ডিএসসিসির ৪ হাটে মিলল কয়েকগুণ বেশি দাম

প্রকাশ : ০৩ জুলাই ২০২০, ০৮:২১ | আপডেট : ০৩ জুলাই ২০২০, ০৮:৪০

হাসান ইমন

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকায় ১৪টি অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল। এর মধ্যে সরকারি দরের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি দাম উঠায় ৪ হাটের ইজারা সম্পূর্ণ করেছে সংস্থাটি। এছাড়া তিনটির জন্য কোনো দরপত্র জমা পড়েনি। আর বাকি ৭টি হাট সরকারি দর পায়নি। কাঙ্ক্ষিত দর না পাওয়ায় আগামী ৯ জুলাই দ্বিতীয় দফায় টেন্ডার আহ্বান করেছে সংস্থাটির সম্পত্তি বিভাগ।

ডিএসসিসি সূত্রে জানা যায়, সরকারি দরের চেয়ে বেশি দাম পাওয়া ৪টি হাটের ইজারা এরই মধ্যে সম্পূর্ণ হয়েছে। এর মধ্যে গোপীবাগে বালুর মাঠ ও কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গার সরকারি দরের চেয়ে প্রায় তিনগুণ দর বেশি উঠেছে। যা সরকারি দর ছিল ৮৭ লাখ ২০ হাজার ৬৮৫ টাকা। যার বিপরীতে দর উঠেছে ২ কোটি ৫২ লাখ টাকা। যা গত বছর ইজারা হয়েছে ১ কোটি ৮১ লাখ ৮১ হাজার ১৮১ টাকায়।

এছাড়া উত্তর শাহজাহানপুরের মৈত্রী সংঘ মাঠ এলাকার খালি জায়গার এ বছর দর উঠেছে ৩০ লাখ ৫০ হাজার টাকা। যার ইজারা মূল্য ধরা হয়েছে ৮ লাখ ৬৯ হাজার ৫৫৫ টাকা। যা গত বছর ইজারা হয়েছে ৮ লাখ ৪০ হাজার টাকায়। হাজারীবাগের ইনস্টিটিউট অব লেদার টেকনোলজি মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গার ইজারা মূল্য দরা হয়েছে ১ কোটি ৭ লাখ ৬ হাজার টাকা। যার বিপরীতে দর উঠেছে ১ কোটি ৩৫ লাখ ৫৫ হাজার ৫৫৫ টাকায়। যা গত বছর ইজারা হয়েছে ৯৮ লাখ টাকা।

পোস্তাগোলা শ্মশান ঘাট এলাকার খালি জায়গা ইজারা মূল্য ধরা হয়েছে ৩১ লাখ ৬৯ হাজার ৪০০ টাকা। যার বিপরীতে দর উঠেছে ৭০ লাখ ৫০ হাজার টাকা। যা গত বছর ইজারা হয়েছে ২৮ লাখ ৫ হাজার টাকা।

এছাড়া বাকি ১০টি হাটের মধ্যে মধ্যে ধূপখোলা মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গায় নির্ধারিত অস্থায়ী পশুর হাটে, শ্যামপুর বালুর মাঠ এবং দনিয়া কলেজ মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গার অস্থায়ী হাটের জন্য কোনো দরপত্র জমা পড়েনি।

ধূপখোলা মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গার অস্থায়ী হাটের জন্য সরকারি দর ছিল ৪৬ লাখ ৮১ হাজার ৩৩৪ টাকা, দনিয়া কলেজ মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গার জন্য সরকারি দর ছিল ১ কোটি ৫৪ লাখ ৪০ হাজার ৬৬৭ টাকা এবং শ্যামপুর বালুর মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গার অস্থায়ী হাটের জন্য সরকারি দর ছিল ১ কোটি ২ লাখ ১১ হাজার ৩৩৫ টাকা। কিন্তু এই তিনটি হাটের জন্য কোনো দরপত্র জমা পড়েনি।

এদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটির অস্থায়ী দুটি কোরবানির পশুর হাটে সরকারি দরের চেয়ে কয়েকগুণ কম মূল্যে দরপত্র জমা পড়েছে। এই দুটি হচ্ছে মেরাদিয়া বাজার ও আরমানিটোলা মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গার অস্থায়ী পশুর হাট। মেরাদিয়া বাজার সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গার হাটের সর্বোচ্চ দর উঠেছে ৯০ লাখ ৩ হাজার টাকা। তবে সরকারি দর ছিল ১ কোটি ৯ লাখ ৩৯ হাজার ৮০০ টাকা।

অন্যদিকে আরমানিটোলা মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গার অস্থায়ী হাটের সর্বোচ্চ দর উঠেছে ১ কোটি ১৫ লাখ টাকা। যার সরকারি দর ছিল ১ কোটি ৬৫ লাখ ২৮ হাজার ৫৪ টাকা।

আর বাকি ৫ হাটেরও কাক্সিক্ষত দর না পাওয়ায় ইজারা হয়নি। সেগুলো হলো কামরাঙ্গীরচরের ইসলাম চেয়ারম্যান বাড়ি থেকে দক্ষিণ বুড়িগঙ্গা বাঁধ পর্যন্ত খালি জায়গা। যার ইজারা মূল্য ছিল ৫ লাখ ৭২ হাজার ৪০০ টাকা। সাদেক হোসেন খোকা মাঠ সংলগ্ন ধোলাইখাল ট্রাক-স্ট্যান্ড এলাকা। যার সরকারি দর ছিল ২৬ লাখ ৮৭ হাজার ৮০৭ টাকা। আফতাব নগরের (ইস্টার্ন হাউজিং) ব্লক ই, এফ, জি ও এইচ এবং সেকশন-১ ও ২ এর খালি জায়গা। যার সরকারি দর ছিল ৬৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা। আমুলিয়া মডেল টাউনের খালি জায়গা। যার সরকারি দর ছিল ১১ লাখ ১৫ হাজার ৬৫০ টাকা। লালবাগের রহমতগঞ্জ খেলার মাঠের আশপাশের খালি জায়গা। যার সরকারি দর ছিল ১১ লাখ ৭৩ হাজার ৩৫০ টাকা। ডেমরা সারুলিয়া এলকায় ডিএসসিসির একটি স্থায়ী হাটেরও ইজারা সম্পূর্ণ হয়েছে।

এ বিষয়ে ডিএসসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন বলেন, গত সোমবার দরপত্রের বক্স খোলা হয়েছে। আজ মিটিংয়ের মাধ্যমে চারটি হাটের ইজারা চূড়ান্ত করে মেয়রের দফতরে পাঠিয়েছি। বাকি ১০টি হাটের কাঙ্ক্ষিত দর না পাওয়ায় ইজারা চূড়ান্ত হয়নি। এখন দ্বিতীয় দফায় টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। যা আগামী ৯ জুলাই টেন্ডার ড্র করা হবে।

পিডিএসও/হেলাল