আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে। আমরা দেশে অন্যায় বন্ধ করবো। আমাদের ভোট কেন্দ্র পাহারা দিতে হবে। ভোটের স্বাধীনতা রক্ষা করতে হবে।

এর আগে দুপুর ২টার দিকে শুরু হওয়া এই সমাবেশে বিএনপির সহযোগী সংগঠন, ঢাকা ও আশপাশের জেলার সাবেক এমপি এবং জনপ্রতিনিধিরা যোগ দেন।

সমাবেশে প্রধান বক্তা ছিলেন জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব। বক্তব্য দেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নাল আবেদীন, যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, জেএসডির সহ-সভাপতি তানিয়া রব, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতন, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মাদ ইবরাহীম, জামাল মোস্তফা, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান খোকন, নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা এসএম আকরাম, বিকল্পধারা বাংলাদেশের (একাংশ)  চেয়ারম্যান ড. নুরুল আমিন ব্যাপারী, এলডিপি মহাসচিব রেদওয়ান আহমদ, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ক শহীদুল্লাহ কায়সার, খেলাফত মজলিশের মহাসচিব আহমদ আব্দুল কাদের, ইসলামী ঐক্য জোটের চেয়ারম্যান আব্দুর রকিব ও ছাত্রদল সভাপতি রাজীব আহসান প্রমুখ।

পিডিএসও/তাজ