জাতীয় পরিচয়পত্রের সেবা ব্যবস্থাপনা ডিজিটাল হলো

মাঠ অফিসেই হারানো কার্ড উত্তোলন ও ছোট ত্রুটি সংশোধন হবে

প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:২৭

গাজী শাহনেওয়াজ

জাতীয় পরিচয়পত্র প্রাপ্তির সেবা কার্যক্রম ডিজিটাল হয়েছে। সেবা কার্যক্রম নানাভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর গতকাল বুধবার প্রজ্ঞাপন জারি করে এর পরিধি মাঠপর্যায়ে ছড়িয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ভোটার জাতীয় পরিচয়পত্রের সংশোধন, হারানো কার্ড উত্তোলন এবং নতুন কার্ড মুদ্রণে মাঠের উপজেলা অফিস, জেলা অফিস, আঞ্চলিক নির্বাচন অফিস এবং জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের (এনআইডি) কার কী ক্ষমতা তাও নির্ধারিত করা হয়েছে প্রজ্ঞাপনে।

এর মাধ্যমে ঢাকার নির্বাচন ভবনে অবস্থিত কেন্দ্রীয় সার্ভারের (এনআইডি উইংয়) সঙ্গে যুক্ত হলো মাঠ অফিসগুলো। তবে পুরো কার্যক্রম স্বাভাবিক গতিতে ফিরতে আগামী এক থেকে দেড় মাস সময় লাগবে। এদিকে, ডিজিটাল সেবাপ্রাপ্তির কার্যক্রমের কাজকে সহজীকরণ করতে গতকাল নতুন কার্ড ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম প্রবর্তন করেছে এনআইডি উইং। এ উন্নত ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির মাধ্যমে সুদূর সর্ব দক্ষিণের উপজেলা শ্যামনগর নির্বাচন অফিসে বসে উত্তরের শেষ উপজেলা পঞ্চগড়ের তথ্য দেখতে পাবেন মাঠ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এর আগে যেকোনো তথ্য জানতে দ্বারস্থ হতে হতো ঢাকা অফিসের কর্তাব্যক্তিদের। খবর ইসির দায়িত্বশীল কর্মকর্তা সূত্রের।

মন্তব্য জানতে চাইলে ইসির যুগ্ম সচিব এবং এনআইডি উইংয়ের পরিচালক (অপারেশন) মো. আবদুল বাতেন বলেন, ভোটার জাতীয় পরিচয়পত্রের সেবা সহজীকরণ করা, ভুক্তভোগীদের দোরগোড়ায় কাক্সিক্ষত সেবা পৌঁছে দেওয়া এবং কাজে স্বচ্ছতা ফেরাতে এর কার্যক্রমকে ডিজিটালাইজ করা হয়েছে। অনেকদিন ধরে এসব সিস্টেমের ওপর গবেষণা, পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর মাঠপর্যায়ের সঙ্গে কেন্দ্রীয় সার্ভারের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে। গতকাল বুধবার প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে সেই দ্বার উন্মুক্ত হলো।

এনআইডির সেবা দিতে নিরলস কাজ করে যাওয়া এই কর্মকর্তা বলেন, এখন থেকে ভোটার পরিচয়পত্র বাহকরা হারানো কার্ড উত্তোলন, নামের ছোটখাটো ভুলের সংশোধন উপজেলা অফিস থেকে সংশোধন করতে পারবেন। কারণ ঢাকা অফিসের মতো মাঠ অফিসারকে এসব করণিক কাজ করার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে এসএসসির সনদ দেখে সহনীয় পর্যায়ের জন্মতারিখ ভুলের সংশোধনও করতে পারবেন এসব কর্মকর্তা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, ভোটার জাতীয় পরিচয়পত্রের ভুল সংশোধন নিয়ে নানা ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়। এ অভিযোগ দুই পক্ষের (সেবাদানকারী সংস্থা ইসি এবং সেবা গ্রহণকারী) থেকে আসে। দীর্ঘদিন ধরে চলা এ অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের সুরাহা করতে এনআইডির সেবা মাঠপর্যায়ে ছড়িতে দিতে হাতে নেয় দেশজুড়ে নেটওয়ার্ক স্থাপনের কাজ। একই সঙ্গে সংস্কারের উদ্যোগ চলে কার্ড ম্যানেজমেন্ট পদ্ধতির আধুনিকায়নের। কেন্দ্রীয় সার্ভারের সঙ্গে লিংক স্থাপনের সঙ্গে এই পদ্ধতিতে পরিবর্তন এনেছে নির্বাচন কমিশনের এনআইডি উইং।

এনআইডির কার্যক্রমকে মাঠপর্যায়ে ছড়িয়ে দেওয়া হলেও সংশ্লিষ্ট অফিসগুলো দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করছে কিনা, তা-ও নিয়মিত তদারকি করবে কেন্দ্র। সংশ্লিষ্ট উপজেলা ও জেলা অফিসে সাধারণ নাগরিকরা কতগুলো আবেদন করেছে, কতটির নিষ্পত্তি হয়েছে এবং কতগুলো সংশোধনে তাদের এখতিয়ারের বাইরে; তা ঊধ্বর্তনের দ্বারস্থ হয়েছে, কেন্দ্রে বসেই তা দেখতে পারবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনে উপজেলা, জেলা ও আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসের কী ক্ষমতা তাও নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে ভোটার জাতীয় পরিচয়পত্রের সেবা ডিজিটাল করার ফলে ভোটার তাদের হারানো কার্ড পুনরায় উত্তোলনে আবেদনের ন্যূনতম সময়ের মধ্যে পেয়ে যাবেন নিজ উপজেলাতেই। একই সঙ্গে নামের এক-দুটি অক্ষরে গরমিল তা-ও সেখান থেকে সংশোধন করে নিতে পারবেন ভুক্তভোগীরা। বিশেষ করে নামের আংশিক কিংবা জন্মতারিখের সংশোধনের ক্ষেত্রে এসএসসি সনদ অনুযায়ী সংশোধন করতে পারবে ইসির মাঠ অফিসগুলো। তবে মাদরাসা, উন্মুক্ত ও ভোকেশনালের সনদ দেখে কোনো নাগরিকের জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে হলে ঢাকা অফিসের শরণাপন্ন হতে হবে মাঠ অফিসগুলোকে।

এক কথায় বলা যায়, ছোটখাটো করণিক ভুলের ভোটার জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের ক্ষমতাপ্রাপ্ত হলো মাঠ অফিস। পাশাপাশি জটিল ও দুরবোধ্য সমীকরণের সমাধান মিলবে আগের মতোই ঢাকা অফিস থেকেই।

এসব কার্যক্রমকে সুষ্ঠু ও সুচারুভাবে শেষ করতে পরিবর্তন আনা হয়েছে কার্ড ম্যানেজমেন্ট ব্যবস্থায়। গতকাল এনআইডির পরিচালক (অপারেশন) আবদুল বাতেনের সভাপতিত্বে নির্বাচন ভবনের আট তলায় অনুষ্ঠিত সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়। এ সিস্টেম প্রবর্তন করার কারণে এখন ঢাকা এবং মাঠ অফিসের কর্মকর্তাদের এনআইডি সেবা গ্রহণ ও প্রদানের ক্ষেত্রে ক্ষমতার ভারসাম্য তৈরি হয়েছে বলে মনে করছেন মাঠ কর্মকর্তারা।

ছোট উদাহরণ টেনে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মাঠ কর্মকর্তা বলেন, আগে স্মার্ট কার্ড নিজ উপজেলা কিংবা দায়িত্বের বাইরে জানা সম্ভব ছিল না; এটার প্রকৃত অবস্থান কোথায়। নতুন কার্ড ম্যানেজমেন্ট প্রবর্তন করার মাধ্যমে সারা দেশের তথ্য নিজ অফিসে বসেই জানতে পারব এবং জানাতে পারব।

পিডিএসও/তাজ