রাজউক সম্পর্কে মানুষের ধারণা ইতিবাচক করতে হবে : গণপূর্ত মন্ত্রী

প্রকাশ : ১৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:০৮ | আপডেট : ১৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:৪৬

নিজস্ব প্রতিবেদক
ama ami

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম বলেছেন, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) সম্পর্কে সাধারণ মানুষের ধারণা বেশি সুখকর নয়। সে ধারণা পরিবর্তন করতে হবে, কাজ ও সেবার মান বাড়িয়ে এই ধারণা ইতবাচক করতে হবে। এজন্য কাজের অগ্রগতি, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা দরকার। এছাড়া যথা সময়ে ফাইল ছেড়ে দেওয়া, অযথা কাউকে হয়রানি না করা এবং নিজেকে দুর্নীতিমুক্ত রাখলে রাজউক সম্পর্কে সাধারণ মানুষের ধারণা পরিবর্তন হবে।

রোববার রাজউক আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

রেজাউল করিম বলেন, আমি বিশ্বাস করি, রাজউকে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অবৈধভাবে টাকা আয় করেন না। কিন্তু তারপরেও ধানের সঙ্গে চিঠা থাকে। রাজউকে সে চিঠাও থাকতে পারবে না। যার বিরুদ্ধে কাজের অবহেলা ও দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যাবে তাকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেওয়া হবে না। 

তিনি বলেন, রাজউকের অধিকাংশ কর্মকর্তারাই সৎ। কিন্তু কিছু কর্মকর্তার কারণে প্রতিষ্ঠানটির নামে মানুষের কাছে খারাপ ধারণা রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ফাইল আটকে রাখা কিংবা প্লট সংক্রান্ত নানা দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। তবে সব অভিযোগ সত্য নয়। কিন্তু আমার কথা হলো কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগই থাকবে কেন?

তিনি আরো বলেন, আমি মন্ত্রী হিসেবে নয়, একজন মানুষ হিসেবে বিনয়ের সঙ্গে অনুরোধ করছি, গা ঝাড়া দিয়ে উঠুন। আমি নিশ্চয়তা দিচ্ছি, কেউ অহেতুক হয়রানি হবেন না। আর স্থবির হয়ে থাকবে না। প্রতিষ্ঠানটিকে দুর্নীতিমুক্ত করে জনবান্ধব হিসেবে কাজ করেন।

এর আগে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত সচিব শহিদ উল্লা খন্দকার বলেন, রাজউক নকশা অনুমোদন দেয়। কিন্তু নকশা অনুমোদন দিয়ে তাদের কাজ শেষ। মালিক ইচ্ছামতো ভবন তৈরি করে। নকশা অনুযায়ী যে জায়গাটুকু খালি রাখার কথা; সেটাতো রাখে না বরং উল্টো রাস্তা দখল করে ভবন বানাচ্ছে। সে সময় ভবন ভাঙতে যায় রাজউক। কিন্তু কেন এরকম হবে? যে জন্য জোন অফিস করা হলো এবং অথরাইজ অফিসার নিয়োগ দেওয়া হলো তাহলে এসবের কাজ কি? 

অনুষ্ঠানে রাজউকের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান, সদস্য এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পিডিএসও/তাজ