বাঙালিকে মর্যাদার আসনে বসান বঙ্গবন্ধু

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০১৯, ১০:৫০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে মাত্র সাড়ে তিন বছর পেয়েছিল বাংলাদেশ। এ কম সময়ের শাসনামলেই বাঙালিকে আত্মমর্যাদার আসনে বসিয়ে যান। সরকারি দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি পরিবারের প্রতিও দায়িত্ববান ছিলেন বঙ্গবন্ধু। সব দিকেই তার ছিল বিশেষ মনোযোগ।

৭২ সালে মাওলানা আবদুর রশিদ তর্কবাগীশের নেতৃত্বে ৬ হাজারেরও বেশি মুসলিমকে হজে পাঠান বঙ্গবন্ধু। এ ছাড়া শেখ জামালের বিয়ের অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর অতিথিপরায়ণতা দেখেছেন তার সহকর্মীরা।

দেশের প্রতিটি এলাকার মানুষ যাতে সমান সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারে, সেজন্য বঙ্গবন্ধু প্রশাসনিক স্তরে বড় ধরনের পরিবর্তন আনেন। উচ্চ থেকে নিম্ন পর্যায় পর্যন্ত ঢেলে সাজান তিনি। শুধু শহরকে প্রাধান্য না দিয়ে গ্রামীণ উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দেন বঙ্গবন্ধু। তার বিশ্বাস ছিল, একটি দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন কখনই গ্রামকে অবহেলা করে সম্ভব নয়।

প্রশাসনিক কাঠামো নতুনভাবে গড়ে তোলার পাশাপাশি অন্য কাজও এগিয়ে চলে সেসময়। তাই মহকুমাকে বিলুপ্ত ঘোষণা করে ৬১ জেলা সৃষ্টি করেন। গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে ৫০০ চিকিৎসককে গ্রামে নিয়োগ দেন বঙ্গবন্ধু। তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রকল্প ছিল তার সরকারের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত। বিনাম্যূল্যে মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন তিনি। মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থাও করেন বঙ্গবন্ধু।

শিল্প-সংস্কৃতির অন্যতম পৃষ্ঠপোষক ছিলেন বঙ্গবন্ধু। ৭৪ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি তিনি শিল্পকলা একাডেমি প্রতিষ্ঠা করেন। জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম অসুস্থ হলে তাকে দেখতে বেশ কয়েকবার হাসপাতালে যান নজরুলভক্ত মুজিব।

পিডিএসও/তাজ