রোববার থেকে যেসব ট্রেন চলাচল করবে

প্রকাশ : ২৮ মে ২০২০, ২২:২৭ | আপডেট : ২৮ মে ২০২০, ২৩:১৬

অনলাইন ডেস্ক

দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে ২ মাসেরও বেশি সময় বন্ধ থাকার পর আগামী রোববার (৩১ মে) থেকে সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। 

বৃহস্পতিবার সরকারি আদেশে বলা হয়েছে, স্বল্প যাত্রী নিয়ে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাস, লঞ্চ ও রেল চলাচল করবে। এজন্য এর আগে জাতীয় কমিটির মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি প্রণয়ন করা হয়েছে।

তবে ট্রেন যাত্রায় এক সিটে যাত্রী ও এক সিট খালি এই নিয়মে আগামী দু’সপ্তাহের জন্য অনলাইনে ট্রেনের টিকিট বিক্রির ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে।

রেল মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, সরকারের যাবতীয় নির্দেশনা অনুযায়ী ট্রেন পরিচালনায় বাংলাদেশ রেলওয়ে প্রস্তুত। ইতোমধ্যে কোন রুটে কয়টি ট্রেন চলবে তার রোডম্যাপ তৈরি করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচল করবে শুধু আন্তঃনগর ট্রেন। যদিও অনেক কর্মকর্তার দাবি, এভাবে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে রেল যাতায়াত কখনও স্বাস্থ্যবিধির সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। এজন্য চারভাগের একভাগ যাত্রী নিয়ে রেল চলাচল করা উচিত বলে মতামত ছিল তাদের।

রেলওয়ে সূত্র জানিয়েছে, দুটি গ্রুপে ভাগ করে ট্রেন পরিচালনা করা হবে। এর মধ্যে প্রথমে ‘ক’ গ্রুপে রাখা ট্রেনগুলো ৩১ মে থেকে পরিচালনা করা হবে।

এই ট্রেনগুলো হচ্ছে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে সুবর্ণ এক্সপ্রেস ও সোনার বাংলা এক্সপ্রেস, ঢাকা-সিলেট রুটে কালনী এক্সপ্রেস, ঢাকা-বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম রেলওয়ে স্টেশন রুটে পঞ্চগড় এক্সপ্রেস, ঢাকা-রাজশাহী রুটে বনলতা এক্সপ্রেস, ঢাকা-লালমনিরহাট রুটে লালমনি এক্সপ্রেস, চট্টগ্রাম-সিলেট-চট্টগ্রাম রুটে উদয়ন/পাহাড়িকা এক্সপ্রেস এবং ঢাকা-খুলনা রুটে চিত্রা এক্সপ্রেস।

আর ‘খ’গ্রুপে রাখা ট্রেনগুলো ৩ জুন থেকে পরিচালনা করতে সুপারিশ করা হয়েছে। এই ট্রেনগুলো হচ্ছে- ঢাকা দেওয়ানগঞ্জবাজার রুটে তিস্তা এক্সপ্রেস, ঢাকা-বেনাপোল রুটে বেনাপোল এক্সপ্রেস, ঢাকা-চিলাহাটি রুটে নীলসাগর এক্সপ্রেস, খুলনা-চিলাহাটি রুটে রূপসা এক্সপ্রেস, খুলনা-রাজশাহী রুটে কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস, রাজশাহী-গোয়ালন্দ ঘাট রুটে মধুমতি এক্সপ্রেস, চট্টগ্রাম-চাঁদপুর রুটে মেঘনা এক্সপ্রেস, ঢাকা-কিশোরগঞ্জ রুটে কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস এবং ঢাকা-নোয়াখালী রুটে উপকূল এক্সপ্রেস।

ট্রেন চালুর বিষয়ে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে কিছু আন্তনগর ট্রেন চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগে যে রুটে পাঁচটি আন্তনগর ট্রেন চলতো, সেই রুটে এখন দুটি ট্রেন চলবে। সেক্ষেত্রে একটা সিট বাদ দিয়ে টিকিট বিক্রি করা হবে। এভাবে আমরা দুই সপ্তাহ ট্রেন চালিয়ে দেখবো। তারপর সরকার থেকে নতুন কোনও নির্দেশনা এলে আমরা আবার বিষয়টি বিবেচনা করবো।

উল্লেখ্য, করোনার কারণে গত ২৫ মার্চ থেকে অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে মালবাহী ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

পিডিএসও/তাজ