সেমিনারে পরিকল্পনা সচিব

‘ডেল্টা প্ল্যানে ২০৩০ সালে দারিদ্রমুক্ত হবে দেশ’

প্রকাশ : ১০ নভেম্বর ২০১৮, ১৮:০৯

হাসান ইমন

বাংলাদেশ ব-দ্বীপ পরিকল্পনা (ডেল্টা প্ল্যান) বাস্তবায়ন শুরু হলে ২০৩০ সালের মধ্যে দেশ দারিদ্রমুক্ত হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন বাংলাদেশ পরিকল্পনা কমিশনের সিনিয়র সচিব ড. সামসুল আলম। 

তিনি বলেছেন, ‘এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে ২০৪১ সালে উন্নত দেশে উন্নীত হতে বড় ভূমিকা পালন করবে। আর যদি এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা না হয়, তাহলে এসব লক্ষ্যে পৌছানো খুবই দূরহ হবে।’ 

শনিবার ‘টেকসই নগর ও জনবসতি’ প্রতিপাদ্য নিয়ে রাজধানীর বাংলা মটরের প্লেনার্স টাওয়ারে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্লেনার্স (বিআইপি) আয়োজিত বিশ্ব নগর পরিকল্পনা দিবস ২০১৮ উপলক্ষে ‘বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যান’ বিষয়ক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। 

বিআইপির সভাপতি পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক এ কে এম আবুল কালামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব শহীদ উল্লা খন্দকার, বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান অতিরিক্ত সচিব হেলাল উদ্দিন, বিআইপির ভাইস-প্রেসিডেন্ট ফজলে রেজা সুমন, ব্র্যাকের আরবান ডেভেলপমেন্ট কর্মসূচির প্রধান হাসিনা মোশরফা। অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন- বিআইপির সাধারণ সম্পাদক ড. আদিল মুহাম্মদ খান।
 
ড. সামসুল আলম বলেন, যে জাতির ১০০ বছরের পরিকল্পনা থাকে, সে জাতির উন্নতি কেউ আটকে রাখতে পারবে না। এ কথা সত্যি যে, ‘ডেল্টা প্ল্যান ২১০০’ ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য বর্তমান প্রজন্মের শ্রেষ্ঠ উপহার।

তিনি আরও বলেন, বিগত ৬০ বছরের পানি ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত পরিকল্পনা ও প্রকল্পের ভাল-মন্দ বিশ্লেষণ করে এ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এসময় আমরা গবেষণা করে জানতে পেরেছি, নদীভাঙনসহ অন্যান্য দুর্যোগে উপকূলীয় এলাকার ৫০-৬০ হাজার মানুষ প্রতিবছর গৃহহীন হয়ে পড়ছে। ‘ডেল্টা প্ল্যান ২১০০’ বাস্তবায়ন হলে এসব গৃহহীন মানুষের হার অনেকাংশে কমে আসবে।

সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব শহীদ উল্লা খন্দকার বলেন, ‘ডেল্টা প্ল্যান ২১০০’ বাঙ্গালী জাতির সবচেয়ে বড় পরিকল্পনা। যে দেশের এমন পরিকল্পনা থাকে, সে দেশের অগ্রগতি কেউ দমিয়ে রাখতে পারে না। বাংলাদেশের অগ্রগতিও কেউ থামিয়ে রাখতে পারবে না। তবে এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে দেশের পরিকল্পনাবিদদের সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করতে হবে।

পিডিএসও/অপূর্ব