‘আমাদের বিশ্বাস প্রধানমন্ত্রী খালি হাতে ফেরাবেন না’

প্রকাশ : ২২ মার্চ ২০১৯, ১৬:৩২

অনলাইন ডেস্ক

বারবার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলেও এমপিওভুক্তির দাবি মানা হয়নি বলে জানালেন নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা। তাই এবার প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ ও সুনির্দিষ্টভাবে লিখিত আকারে এমপিওভুক্তির ঘোষণা না আসা পর্যন্ত তারা জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনেই অবস্থান করবেন।

শুক্রবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে চলছে এমপিওভুক্তির দাবিতে শিক্ষক ও কর্মচারীদের তৃতীয় দিনের মতো অবস্থান কর্মসূচি। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষক-কর্মচারীরা বুধবার থেকে প্রেসক্লাবের সামনে এই অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন।

এই অবস্থান কর্মসূচির নেতৃত্ব দিচ্ছে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশন। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ বিনয় ভূষণ রায় দুপুরে সাংবাদিকদের বলেন, ‘এমপিওভুক্তির কথা বলার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাৎ আমরা চাই। কারণ, এর আগে আমাদের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলেও তা পরে বাস্তবায়ন হয়নি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের যদি বাড়ি ফিরে যেতে বলেন, সে নির্দেশও আমরা মানব। তবে আমাদের বিশ্বাস প্রধানমন্ত্রী আমাদের খালি হাতে ফেরাবেন না।’

নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকেরা বলছেন, সাড়ে পাঁচ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা এই অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন। সুনির্দিষ্ট ও যৌক্তিকভাবে লিখিত কোনো নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত তাদের অবস্থান দিন-রাত সমানতালে চলবে। পিরোজপুরের নাজিরপুর থেকে এসেছেন রাজলক্ষ্মী কলেজের শিক্ষক সিদ্ধার্থ মজুমদার। তাদের প্রতিষ্ঠান থেকে চারজন শিক্ষক ঢাকায় এসে অবস্থানে যোগ দিয়েছেন। তিনি বলেন, কোনো আশ্বাস আর নয়। আমরা কোনো আশ্বাস আর বিশ্বাস করি না। এবার এমপিওভুক্তির ঘোষণা লিখিতভাবে এবং সুনির্দিষ্ট আমাদের কাছে আসতে হবে।’

দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে প্রেসক্লাবের সামনে দেখা যায়, প্রেসক্লাবের কদম ফোয়ারা থেকে মূল গেট পর্যন্ত অবস্থান করছেন দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা। সড়কের ওপর পলিথিন ও কাগজ বিছিয়ে কেউ বসে, কেউবা শুয়ে আছেন। ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলায়, শেখ হাসিনার বাংলায়, উন্নয়নের বাংলায়, শিক্ষক কেন রাস্তায়’-এমন নানা স্লোগান দিচ্ছেন শিক্ষক-কর্মচারীরা।

অনেকের সঙ্গে জামা-কাপড় ভর্তি ব্যাগ আছে। তারা জানায়, ঢাকায় যাদের আত্মীয়-স্বজন আছেন, তারা সন্ধ্যার পর ফিরে যাচ্ছেন। আর ঢাকায় স্বজনহীন শিক্ষক-কর্মচারীরা রাতে প্রেসক্লাবের সামনের সড়কেই অবস্থান করছেন।

শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশন জানায়, গতকাল রাত সাড়ে তিনটার দিকে বরগুনার তালতলি উপজেলার শিক্ষক শৈলেন চন্দ্র মজুমদার (৫০) অবস্থানস্থলে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি এখন হৃদ্‌রোগ হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন।

পিডিএসও/রি.মা