​ প্রকৌশলীদের উদ্দেশে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

‘প্রকল্প গ্রহণের আগে ব্যক্তি স্বার্থের চিন্তা বাদ দিন’

প্রকাশ : ০৫ আগস্ট ২০১৯, ১৯:৫৭

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, ঢাকার জলাবদ্ধতা উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া। এ শহরের ড্রেনেজ ব্যবস্থা খুবই দুর্বল। এ থেকে উত্তোরনের জন্য আপনাদের ভূমিকা প্রয়োজন। এ শহর বাঁচানোর জন্য আপনারাই সক্ষম। যে কোনো প্রকল্প হাতে নেওয়ার আগে ব্যক্তিগত স্বার্থের চিন্তা বাদ দিয়ে দেশের জন্য ভাবুন। দুর্নীতি না করে একটি ভালো কাজ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে উপহার দিন, তাহলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম আপনাকে মনে রাখবে।

সোমবার ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) ঢাকা কেন্দ্রের উদ্যোগে আয়োজিত ‘ঢাকা মহানগরীর জলাবদ্ধতার কারণ ও তা নিরসনের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আইইবি ঢাকা কেন্দ্রের সম্পাদক প্রকৌশলী মো. শাহাদাৎ হোসেন শিবলুর সঞ্চালনায় সভাপতিত্ব করেন ঢাকা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মো. ওয়ালিউল্লাহ সিকাদার। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, আইইবির প্রেসিডেন্ট এবং আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুর ও আইইবির সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী খন্দকার মনজুর মোর্শেদ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক এর পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. প্রকৌশলী মো. মুজিবুর রহমান।

মো. তাজুল ইসলাম বলেন, জলাবদ্ধতার জন্য বক্স কালভার্ট অন্যতম কারণ। নগরীতে বক্স কালভার্ট করা হয়েছে। এ কালভার্ট করার জন্য ওয়াল্ড ব্যাংক অর্থায়ন করেছে। কিন্তু সিঙ্গাপুর, মালেশিয়াসহ পৃথিবীর কোনো রাষ্ট্রে তারা অর্থায়ন করতে পারেনি। তাহলে কেন আমরা অর্থায়ন নিয়ে এ কাজটা করলাম। এ বক্স কালভার্ট করার জন্য প্রকোশলীদের একটা ভূমিকা ছিল। সুতরাং আপনারা ভালো পরামর্শ দেন, একটা ভালো কাজের জন্য যেন ভবিষ্যৎ প্রজন্ম আপনাদেরকে স্মরণ রাখে।

মন্ত্রী আরো বলেন, আপনারা আমেরিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ড্রেনেজ ব্যবস্থার উদাহরণ দেন। আমরা তাদের মতো করতে পারবো না। তবে আমাদের পরিবেশের সঙ্গে মিল রেখে আমরা ড্রেনেজ ব্যবস্থা তৈরি করবো। আসুন সব বিভেদ ভুলে একসঙ্গে কাজ করি। দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যাই।

সেমিনারে আরো বক্তব্য দেন, ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার মডেলিং এর নির্বাহী পরিচালক প্রফেসর ড. প্রকৌশলী এম. এনোয়ার হোসেন এবং বুয়েটের পানি সম্পদ কৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. প্রকৌশলী মো. আব্দুল মতিন।

পিডিএসও/রি.মা