দাঁড়িয়ে যাচ্ছে মেট্রোরেলও

প্রকাশ : ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫৩

নিজস্ব প্রতিবেদক

পদ্মা সেতুর পাশাপাশি দ্রুত এগিয়ে চলছে মেট্রোরেলের কাজ। নতুন বছরের শুরুতেই আসবে মেট্রোরেলের নমুনা। মেট্রোরেল নিয়ে নগরবাসীকে ধারণা দিতে উত্তরার দিয়াবাড়ীতে স্থাপন করা হবে এ নমুনা।

এদিকে রাজধানীর উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেলের পাত বসানো শুরু হচ্ছে শিগগিরই। প্রকল্পের উল্লিখিত অংশজুড়ে চলছে পাত বসানোরই পূর্ব প্রস্তুতি। মেট্রোরেল প্রকল্পের হিসাবে এ অংশের অগ্রগতি ৬০ শতাংশ। সব মিলিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়নের আশা দিন দিন বাড়ছে। দাঁড়িয়ে যাচ্ছে স্বপ্নের মেট্রোরেল; রাজধানীতে যোগ হচ্ছে বিশ্বমানের নগর যোগাযোগ ব্যবস্থা। যার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হবে ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর। এদিন স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করা হবে। মূলত দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতেই মেট্রোরেলের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হবে।

ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক জানিয়েছেন, মেট্রোরেল-৬-এর জন্য ট্র্যাক বসানোর প্রস্তুতি চলছে। আমাদের রেলওয়ে ট্র্যাক ইতোমধ্যে চলে এসেছে। ট্র্যাক বসানোর জন্য পূর্ব প্রস্তুতি লাগে। এখন সেই প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। নভেম্বরের শেষদিকে এসব ট্র্যাক বসানোর কাজ শুরু হয়ে যাবে। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশে ভায়াডাক্টের ওপর রেললাইন বসে যাবে। বাহ্যিকভাবে ডিসেম্বরে এটা দৃশ্যমান হবে।

উত্তরার দিয়াবাড়ীতে প্রকল্পের ডিপোতে নিয়োজিত কর্মীরা জানিয়েছেন, পাথর-বালুর মিশ্রণে সাব-বেইজের কাজ শেষ। সাব-বেইজের ওপর থাকবে পাথর, পাথরের ওপর সিøপার আর পাত বসবে। মেট্রোরেলের গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো পরিচালনা হবে ডিপো এলাকা থেকে। সেখানে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণের কর্মযজ্ঞ চলছে। ডিপোর ছাউনির জন্য ইস্পাতের কাঠামো তৈরি হয়ে গেছে। এখানে রেলের টেস্ট ট্র্যাক বেড, কোচ আনলোডিং এরিয়া, জ্যাক পিট, বগি টার্ন টেবল, বগি ওয়াশ প্লান্টসহ অন্যান্য অংশের ভিত্তি নির্মাণ করা হয়েছে। সব মিলিয়ে প্রস্তুতি বেশ ভালোই বলা চলে।

ঢাকায় প্রথম মেট্রো চলবে বিদ্যুতে। এক ঘণ্টায় দুপাশ থেকে ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহনের সক্ষমতা থাকবে নতুন এই যোগাযোগ খাতের প্রকল্পে। তাই বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র ও বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থা, জলাধার, প্রশাসনিক ভবন, মসজিদ, মেডিকেল সেন্টারসহ অন্য স্থাপনাও নির্মাণ হচ্ছে। মেট্রোরেল প্রকল্পের হিসেবে এ অংশের অগ্রগতি ৬০ শতাংশ।

ডিএমটিসিএলের হিসেবে, মেট্রোরেল-৬ প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি এখন পর্যন্ত ৩৫ ভাগ। এ প্রকল্পের প্রথমপর্যায়ে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অগ্রগতি ৫৫ শতাংশ এবং দ্বিতীয়পর্যায়ের আগারগাঁও থেকে মতিঝিল হয়ে কমলাপুর অংশের অগ্রগতি ২৪ দশমিক ৭৪ শতাংশ। প্রকল্পের ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেম এবং রোলিং স্টক ও ডিপো যন্ত্রপাতি সংগ্রহ কাজের অগ্রগতি ১৯ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

প্রতি চার মিনিট পর এক হাজার ৮০০ যাত্রী : মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রকল্প চালু হলে প্রতি ৪ মিনিট পরপর ১ হাজার ৮০০ যাত্রী নিয়ে চলবে মেট্রোরেল। ঘণ্টায় চলাচল করবে প্রায় ৬০ হাজার যাত্রী। প্রায় ২০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে সময় লাগবে ৪০ মিনিটের কম। ইতোমধ্যে প্রথম মেট্রোরেলের সামনের ও পেছনের নকশা এবং বাইরের রং চূড়ান্ত করা হয়েছে। এতে লাল-সবুজের প্রাধান্য রয়েছে।

এ বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ইতোমধ্যেই মেট্রোরেলের লোকোমোটিভের ডিজাইন চূড়ান্ত করেছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। ওই ডিজাইনের ভিত্তিতে জাপানের সংশ্লিষ্ট কোম্পানির কারখানায় লোকোমোটিভের রেপ্লিকা তৈরি করা হয়েছে। রেপ্লিকার ছবিও আমরা পেয়েছি। মেট্রোরেলের লোকোমোটিভে যেসব সুযোগ-সুবিধা থাকার কথা রয়েছে, সেগুলো ঠিক থাকলে চূড়ান্ত লোকোমোটিভ তৈরির জন্য বলা হবে।

পিডিএসও/হেলাল