নয়াদিল্লিতে বিজিবি-বিএসএফ সম্মেলন বিকেলে

প্রকাশ : ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:৪৯ | আপডেট : ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০:০৮

অনলাইন ডেস্ক

ভারতের নয়াদিল্লিতে আজ সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এবং ভারতের বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের (বিএসএফ) মধ্যে মহাপরিচালক পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলন। ৩ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়ে ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছয় দিনের এ সম্মেলনে যোগ দিতে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ১৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল নয়াদিল্লিতে গেছেন।

গতকাল রোববার বিকেলে বিজিবি সদর দফতর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়। বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলে বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা রয়েছেন। এদিকে, বিএসএফ মহাপরিচালক কে কে শর্মার নেতৃত্বে ২০ সদস্যের প্রতিনিধিদল সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন। ভারতীয় প্রতিনিধিদলে বিএসএফ সদর দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ফ্রন্টিয়ার আইজি এবং স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাও রয়েছেন।

সীমান্ত সম্মেলনে উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে বিদ্যমান সুসম্পর্ক আরো সুসংহত করার লক্ষ্যে বিজিবি পরিচালিত সীমান্ত পরিবার কল্যাণ সমিতির (সীপকস) সভানেত্রী সোমা ইসলামের নেতৃত্বে ৭ সদস্যের প্রতিনিধিদলও নয়াদিল্লিতে যাচ্ছেন। সীপকস প্রতিনিধি দলটি বিএসএফ পরিচালিত বিএসএফ ওয়াইভস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের (বিডব্লিউডব্লিউএ) প্রতিনিধিদলের সঙ্গে পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন এবং অ্যাসোসিয়েশনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পরিদর্শন করবেন।

সম্মেলনের প্রথম দিন (৩ সেপ্টেম্বর) নয়াদিল্লিতে বিএসএফের চাওলা ক্যাম্পে স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক বৈঠক শুরু হবে। এবারের সম্মেলনের আলোচ্য বিষয়ের মধ্যে রয়েছে সীমান্ত এলাকায় নিরস্ত্র বাংলাদেশি নাগরিকদের গুলি/হত্যা/আহতের ঘটনা, আগ্নেয়াস্ত্র/গোলাবারুদ/বিস্ফোরক দ্রব্য চোরাচালান, বিভিন্ন প্রকারের মাদকদ্রব্য চোরাচালান, নিরীহ বাংলাদেশি নাগরিকদের গ্রেফতার/আটকের ঘটনা, সীমান্তের দুই পাশে একই ধরনের গ্যালারি নির্মাণ, সীমান্তে ‘ক্রাইম ফ্রি জোন’-এর আওতা বাড়ানোসহ উভয় দেশের সীমান্ত নদীসমূহের তীর সংরক্ষণ এবং পারস্পরিক আস্থা বৃদ্ধির বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে।

সফরকালে বিজিবি মহাপরিচালক ভারত সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট সচিবের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হবেন। সীমান্ত সম্মেলনে আগামী ৬ সেপ্টেম্বর নয়াদিল্লিতে বিজিবি-বিএসএফ প্রীতি বাস্কেটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ৭ সেপ্টেম্বর সম্মেলনের যৌথ আলোচনার দলিল স্বাক্ষরিত হবে। সম্মেলন শেষে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল ৮ সেপ্টেম্বর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

পিডিএসও/হেলাল