বালিশকাণ্ডে জড়িত কর্মকর্তা ছাত্রদল নেতা ছিলেন : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ : ১৭ জুন ২০১৯, ২০:৫২

অনলাইন ডেস্ক

জাতীয় সংসদে রুপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রে দুর্নীতির প্রসঙ্গে কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা সংসদকে জানান, পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রের বালিশকাণ্ডের হোতা ছিলেন ছাত্রদলের নেতা। যিনি দায়িত্বে ছিলেন, তিনি বুয়েটে ছাত্রদলের নির্বাচিত ভিপি ছিলেন। তথ্য পাওয়ার পরপরই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছেন।

সোমবার জাতীয় সংসদে চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেট নিয়ে বক্তব্যে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। অর্থমন্ত্রীর অসুস্থতার কারণে তার পক্ষে প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদে সম্পূরক বাজেটের ওপর বক্তব্য রাখেন।

রুপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রে দুর্নীতির প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একজন বালিশ তত্ত্ব নিয়ে এসেছেন। পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রের ওই ঘটনায় যিনি দায়িত্বে ছিলেন, তার কিছু পরিচয় আমরা পেয়েছি। একসময় তিনি বুয়েটে ছাত্রদলের নির্বাচিত ভিপিও নাকি ছিলেন। তাকে সেখান থেকে সরানোও হয়েছে। যখনই তথ্য পেয়েছি, সঙ্গে সঙ্গে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি।

এর আগে সম্পূরক বাজেট নিয়ে বক্তব্যের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাজেট নিয়ে ভেতরে-বাইরে অনেক কথা হচ্ছে। কেউ কেউ এমনও বলছেন, বাজেট নাকি কিছুই না। যারা এ ধরনের মানসিকতা নিয়ে কথা বলছেন, তাদের কাছে আমার একটাই প্রশ্ন, বাজেট সঠিক না হলে মাত্র দশ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ এত উন্নতি করলো কী করে?

ব্যাংক খাতে লুট প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বলা হচ্ছে ব্যাংকে টাকা নেই। ব্যাংকে টাকা থাকবে না কেন? অবশ্যই টাকা আছে। তবে লুটে খাওয়ার টাকা নেই। ব্যাংক খাত যারা লুট করে নিয়ে গেছে তারা দেশান্তর হয়ে পড়ে আছে, অথবা দুর্নীতির দায়ে কারাগারে বন্দী। ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ফেরত দেয়নি, এ রকম বহু ঘটনা আছে। সময় এলে এ ব্যাপারে আরও আলোচনা করতে পারবো।’

বাজেট নিয়ে বিভিন্ন সমালোচনার জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কেউ বলছেন, বাজেট দিয়েছেন, বাস্তবায়ন করতে পারেননি। বাজেট যদি বাস্তবায়ন করতে না পারি তাহলে ২০০৮ সালে মাত্র ৬১ হাজার কোটি টাকার বাজেট পেয়েছিলাম, আজকে সেখানে ৫ লাখ কোটি টাকার ওপরে চলে গেছে। বাস্তবায়নের দক্ষতা না থাকলে এটা করলাম কীভাবে?

তিনি আরও বলেন, সরকারের উন্নয়নের অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জন, জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে সরকারের রাজস্ব আদায় ও ব্যয়ের প্রাক্কলন করা হয়। এই প্রাক্কলন করতে গিয়ে সঙ্গত কারণেই আমরা কিছুটা বেশি করি। রাজস্ব আদায়ে খানিকটা উচ্চাভিলাষী হওয়ার প্রয়োজনীয়তাও রয়েছে।

পিডিএসও/তাজ