মঙ্গলবার থেকে সংসদের বাজেট অধিবেশন

সবচেয়ে বড় বাজেট পাসের জন্য সব প্রস্তুতি সম্পন্ন

প্রকাশ : ১০ জুন ২০১৯, ০৮:১৮

গাজী শাহনেওয়াজ

একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম বাজেট অধিবেশন এবং ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের টানা ১১তম বাজেট অধিবেশন শুরু হচ্ছে মঙ্গলবার। এর আগে দশম জাতীয় সংসদ পর্যন্ত দলটি টানা ১০টি বাজেট জাতীয় সংসদে পাস করে।

বর্তমান সংসদের তৃতীয় তথা বাজেট অধিবেশন মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় শুরু হবে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আগামী ১৩ জুন বৃহস্পতিবার ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করবেন। প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে অধিবেশনে আলোচনা ও বাজেট পাস ছাড়া অর্থ বিলসহ কয়েকটি বিল পাস হবে। এছাড়া কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ কয়েকটি ইস্যুতে সাধারণ আলোচনা চাইবে বিএনপি দলীয় এমপিরা।

বিগত দিনগুলোর মতো এবারো বাজেট অধিবেশনকে ঘিরে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে জাতীয় সংসদ সচিবালয়। আমন্ত্রিত অতিথিদের আগমন উপলক্ষে সংসদ সচিবালয়কে সাজানো হয়েছে সবুজ গাছগাছালি দিয়ে। লাল গালিচা বিছানো হয়েছে মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে অভ্যর্থনা জানাতে। প্রতিবারের মতো এবারো রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ প্রেসিডেন্ট প্লাজা ব্যবহার করে সংসদ ভবনে প্রবেশ করবেন। এ উপলক্ষে তার সংসদ কক্ষকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে।

সংসদ এলাকাজুড়ে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা। বাজেট অধিবেশন শুরু এবং বাজেট উত্থাপনের দিনকে ঘিরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে কয়েক স্তরের। নিরাপত্তা তল্লাশি ছাড়া চাইলে কেউ এখানে প্রবেশ করতে পারবেন না। আমন্ত্রিত অতিথিদের বাইরে এ সময়ে সাধারণের সংসদ ভবন এলাকায় প্রবেশ ও চলাচলে থাকবে কড়াকড়ি। এছাড়া অধিবেশনকে সামনে রেখে সংসদ গ্যালারির সাউন্ড সিস্টেম ঠিক করা হয়েছে। আর অধিবেশন কক্ষের কার্পেট পরিবর্তন করা হয়েছে। চেয়ারগুলো মেরামত করে নতুন করে সাজানো হয়েছে। সংসদের ভেতরে বাইরে ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করা হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার সংসদের অধিবেশন কক্ষে ডিজিটাল পদ্ধতিতে এই বাজেট প্রস্তাবনা উত্থাপন করা হবে।

জানতে চাইলে সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান বলেন, বাজেট অধিবেশন উপলক্ষে যে ধরনের প্রস্তুতি নেয়া প্রয়োজন এবার প্রস্তুতিতে তার কোনো ঘাটতি নেই। কারণ রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিরা এ অধিবেশন উপলক্ষে সংসদে আসবেন। নিরাপত্তার পাশাপাশি বাজেট কার্যক্রমকে গতিশীল করার জন্য থাকবে হেল্পডেস্ক।

তিনি বলেন, এ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির পাশাপাশি বিভিন্ন মিশনের কূটনীতিক, রাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থার প্রধানগণসহ নানা শ্রেণি-পেশার ভিআইপিদের আগমন ঘটবে। তাদের স্বাগত জানাতে সংসদ সচিবালয় প্রস্তুত রয়েছে। সচিব আরো বলেন, সরকারের অন্যান্য অফিস যেমন বিকাল ৫টা পর্যন্ত এখানে অফিস সময় বিকাল ৬টা পর্যন্ত। বাজেট অধিবেশন উপলক্ষে শুক্র ও শনিবার আধা বেলা অফিস খোলা রাখা হয়েছে। আর বাজেট অধিবেশন চলাকালে অধিবেশন যতক্ষণ চলবে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ততক্ষণ উপস্থিত থাকতে হয়।

নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত সার্জেন্ট অ্যাট আর্মস কমডোর মোস্তাক আহমেদ বলেন, বাজেট অধিবেশন উপলক্ষে সংসদ ভবন এবং এর আশপাশ এলাকায় থাকবে বাড়তি নিরাপত্তা। কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় নিয়োজিত থাকবে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স (এসএসএফ) ও পিজিআরের নিরাপত্তা বাহিনী। এছাড়া বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার বাইরে সংসদ সচিবালয়ের নিরাপত্তারক্ষীরা সার্বক্ষণিক সতর্কাবস্থায় থাকবেন।

উল্লেখ্য, সাধারণত জুনের প্রথম সপ্তাহে বাজেট অধিবেশন শুরু হলেও ঈদের ছুটির কারণে এবার একটু দেরিতে শুরু হচ্ছে। তাই এবার প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে আলোচনার জন্য ছুটির দিনেও অধিবেশন বসতে পারে।

সংবিধান অনুযায়ী ৩০ জুন নতুন অর্থবছরের বাজেট পাস হবে। নতুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বাজেট প্রস্তাবনা নিয়ে স্পিকারের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। গতকাল দুপুরে তিনি সংসদ ভবনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে বৈঠক করেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা শেষে তিনি সংসদের অধিবেশন কক্ষ ঘুরে দেখেন। বৈঠক শেষে স্পিকার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এ প্রসঙ্গে বলেন, বাজেট অধিবেশনকে সামনে রেখে সংসদ সচিবালয় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে। এবার একটু দেরিতে শুরু হলেও অধিবেশনে বাজেট নিয়ে আলোচনা কম হবে না। সবাই কথা বলার সুযোগ পাবেন। এই অধিবেশন সাধারণত দীর্ঘ হয়। অধিবেশন শুরুর আগে কার্য-উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে অধিবেশনের মেয়াদ ও কর্মসূচি চূড়ান্ত হবে।

সূত্র জানায়, এরই মধ্যে প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপনের অর্থ মন্ত্রণালয়ে নির্দেশনা সংসদ সচিবালয়ে পৌঁছেছে। আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের নতুন বাজেটের আকার চলতি বছরের থেকে কিছুটা বাড়িয়ে ৫ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা করা হয়েছে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেটে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক এই দুই বিষয়কে সমান গুরুত্ব দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। এক্ষেত্রে নির্বাচনী ইশতেহার ও প্রবৃদ্ধির সুষম বণ্টনে বিশেষ নজর দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশন শুরু আগে সংসদ ভবনে কেবিনেট কক্ষে মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রস্তাবিত বাজেট চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হবে। ওই অনুমোদনের আগে বাজেটের আকারে পরিবর্তন আসতে পারে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

আগের সংসদের মতো এবারো বাজেট নিয়ে প্রাণবন্ত আলোচনা করতে চায় বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা। তাদের সঙ্গে আবার যোগ হয়েছে বিএনপির ৬ জন ও গণফোরামের দুই জন সংসদ সদস্য। বিএনপি সদস্যরা বাজেট ছাড়াও দলীয় চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে আলোচনার দাবি জানাবে। এছাড়াও তারা বিএনপিসহ সব বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নামে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার, শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারি ও ব্যাংক লুটসহ নানা ইস্যুতে সাধারণ আলোচনার জন্য এরই মধ্যে সংসদ সচিবালয়ে প্রস্তাব জমা দিয়েছে।

এ বিষয়ে বিএনপির সংসদীয় দলের নেতা চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মো. হারুনুর রশীদ বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি সময়ের দাবি। তাকে রাজনৈতিক কারণে বন্দি করে রাখা হয়েছে। এজন্য আমি একটি প্রস্তাব জমা দিয়েছি। এছাড়া আরো কয়েকটি প্রস্তাব সংসদের সংশ্লিষ্ট শাখায় রাখা হয়েছে। ওই বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনার জন্য স্পিকার সুযোগ দেবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। গতকাল শপথ নিয়ে বিএনপির সংরক্ষিত নারী এমপি রুমিন ফারহানা বলেন, এই সংসদ অবৈধ। তবে গণতান্ত্রিক চিন্তা থেকে শপথ নিয়েছি। কারণ দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে অবৈধভাবে কারাগারে আটক রাখা হয়েছে, সংসদে দাঁড়িয়ে তার মুক্তি চাইব।

পিডিএসও/হেলাল